ত্রিপুরা পাড়ায় ৯শিশুর মৃত্যু; দু’টি তদন্ত রিপোর্ট মন্ত্রনালয়ে

চট্টগ্রম অফিস প্রকাশ:| সোমবার, ১৭ জুলাই , ২০১৭ সময় ০৫:০৭ অপরাহ্ণ

নন্দন রায়, সীতাকু- (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতাঃ সীতাকুন্ড সোনাইছড়ি ইউনিয়নের পাহাড়ের পাদদেশে ত্রিপুরা পাড়ায় ৩ দিনে ৯ শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় দু’টি তদন্ত রিপোর্ট মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। অজ্ঞাত রোগের নাম জানানো হবে আজ (মঙ্গলবার)। সীতাকুন্ড ৯টি ত্রিপুরা পাড়ার মধ্যে ৩টি পাড়ায় এ অজ্ঞাত রোগ দেখা দিয়েছে। শুধু আদিবাসীদের মধ্যে এ রোগ দেখা দেওয়ায় স্থানীয়দের ধারণা একটি রড তৈরীর কারখানার কেমিক্যাল মিশ্রিত ছড়ার পানি পান করার কারণেও হতে পারে। কারণ এই ছড়ার পানি কোন বাঙালিরা ব্যবহার করেনা। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নুরুল করিম রাশেদ জানান ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, বিশেজ্ঞ দল কর্তৃক সংগৃহিত আক্রান্ত শিশুদের বিভিন্ন আলামত ও আমাদের পাঠানো রির্পোট পর্যালোচনা করে অজ্ঞাত রোগটির নাম মঙ্গলবার প্রকাশ করবে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়। ঠিক কি কারণে ত্রিপুরা পাড়ার ৯ শিশু মারা গেছে।
এদিকে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত সোনাইছড়ি ত্রিপুরা পাড়া থেকে ৮ কিঃমিঃ উত্তরে ছোটকুমিরা ত্রিপুরা পাড়ার এক অন্তস্বত্বা মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে রবিবার। তবে তার বাড়ী সোনাইছড়ি ত্রিপুরা পাড়ায় বলে জানা গেছে। এ নিয়ে সর্বমোট ৮৪ জন অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান ছিদ্দিকী জানিয়েছেন। তবে গতকাল সোমবার পর্যন্ত নতুন করে কোন রোগী পাইনি। তিনি জানান, তারা তিন সদস্য বিশিষ্ট দুটি কমিটির তদন্ত রিপোর্ট গত রবিবার মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করেছেন। মোট ৮৪ রোগীর মধ্যে ৫০ জন চমেক হাসপাতালে ও ৩৪ জন ফৌজদারহাট বিআইটিআইডিতে চিকিৎসাধীন আছে। তারা সবাই ধীরে ধীরে সুস্থ্য হয়ে উঠতে শুরু করেছে। এদিকে সোনাইছড়ি ত্রিপুরা পাড়ায় ৯ শিশুর মৃত্যু এবং কয়েক দিনে ৮৪জন হাসপাতালে ভর্তির ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় ও সীতাকু- উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।


আরোও সংবাদ