শিরোনাম
You are here: প্রচ্ছদ / নিউজচিটাগাং স্পেশাল

বিভাগ: নিউজচিটাগাং স্পেশাল

Feed Subscription

কল্পলোকে পূজিত হবেন দেবী দূর্গা

পূজন সেন, বোয়ালখালী : ভুতুম পেঁচার ভয়ঙ্কর গুহা দেখে যে কারোরই চমকে যাবে পিলে। গুহা অভ্যন্তরে প্রবেশ করলে এ এক নতুন রাজ্য দেখা মিলে। নাম তার কল্পলোক। এতে রয়েছে গাছ, ফুল, পাখি, সরোবর আর প্রায় ৩০টি প্রতিমা।
এবার এ কল্পলোকে দেবীদূর্গার পূজার আয়োজন করেছে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার জ্যৈষ্ঠপুরা বীণাপাণি সংঘ। এ আয়োজনে ২০ লক্ষাধিক টাকার বাজেট করেছেন বলে জানিয়েছে সংঘের উপদেষ্ঠা প্রবীর চৌধুরী। তিনি বলেন, দু:স্থদের মাঝে শাড়ি-কাপড় বিতরণ ও প্রসাদ বিতরণসহ সংগীতানুষ্ঠান চলবে ৪দিনব্যাপী।
এছাড়া জ্যৈষ্ঠপুরা মৈত্রী সংঘ ও দেবেন পাঠাগারের উদ্যোগে প্রায় সাতলাখ ব্যয়ে চলছে পূজা আয়োজন। প্রতিমা গড়তে ব্যয় হচ্ছে লাখ টাকা এমনটাই জানালেন আয়োজক কমিটির সভাপতি সঞ্জয় মহাজন। তবে সংগীতানুষ্ঠান ও প্রসাদ বিরতণসহ সবমিলিয়ে মহাধুমধামে চলবে দুর্গোৎসব।
বোয়ালখালী উপজেলায় ৮৭টি সার্বজনীন ও ২৬টি ব্যক্তিগত পূজা মন্ডপে একযোগে দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে। চলছে আয়োজনের সর্বশেষ প্রস্তুতি। দর্শনার্থীদের সার্বিক নিরাপত্তায় উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও আনসার বিডিবি সদস্যরা কাজ করবেন জানিয়েছে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফিয়া আখতার।
বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ বোয়ালখালীর শাখার সভাপতি শ্যামল বিশ্বাস বলেন, এবারের দুর্গোৎসব সুষ্ঠু পরিবেশে সম্পন্ন করতে প্রশাসন ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। এছাড়া পূজা মন্ডপগুলোর আয়োজকদের শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রেখে পূজা সম্পন্ন করতে অনুরোধ করা হয়েছে। তিনি জানান, আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর সোমবার বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হয়ে ৩০ সেপ্টেম্বর বিজয়া দশমী পালনের মধ্য শেষ হবে এ পূজা আয়োজন।

রোহিঙ্গা ইস্যু: চুড়ান্ত সময় এসে গেছে এখনই ব্যবস্থা নিতে হবে-ব্যারিস্টার মনোয়ার

ছবি- তসলিম খাঁ

 আন্তর্জাতিক অভিবাসন বিশেষজ্ঞ, খ্যাতিমান ব্রিটিশ আইনজ্ঞ, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ইন্টারন্যাশনালের সেক্রেটারী জেনারেল, চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরাম চেয়ারম্যান, এক সময়ের কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা, যুক্তরাজ্য প্রবাসী ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন। যিনি দেশের বাইরে থাকলেও দেশ প্রেম তাঁকে বার বার চুম্বুকের মত স্বদেশের মাটিতে নিয়ে আসে এমন একজন হচ্ছেন আমাদের চট্টগ্রামের প্রিয় মানুষ মনোয়ার আহমেদ। গতকাল রাতে রোহিঙ্গা বিষয়ে চট্টগ্রামের প্রথম ২৪ ঘন্টার অনলাইন পত্রিকা “নিউজচিটাগাং২৪” এর নির্বাহী সম্পাদক মির্জা ইমতিয়াজ শাওন’র  সাথে তাঁর কথা হয়। সাক্ষাৎকারটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল-

  • সবচেয়ে নির্যাতিত জনগোষ্ঠী হলো রোহিঙ্গারা। তাদের এ নাজুক পরিস্থিতি দেখে মেডিসিনস স্যান ফ্রন্টিয়ারস বলেছে, পৃথিবী থেকে বিলুপ্তপ্রায় আদিগোষ্ঠীর তালিকায় ভয়াবহ অবস্থানে রয়েছে রোহিঙ্গারা। রোহিঙ্গা শব্দের উত্পত্তি ও রোহিঙ্গা নামের জনগোষ্ঠী নিয়ে বিশেষজ্ঞরা নানা মত পোষণ করে থাকেন। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী নিয়ে এ মতপার্থক্য আনুষ্ঠানিক-অনানুষ্ঠানিক বিতর্কের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়, এটি ভয়ংকর অভিশাপ হিসেবে গ্রাস করে ফেলেছে এ জনগোষ্ঠীর সদস্য আদমসন্তানদের। রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার শুধু ভূলুণ্ঠিতই নয়, পদপৃষ্ট হয়েছে। নিপীড়নের নিত্যনতুন কৌশলের কাছে মানবতা লজ্জাবনত হয়েছে বারবার। ফলে আদমসন্তান হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করতে হলে যে ন্যূনতম সুযোগ-সুবিধা আর অধিকার উপভোগ করতে হয় তার কোনোটিই তাদের ভাগ্যে জোটে না। উপরন্তু নির্যাতনের মাত্রা সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে শুধু বেড়েই চলছে তা নয়, কোনো কোনো ক্ষেত্রে এ নিপীড়ন-নির্যাতন কল্পনাকেও হার মানায়।

নিউজচিটাগাং-  মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতার শিকার হয়ে গত তিন সপ্তাহে প্রায় ৪ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। রোহিঙ্গা সম্প্রদায়কে বাংলাদেশে আশ্রয় ও বেসরকারি সংস্থাসমূহকে প্রবেশ করতে দিয়ে বাংলাদেশ নৈতিক সাফল্য অর্জন করেছে। ১৬ কোটি মানুষ রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সঙ্গে খাবার ভাগাভাগি করছে। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলেছে, স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পাওয়া নতুন ছবিতে ওই এলাকায় ব্যাপক হারে ধ্বংসযজ্ঞের চিত্র পাওয়া গেছে, যা তাদের আগের ধারণার চেয়ে অনেক বেশি। রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আগামী শুক্রবার মালেশিয়ায় যে বায় হবে এটা কোন কাজে আসবে বলে আপনার কি মনে হয়?

ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন- দেখুন, আন্তর্জাতিক আদালতের মাধ্যমে আপাতত কোন সমাধান পাওয়া যাবে না। আর্ন্তজাতিক ক্রিমিনাল কোর্টের কনভেনশনে বার্মা স্বাক্ষর করে। তবে বার্মার বিরুদ্ধে যে কোন ধরণের সিদ্ধান্ত বার্মা সরকারকে আন্তর্জাতিক ভিত্ত্বিকে দুর্বল করবে। এটাই হচ্ছে কথা।

নিউজচিটাগাং- আপনি হয়ত জানেন যে, প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামে এসেছিলেন রোহিঙ্গাদের দেখতে। এটাকে আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?

ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন- মূল্যায়ন করব একারণে যে, প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগ ও সফর প্রসংসার দাবী রাখে এবং আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশ এবং তাঁর নিজের ভাবমূর্তিকে বাড়িয়েছে।

নিউজচিটাগাং- আপনি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস্ ইন্টারন্যাশনালের সেক্রেটারী জেনারেল, সে হিসেবে এই রোহিঙ্গা সমস্যা ও করণীয় সম্পর্কে কিছু বলবেন কি?

ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন- শুধু এটা বলতে চাই, সমস্যাটি দীর্ঘদিনের। এ যাবত আন্তর্জাতিকভাবে কার্যকর কোন কিছুই করা হয়নি। তবে এখন চুড়ান্ত সময় এসে গেছে জাতিসংঘ ও বিভিন্ন উন্নত দেশ গুলো এখন তাদের দৃষ্টি বার্মা বাংলাদেশের দিকে। প্রবল চাপ সৃষ্টি ছাড়া দীর্ঘমেয়াদী কোন সমাধান আসবে না অন্তত আমার মনে হচ্ছে। আর পদক্ষেপের মধ্যে অর্থনৈতিক ও বানিজ্যিক নিষেধাজ্ঞা, এমনকি বিমান ও নৌ পথে বার্মাকে কঠোর নিষেধাজ্ঞার মধ্যে আনতে হবে। একই সাথে ক্যাম্পের শরনার্থীদের মধ্যে আশ্রয়, চিকিৎসা, খাদ্য, নিরাপত্তা ও শিশুদের জন্য শিক্ষার ব্যাবস্থা করতে না পারলে তারা ক্যাম্পের বাহিরে গিয়ে নিরাপদ জীবন যাপনে সুযোগ খুঁজবে। বার্মা সরকারকে বাধ্য করতে হবে যাতে করে শরনার্থীরা নিরাপদে সেখানে তাদের নিজ নিজ বাসস্থানে পিরে যেতে পারে এবং নিরাপদ থাকতে পারে এবং অত্যাচার, হত্যা, নির্যাতনের সাথে জড়িতদের শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। রোহিঙ্গাদের জন্য সাংবিধানিকভাবে বার্মায় যথাযথ মানবিক ও মৌলিক অধিকারের নিশ্চয়তা করতে হবে। প্রয়োজনে জাতি সংঘের শান্তি বাহিনী নিয়োগ করা যেতে পারে ঝুকিপূর্ণ এলাকায়।

নিউজচিটাগাং- মায়ানমার সরকার বাহিনী নির্বিচারে রোহিঙ্গাদের নিশংসভাবে হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট করছে। সে জন্য তারা প্রাণভয়ে সিমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে ডুকে পড়ছে। আমাদের সরকারের উচিত কি দায়িত্ব পালন করা উচিত?

ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন- সরকারের উচিত আন্তর্জাতিকভাবে প্রবল চাপ ও মত সৃষ্টির জন্য প্রধানমন্ত্রী তথা সরকার যথাযথ উদ্যোগ নিতে পারে। সিমান্তবর্তী ও অভ্যন্তরে দেশের নিরাপত্তা বাহিনীকে সজাগ ও শক্তিশালীভাবে প্রস্তুত রাখা। যাতে করে প্রয়োজনে সামরিক চাপের কৌশল নিতে পারে।

নিউজচিটাগাং- রোহিঙ্গা বিষয় নিয়ে দেশে প্রথম ছবিশ ঘন্টার অন লাইন সংবাদপত্র নিউজ চিটাগাং ২৪ ডট কমের সাথে কথা বলার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ, ভাল থাকবেন।

ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন- চট্টগ্রামের প্রথম ২৪ ঘন্টার অনলাইন পত্রিকা “নিউজচিটাগাং২৪.কম” আরো এগিয়ে যাক। আমার প্রত্যাশা গণমানুষের হয়ে সব সময় কাজ করে যাবে এ পত্রিকাটি। সবশেষে নিউজচিটাগাং এর সকল পাঠকের জন্য রইলো শুভেচ্ছা। সবাই ভালো থাকুন, নিউজচিটাগাং পরিবারেরকে ও আপনাকে ধন্যবাদ।

 

 

 

বাসায় রান্না করুন ‘নওয়াবি গোশত’

ছেলে বুড়ো থেকে সকলেরই গরুর মাংসের প্রতি একধরণের দুর্বলতা রয়েছে। এ কারণেই যাদের গরুর মাংস খাওয়া নিষেধ তাদেরকেও গরুর মাংসের কাছ থেকে দূরে সরিয়ে রাখা যায় না। রাঁধুনিরাও চেষ্টা করেন ভিন্নভাবে রান্না করে গরুর মাংসের স্বাদটা আরও বাড়াতে। চলুন তবে আজকে দেখে নেয়া যাক গরুর মাংসের ভিন্ন একটি পদ ‘নওয়াবি গোশত’ রান্নার রেসিপি।
উপকরণ:
– ১ কেজি হাড় ছাড়া গরুর মাংস
-২০০ গ্রাম পেঁয়াজ
– ১ টেবিল চামচ আদা বাটা
– ১ টেবিল চামচ রসুন বাটা
– ১ চা চামচ জিরা বাটা
– ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো
– ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়ো (ঝাল অনুযায়ী)
– ১ টেবিল চামচ গরম মসলা গুঁড়ো
– ১ কাপ টকদই
– ২ টেবিল চামচ মাওয়া
– পরিমাণমতো তেল
– ২ টেবিল চামচ ঘি
– ৮/১০ টি কাঁচামরিচ
– ১ টেবিল চামচ বাদাম বাটা (পেস্তাবাদাম /কাজু বাদাম /চীনাবাদাম)
– পরিমাণ মতো কিশমিশ
– লবণ স্বাদমতো
পদ্ধতি:
– প্রথমে গরুর মাংস টুকরো করে কেটে নিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন।
– এরপর একটি পাত্রে মাওয়া ও ঘি ছাড়া বাকি সব উপকরণ গরুর মাংসের সাথে ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে মাঝারি আঁচে চুলায় বসিয়ে দিন। রান্নার মাঝে মাঝে নেড়ে দিতে হবে যেন নিচে লেগে না যায়।
– মাংস কষে তেল ওপরে উঠে এলে পানি দিয়ে আরও কিছুক্ষণ রান্না করতে হবে। মাংস সিদ্ধ না হওয়া পর্যন্ত এভাবে রান্না করতে হবে। মাংসে ঝোল থাকে সেভাবে পানি দিয়ে মাংস সেদ্ধ করতে থাকুন। মাংস সিদ্ধ হয়ে গেলে একটি পাত্রে মাংস ঝোল থেকে আলাদা করে নামিয়ে নিন।
– একটি কড়াইয়ে ঘি দিয়ে এতে পেঁয়াজ, রসুন, এলাচ, দারুচিনি দিয়ে দিন এবং বাদামি করে ভেঁজে নিন। মসলা বাদামি হয়ে এলে আলাদা করে রাখা মাংসগুলো দিয়ে মাংস ভাঁজতে থাকুন।
– মাংস ভাজা ভাজা হলে তাতে মাংসের আলাদা করে রাখা ঝোল দিয়ে আবার মাখা মাখা হয়ে যাওয়া পর্যন্ত রান্না করতে থাকুন।
– ঝোল মাখা মাখা হয়ে এলে এতে কিশমিশ ও মাওয়া দিয়ে চুলা থেকে নামিয়ে ফেলুন। ব্যস এবার গরম গরম পরোটা, পোলাও কিংবা ভাতের সাথে পরিবেশন করুন ‘নওয়াবি গোশত’।

আত্মীয়’র বাড়িতে পিঠা-মাংস নিয়ে দৌড়-ঝাপ

আনন্দের সাথে পালিত হচ্ছে কোরবানীর ঈদ । নামাজ আদায়ের কোরবানীর পশু জবাই করা হয়েছে । তারপর চামড়া ছাড়ানো । এরপর চলেছে রান্নার কাজ । এখন চলছে পাড়া-পতিবেশীদের মাংসের ভাগ বিলি করা থেকে আত্মীয়’র বাড়িতে পিঠা-মাংস নিয়ে দৌড়-ঝাপ । এসব কাজ একার পক্ষে সামলানো কষ্ট- ঝামেলাসময়ের ব্যপার । কেই এটা কররৈা তো কেউ ওটা করলো ।

আত্মীয়’র বাড়িতে পিঠা মাংসতবুও আত্মীয়’র বাড়িতে পিঠা মাংস নিয়ে দৌড়-ঝাপ খুব আনন্দের জানালো বাকলিয়ার স্থানী ছেলে নোমান । সে তার খালার বাড়িতে পিঠা মাংস নিয়ে যাচ্ছে । এর আগে ফুফির বাড়িতে পিঠা মাংস নিয়ে গিয়েছিলো নোমান ।
আত্মীয়’র বাড়িতে পিঠা মাংস নিয়ে দৌড়-ঝাপ করাতেই নাকি তার খুব আনন্দ ।

বাকরখানির জন্য বেকারীতে লাইন

কোরবানীর ঈদকে ঘীরে চলছে নানান আয়োজন ।

বাকরখানিএকদিন আগে থেকেই ঘরে ঘরে আটার রুটি বানানোর কাজে লেগে যায় বাড়ির গীন্নিরা । পিঠা বানানোর আনন্দে সবাই মত্ত থাকে । বাড়ির ছোটরা্ও কম যায় না । তবে সেই সাথে যোগ হয় নান রুটি পরটা বাকরখানিও ।
নগরীর বহদ্দার হাট, চাঁদগাঁও, বাকলিয়া ঘুরে বেশ কটি বেকারীতে বাকরখানির জন্য লাইনও চোখে পড়েছে

বিরিয়ানি ও কাবাব

ঈদের খাবারে চাই বৈচিত্র্য। খেয়ে ও খাইয়ে সবাইকে তুষ্ট করা যাবে—এ রকম কিছু রেসিপি নিয়ে এই আয়োজন
বিরিয়ানি ও কাবাব
উপকরণ
বাসমতি চাল ১ কেজি, আদা-রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, দুধ ১ কাপ, বাদাম বাটা ১ কাপের ৪ ভাগের ১ ভাগ, জাফরান ১ চিমটি, লবণ ২ চা চামচ, ঘি আধা কাপ, লং ১০টি, এলাচি ৩টি, দারুচিনি ১ ইঞ্চির ৩ টুকরা, শাহি জিরা ১ চিমটি।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. হাঁড়িতে ঘি গরম করে তাতে লং, দারুচিনি, এলাচি ও শাহি জিরার ফোড়ন দিন।
২. তারপর তাতে চাল দিয়ে ভেজে নিন।
৩. একে একে সব উপকরণ দিন ও পরিমাণমতো পানি দিয়ে চাল সিদ্ধ করুন। হয়ে গেলে নামিয়ে পরিবেশন করুন।
করাচি
উপকরণ
বিফ আধা কেজি, নারিকেল বাটা সিকি কাপ, নারিকেল দুধ ১ কাপ, বাদাম বাটা ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা দেড় টেবিল চামচ, রসুন বাটা দেড় টেবিল চামচ, লাল মরিচের গুঁড়া ১ চা চামচ, পাপরিকা ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, তেল সিকি কাপ।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. তেল গরম করে তাতে মাংস দিয়ে ভেজে নিন।
২. মাংসের রং লালচে হলে তাতে পেঁয়াজ কুচি দিন। এরপর একে একে সব উপকরণ দিন। নারিকেল দুধ ছাড়া।
৩. অল্প আঁচে একটু পানি দিয়ে মাংস সিদ্ধ করুন।
৪. নামানোর আগে নারিকেল দুধ দিয়ে ৫ মিনিট চুলার বেশি আঁচে রেখে নামিয়ে নিন।
৫. এবার মাংস ঝোল থেকে আলাদা করে নিন। এখন সেই ঝোলে আরো পানি দিয়ে পোলাও রান্না করুন।
৬. পোলাও হয়ে গেলে তাতে মাংস দিয়ে দমে ১০ মিনিট রেখে নামিয়ে নিন।
গ্রিল
উপকরণ
মুরগি ২ কেজি, পোলাওয়ের চাল ১ কেজি, পেঁয়াজ বেরেস্তা ২ কাপ, টক দই আধা কাপ, আদা বাটা ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ২ টেবিল চামচ, লবণ ১ চা চামচ, দারুচিনি ২টি, লং ৬টি, এলাচি ২টি, জয়ফল গুঁড়া আধা চা চামচ, জয়ত্রি গুঁড়া সিকি চা চামচ, ঘি আধা কাপ, কাঁচা মরিচ ৪টি, আস্ত শাহি জিরা ১ চা চামচ, কেওড়া জল ১ চা চামচ, গোলাপজল ১ চামচ, ধনে গুঁড়া ২ চা চামচ, শুকনা মরিচের গুঁড়া ১ চা চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, গুঁড়া দুধ ১ কাপ, জাফরান সিকি চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন
১. আস্ত মুরগি ভালো করে ধুয়ে কাঁটা চামচ দিয়ে কেচে নিন।
২. পোলাওয়ের চাল, গুঁড়া দুধ, জাফরান ও ঘি বাদে সব উপকরণ একসঙ্গে ভালো করে মাখিয়ে নিন।
৩. মাখানো এই মিশ্রণ ৩ ঘণ্টা মেরিনেট করে রেখে দিন।
৪. পোলাওয়ের চাল সিদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে রাখুন। একটা হাঁড়িতে প্রথমে ঘি দিয়ে তারপর মেরিনেট করা মাংস দিয়ে ভেজে নিন। এরপর ১ কাপ পানি দিয়ে সিদ্ধ করুন।
৫. সিদ্ধ হলে তার ওপর আরেকটু বেরেস্তা, পুদিনা পাতা, কাঁচা মরিচ দিয়ে সিদ্ধ পোলাওয়ের চাল দিয়ে ঢেকে রাখুন।
৬. চাল ঢাকা হলে তার ওপর কয়েক জায়গায় চামচ দিয়ে গর্ত করে তাতে দুধে গোলানো জাফরান, কেওড়া ও গোলাপজল দিয়ে মাখানো মিশ্রণ ওই গর্তের মধ্যে একটু একটু করে ঢেলে দিন।
৭. ঢালা হলে পোলাওয়ের চালের ওপর আবারও বেরেস্তা দিন। এবার সুন্দর করে আটা দিয়ে বানানো ময়ান দিয়ে হাঁড়ির মুখ ঢাকুন। হাঁড়ির মুখের ওপর গরম পানির একটা হাঁড়ি বসান।
৮. এবার চুলার আঁচ প্রথম ৫ মিনিট বেশি আঁচে আর পরের ১০ মিনিট মাঝারি আঁচে রাখুন।
৯. ১৫ মিনিট পরে হাঁড়ির নিচে তাওয়া দিয়ে হালকা আঁচে ৪৫ মিনিট রান্না করে নামিয়ে নিন মুরগির গ্রিল বিরিয়ানি।
মিল্ক
উপকরণ
মুরগি ১ কেজি, পেঁয়াজ ১ কাপ (৪ ফালি করে কাটা)
গরম মসলা ২ চা চামচ, আস্ত জিরা ১ চা চামচ, খাবার রং সিকি চা চামচ, কাঁচা মরিচ ১২টি,ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ, আদা কুচি ১ টেবিল চামচ, রসুন কুচি ১ টেবিল চামচ, চাল ২ কেজি, ঘি-তেল আধা কাপ, লবণ ২ চা চামচ, বেরেস্তা ১ কাপ।
যেভাবে রান্না করবেন
১. চাল ছাড়া সব মসলা ও চিকেন একসঙ্গে মাখিয়ে তেল অথবা ঘিতে ভেজে ও কষিয়ে নিন। এরপর একটু বেশি পানি দিয়ে সিদ্ধ করুন। নরমাল মাংস রান্নায় ২ কাপ পরিমাণ পানি লাগলে এখানে লাগবে ৩ কাপ পরিমাণ।
২. চিকেন সিদ্ধ হলে সেটা উঠিয়ে সেই পানিতে চাল সিদ্ধ করুন।
৩. চাল সিদ্ধ হলে তাতে চিকেন মিশিয়ে বেরেস্তা দিয়ে ১০ মিনিট দমে রাখুন। গরম গরম পরিবেশন করুন।
আফগান
উপকরণ
বিফ বা মাটন ১ কেজি, পেঁয়াজ ১ কাপ (৪ টুকরা করে কাটা) গরম মসলা গুঁড়া ১ চা চামচ, আস্ত জিরা ১ চা চামচ, কাঁচা মরিচ ১২টি, ধনে গুঁড়া ২ চা চামচ, আদা কুচি ১ টেবিল চামচ, রসুন কুচি ১ টেবিল চামচ, চাল ২ কেজি, ঘি বা তেল আধা কাপ, লবণ ২ চা চামচ, বেরেস্তা ১ কাপ।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. চাল ছাড়া সব মসলা মাংসের সঙ্গে মাখিয়ে তেল বা ঘিতে ভেজে নিন।
২. তারপর সিদ্ধ করুন। একটু বেশি পানি দিয়ে সিদ্ধ করতে হবে। যদি নরমাল মাংস রান্নায় ২ কাপ পরিমাণ পানি লাগে, এখানে ৩ কাপ পরিমাণ পানি দিতে হবে।
৩. মাংস সিদ্ধ হলে সেটা উঠিয়ে সেই পানিতে চাল দিন।
৪. চাল সিদ্ধ হলে তাতে মাংস মিশিয়ে বেরেস্তা দিন। ১০ মিনিট দমে রেখে পরিবেশন করুন।

কাবাব স্পেশাল
বটি
উপকরণ
গরুর মাংস কিউব করে কাটা ২ কাপ, কাবাব মসলা ২ চা চামচ, লেবুর রস ২ চা চামচ, দই সিকি কাপ, ধনেপাতা কুচি ২ টেবিল চামচ, পুদিনা পাতা কুচি ২ টেবিল চামচ, মরিচ বাটা ১ চা চামচ, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, মাখন সিকি কাপ, লবণ ১ চা চামচ।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. মাংস ধুয়ে লেবুর রস দিয়ে ১০ মিনিট মাখিয়ে রেখে দিন।
২. এরপর সব উপকরণ একে একে মাংসের মধ্যে দিয়ে ৩ ঘণ্টা মেরিনেট করে রেখে দিন।
৩. একটি কাঠিতে মাংস গেঁথে ১৮০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় প্রি-হিট করা ওভেনে ৩০ মিনিট বেক করুন।
৪. ওভেন থেকে বের করে গরম গরম পরিবেশন করুন।
গোলা
উপকরণ
গরুর মাংসের কিমা ১ কাপ, পেঁয়াজ মিহি কুচি ২ টেবিল চামচ, পুদিনা পাতা কুচি ১ টেবিল চামচ, ধনেপাতা কুচি ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা আধা চা চামচ, রসুন বাটা আধা চা চামচ, টক দই ১ টেবিল চামচ, পনির আধা কাপ, কাবাব মসলা ১ টেবিল চামচ, লবণ ১ চা চামচ, ডিম ১টি, বিস্কুটের গুঁড়া আধা কাপ, তেল ১ কাপ।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. তেল, ডিম, বিস্কুটের গুঁড়া বাদে বাকি সব উপকরণ একসঙ্গে ভালো করে মাখিয়ে ৩০ মিনিট রেখে দিন।
২. মিশ্রণ থেকে পরিমাণমতো হাতে নিয়ে গোল বল বানান।
৩. এবার গর্ত করে এর ভেতর অল্প অল্প পনির ভরে মুখ বন্ধ করে আরো ১০ মিনিট রেখে দিন।
৪. তারপর ফেটানো ডিমে ডুবিয়ে, বিস্কুটের গুঁড়ায় গড়িয়ে ডুবোতেলে ভেজে পরিবেশন করুন।
নামকিন
উপকরণ
গরুর কিমা কিমা দেড় কাপ, পাউরুটি ৩ পিস, কাবাব মসলা দেড় টেবিল চামচ, পুদিনা পাতা ২ টেবিল চামচ, ধনেপাতা ২ টেবিল চামচ, কাঁচা মরিচ কুচি ২টি, পেঁয়াজ কুচি ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, দই ১ চা চামচ, লবণ ১ চা চামচ, তেল আধা কাপ।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. তেল ছাড়া সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে মেরিনেট করে ২ ঘণ্টা রেখে দিন।
২. এরপর গোল গোল টিক্কার মতো বানিয়ে নিন।
৩. কড়াইয়ে তেল গরম করে গোল টিক্কা লালচে করে ভেজে পরিবেশন করুন।
পারসিয়ান
উপকরণ
গরুর কিমা ১ কাপ, পাউরুটি ২ পিস, কাবাব মসলা ১ টেবিল চামচ, পুদিনা পাতা ২ টেবিল চামচ, ধনেপাতা ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা ২ চা চামচ, রসুন বাটা ২ চা চামচ, কাঁচা মরিচ কুচি ২টি, দই ১ চা চামচ, পেঁপে বাটা ১ চা চামচ, লবণ ১ চা চামচ, তেল আধা কাপ।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. কিমার সঙ্গে তেল ছাড়া সব উপকরণ একসঙ্গে ভালো করে মাখিয়ে ২ ঘণ্টা মেরিনেট করে রেখে দিন।
২. এবার মেরিনেট করা মাংস লোহার শিকে চেপে চেপে লাগিয়ে নিন।
৩. ফ্রাইপ্যানে অল্প তেলে বাদামি করে ভেজে পরিবেশন করুন।
বিহারি
উপকরণ
গরুর মাংস আধা কেজি, কাবাব মসলা ২ টেবিল চামচ,
সরিষার তেল সিকি কাপ, ধনে গুঁড়া ২ চা চামচ, লাল মরিচের গুঁড়া ১ চা চামচ,
আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, সাদা সরিষা বাটা সিকি কাপ, দই সিকি কাপ, লবণ ১ চা চামচ।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. মাংস পাতলা করে ফিতার মতো লম্বাটে করে কেটে নিন।
২. এবার সব উপকরণ একসঙ্গে মেখে সারা রাত মেরিনেট করে রেখে দিন।
৩. এখন শিকে গেঁথে কয়লার চুলায় সরিষার তেল ব্রাশ করে ১০ মিনিটের মতো ঝলসে নিয়ে পরিবেশন করুন।
চাপলি
উপকরণ
গরুর মাংসের কিমা ৭০০ গ্রাম, ডিম (বিট করা) ৩টি, বড় পেঁয়াজ কুচি ২টি, ধনেপাতা কুচি আধা কাপ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১ চা চামচ, তেল আধা কাপ, টমেটো কুচি ২টি, লবণ ১ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, গরম মসলা আধা চা চামচ, জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ, বেকিং পাউডার সিকি চামচ, চালের গুঁড়া ১ চা চামচ।
যেভাবে তৈরি করবেন
১. ডিম ছাড়া সব উপকরণ ভালোভাবে মাংসের কিমার সঙ্গে মাখিয়ে নিন।
২. এবার বিট করা ডিম মাংসের কিমায় মাখিয়ে নরম মিশ্রণ তৈরি করুন।
৩. মিশ্রণ হাতের তালুতে নিয়ে গোল-চ্যাপ্টা করে বানিয়ে রাখুন।
৪. এবার ফ্রাইপ্যানে তেল গরম করে ভেজে নিন।
৫. পরিবেশনের আগে লেবুর রস ছিটিয়ে পরিবেশন করুন।

খাসি কিংবা গরুর শাহী কোরমা

গরু কিংবা খাসির মাংসের শাহী কোরমা রেসিপি

উপকরণ

✿ আদা বাটা ১ টেবিল চামচ

✿ রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ

✿ জিরাবাটা ১চা চামচ

✿ দারুচিনি ২ টি

✿ এলাচ ৪ টি

✿ খাসি বা গরুর মাংস ১ কেজি

✿ পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ

✿পেঁয়াজ বাটা ৩ টেবিল চামচ

✿ এলাচ ও দারুচিনি কয়েক টুকরো

✿ গরম মশলা গুঁড়ো ১/২ চা চামচ

✿ টক দই ১/২ কাপ

✿ কাঁচা মরিচ বাটা ২ চা চামচ (ইচ্ছা)

✿ পোস্ত দানা বাটা ২ চা চামচ

✿ কিসমিস ১/৪ কাপ

✿ জয়েত্রী ,জায়ফল বাটা মিলে ২ চা চামচ ( মিহি করে বেটে নিতে হবে )

✿ লেবুর রস ১ টেবিল চামচ

✿ পেঁয়াজ বেরেস্তা হাফ কাপ

✿ জর্দার রঙ সামান্য

✿কেওড়া পানি সামান্য

✿ তেল হাফ কাপ

✿ ঘি ১ টেবিল চামচ

✿ লবণ স্বাদমতো

প্রস্তুত প্রণালি

প্রথমে মাংসকে পেঁয়াজ বেরেস্তার অর্ধেক, দই ও আদা রসুন বাটা দিয়ে মাখিয়ে ২/৩ ঘণ্টা রাখুন । এবার ঘি ও তেলের মাঝে এলাচ ও দারুচিনি দিন। পেঁয়াজ কুচি দিয়ে লাল লাল করে ভেজে নিন। এতে যাবতীয় বাটা ও গুঁড়ো মশলা দিয়ে দিন। লবণ ও সামান্য পানি দিয়ে কষান।

এবার কষানো হয়ে মশলা তেলের ওপরে উঠে এলে মাংস দিয়ে দিন এবং ভালো করে কষান। ঢাকনা নিয়ে মাঝারি আঁচে কষাবেন। তারপর কষানো হলে অল্প পানি ও কিসমিস দিয়ে ঢেকে রান্না করুন। মাখা মাখা হয়ে এলে জর্দার রঙ সামান্য দুধ দিয়ে গুলিয়ে দিয়ে দিন। কেওড়া পানি দিন। এবার ২০ মিনিট দমে রাখুন। মাংস একদম নরম হলে নামিয়ে নিন।

গোশতের নানা আয়োজন

কোরবানি ঈদে রাঁধুনিদের মনোযোগের কেন্দ্রে বরাবরই থাকে গোশতের নানা আয়োজন। আপন পরিজনের পাশাপাশি অতিথি আপ্যায়নে গোশতে আয়োজনে একটু ভিন্নতা আনতে সচেষ্ট থাকেন তারা। আর তাদের আগ্রহের কথা মাথায় রেখে সেজেছে নানারকম রেসিপি নিয়ে।
আফগানি পোলাও
উপকরণ : মাংস ১ কেজি, টমেটো ৩টি (ব্লেন্ড করা), পোলাওয়ের চাল ৩ কাপ, রসুন ৪-৫ কোয়া কুঁচি, পেঁয়াজ ৩টি (কুঁচি করা), আদা ১ চা চামচ (কুঁচি করা), ছোট এলাচ ৮টি, গোটা ধনে ১ চা চামচ, জিরা ১ চা চামট, লবঙ্গ ১/২ চা চামচ, লাল মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, দারুচিনি ৩টি ছোট টুকরো, কাঁচা মরিচ ২-৩টি (কুঁচি করা), গরম পানি ৭ কাপ, সাদা তেল ২ টেবিল চামচ, ঘি ২ টেবিল চামচ, কিশমিশ ১৫-২০টি, গাজর ১/৪ কাপ জুলিয়ান কাট।
প্রণালি : প্রথমে মাংস ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন আদা, রসুন, গোটা গরম মসলা, পেঁয়াজ, ধনে, জিরা ও স্বাদমতো লবণ দিয়ে ৭ কাপ পানিতে ৩০ মিনিট ধরে মাংস সিদ্ধ করে নিন। এবার মাংসের টুকরোগুলো আলাদা করে রেখে দিন। একটি পাত্রে তেল গরম করে তাতে পেঁয়াজ দিয়ে সোনালি করে ভাজুন। এতে টমোটো কাঁচা মরিচ, লাল মরিচ গুঁড়া দিয়ে ভালো করে কষান। মসলা কষানো হয়ে এলে তাতে মাংসের টুকরোগুলো যোগ করুন। এর মধ্যে আগে থেকে বানিয়ে রাখা চিকেন স্টক ভালো করে ছেঁকে ঢেলে দিন। এতে চাল মিশিয়ে ফুটতে দিন। যতক্ষণ না চাল সমস্ত স্টক শুষে নিয়ে সিদ্ধ হয়ে যাচ্ছে। এতে কিশমিশ ছড়িয়ে আরও ২-৩ মিনিট হালকা আঁচে ঢাকনা দিয়ে রান্না করুন। অল্প ঘিয়ে গাজর ভেজে নিন নরম হওয়া পর্যন্ত। পোলাওয়ের উপর ছড়িয়ে দিন। তৈরি হয়ে গেল আফগানি পোলাও।
বিফ পাস্তা ইন হোয়াইট সস
উপকরণ : বিফ ১৫০ গ্রাম, পাস্তা ২৫০ গ্রাম, রসুন কুচি ১ চা চামচ, সয়া সস ২ চা চামচ, ভিনেগার ১ চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, লাল হলুদ বেল পেপার ১/৪ কাপ। হোয়াইট সসের জন্য : মাখন ২ চা চামচ, ময়দা ২ চা চামচ, তরল দুধ ১ কাপ, সাদা গোলমরিচ গুঁড়া ১/৪ চা চামচ, লবণ ১/৪ চা চামচ।
প্রণালি : বিফ পাতলা স্লাইস করে কেটে নিন। সয়াসস ও ভিনেগারে মেরিনেট করে রেখে দিন ২ ঘণ্টা। বেল পেপার স্লাইস করে নিন। পাস্তা সিদ্ধ করে পানি ছেঁকে নিন। প্যানে মাখন গরম করে ময়দা ব্রাউন করে ভাজুন। এতে দুধ দিয়ে অনবরত নাড়তে থাকুন। ফুটে ঘন হয়ে এলে লবণ, গোল মরিচ গুঁড়া দিয়ে নামিয়ে নিন। এবার অন্য প্যানে মাখন গলান। রসুন কুচি দিন। মেরিনেটেড বিফ দিন। ভাজা ভাজা হলে এতে বেল পেপার কুচি ও পাস্তা দিন। তৈরি করা হোয়াইট সস দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিন লেটুস টমেটো দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার বিফ পাস্তা ইন হোয়াইট সস।
কালারফুল চিলি বি
উপকরণ : বিফ ৫০০ গ্রাম, লাল বেল পেপার ১৫০ গ্রাম, হলুদ বেল পেপার ১৫০ গ্রাম, সয়াসস ২ চা চামচ, ভিনেগার ১ চা চামচ, উস্টার সস ২ চা চামচ, টমেটো সস ১/২ কাপ, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, লাল মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, লবণ ১ চা চামচ, চিনি স্বাদমতো, গোল মরিচ গুঁড়া ১/২ চা চামচ, সাদা তেল ৩ চা চামচ।
প্রণালি :বিফ জুলিয়ান কাট করে কেটে নিন। এতে সয়াসস ও ভিনেগার দিয়ে মেরিনেট করুন। বেল পেপারগুলো জুলিয়ান কাট করুন। প্যানে তেল গরম করে এতে বিফ ও আদা রসুন বাটা দিয়ে কিছুক্ষণ ভাজুন। পানি বের হলে ঢেকে দিন। ৫ মিনিট পর পানি শুকালে বেল পেপার ও বাকি উপকরণ দিন। সামান্য পানি দিন। আরও ৫ মিনিট অল্প আঁচে রাখুন। গরম গরম সাজিয়ে পরিবেশন করুন কালারফুল চিলি বিফ।
কোল্ড বিফ সালাদ উইথ রাইস নুডলস
উপকরণ : রাইস নুডলস ১০০ গ্রাম, বিফ স্লাইস ১০০ গ্রাম, সয়াসস ১ চা চামচ, উস্টার সস ১ চা চামচ, জুকিনি কয়েক পিস, চাইনিজ ক্যাবেজ ১/৪ কাপ, রসুন কুচি ২ কোয়া, বেল পেপার ১/৪ কাপ, গাজর ১/৪ কাপ, শসা ১/৪ কাপ, সাদা গোল মরিচ গুঁড়া ১/৪ চা চামচ, লেবুর রস ১ চা চামচ, লেটুস পাতা কয়েকটা, লবণ স্বাদমতো, মাখন ১ চা চামচ, রাইস ভিনেগার ২ চা চামচ, লাল মরিচ কুচি ২ চা চামচ, চিনি ১ চা চামচ, সাদা তিল ১ চা চামচ (রোস্টেড)।
প্রণালি : রাইস নুডলস সিদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে আলাদা করে রাখুন। প্যানে মাখন,রসুন কুচি দিয়ে সামান্য ভেজে বিফ স্লাইস দিন। নেড়েচেড়ে সয়াসস উস্টার সস দিয়ে ঢেকে দিন। এতে জুকিনি, চাইনিজ ক্যাবেজ বেল পেপার ও গাজর দিন। কয়েক মিনিট নেড়েচেড়ে নামিয়ে নিন। বাকি উপকরণ টস করে মিশিয়ে নিন। উপরে রোস্টেড সাদা তিল ছড়িয়ে দিন। ঠাণ্ডা পরিবেশন করুন।
বিফ তন্দুরি কাবাব
উপকরণ : গরুর মাংস ১ কেজি (কিমা), আদার রস ১ টেবিল চামচ, রসুনের রস ১ টেবিল চামচ, জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ, তন্দুরি মসলা ২ টেবিল চামচ, গোলমরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, চিনি ১ চা চামচ, কাশ্মিরি লাল মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, সিরকা সিকি কাপ, টক দই আধা কাপ, পেঁয়াজ বাটা সিকি কাপ, গরম মসলার গুঁড়া আধা চা চামচ, সরিষার তেল আধা কাপ, ঘি ২ টেবিল চামচ, লবণ পরিমাণমতো, লেবুর রস ২ চা চামচ, কাঠি ১২-১৫টি।
প্রণালি : উপরের সব উপকরণ একসঙ্গে মেখে ৫-৬ ঘণ্টা মেরিনেট করুন। এবার কাঠিতে গেঁথে ওভেনের ট্রে ঘি ব্রাশ করে প্রিহিট ওভেনে ২০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেটেডে ৪০-৪৫ মিনিট রান্না করুন। মাঝে একবার ঘি ও মসলার মিশ্রণ ব্রাশ করে দিন। একপিঠ হলে উল্টে দিবেন। সিদ্ধ ও পোড়া পোড়া হলে নামিয়ে নিন। এবার ১টা ছোট বাটিতে কাঠ কয়লার আগুন ধরিয়ে ট্রের মাঝে রেখে ফয়েল পেপারে ঢেকে দিন। কিছুক্ষণ পরে ফয়েল পেপার খুলে পরিবেশন ডিশে সাজিয়ে নিন।
শিক কাবাব
উপকরণ : গরুর মাংস আধা কেজি (পাতলা করে কাটা), আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ২ চা চামচ, টক দই আধা কাপ, পেঁপে বাটা ১ টেবিল চামচ, কাবাব মসলা ২ চা চামচ, সাদা সরিষা বাটা ২ চা চামচ, শুকনা মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, গোলমরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, পেঁয়াজ বাটা ৩ টেবিল চামচ, চিনি আধা চা চামচ, ঘি ১ টেবিল চামচ, সরিষার তেল সিকি কাপ, লবণ পরিমাণমতো, পোস্তবাটা ২ চা চামচ, বেসন ৩ টেবিল চামচ।
প্রণালি : ঘি বাদে সব উপকরণ একসঙ্গে মেখে ৩-৪ ঘণ্টা মেরিনেট করুন। এবার শিকে গেঁথে কাঠকয়লার আগুনে ঝলসে নিন। মাঝে একবার ঘি ব্রাশ করে নিন। হয়ে গেলে পরিবেশন পাত্রে রেখে রায়তা ও নান রুটির সঙ্গে পরিবেশেন করুন।

বাসায় বারবিকিউ

বিভিন্ন সময় বারবিকিউ পার্টিতে গিয়েছেন অনেকেই। দামি রেস্টুরেন্টে গিয়ে বন্ধুরা খাওয়ার আনন্দে ডুবে যেতে পারেন। তবে নিজের বাড়িতেই পরিবার আর বন্ধুদের নিয়ে বারবিকিউ পিকনিক হলে মন্দ কী। আর প্রায়ই বন্ধুরা মিলে এমন আয়োজন আনন্দ ও শিহরণে দোলাবে সবাইকে।
তার আগে বারবিকিউ চিকেনের রেসিপি জানা দরকার অবশ্যই।
আসুন বন্ধুরা জেনে নেই খুব সহজ এই রেসিপি।
উপকরণ: মুরগি ২টি, আদাবাটা দেড় চা-চামচ, রসুনবাটা দেড় চা-চামচ, লাল মরিচের গুঁড়া দেড় চা-চামচ, টক দই আধা কাপ, সরিষা ভেজে গুঁড়া করা দেড় চা-চামচ, গোলমরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ, জাফরান রং সামান্য (ইচ্ছা), জিরার গুঁড়া আধা চা চামচ, অয়েস্টার সস আড়াই টেবিল চামচ, টমেটোর সস আধা কাপ, সরিষার তেল আধা কাপ, জায়ফল, জয়ত্রী, লবঙ্গ, এলাচসহ সব ধরনের গরম মসলা ভেজে গুঁড়ো করা দেড় চা-চামচ, লবণ, চিনি ও বারবিকিউ সস স্বাদ মতো।
এছাড়া লাগবে শিক, চুলা ও কয়লা। চুলায় প্রথমে কয়লাগুলো বিছিয়ে সামান্য কেরোসিন ছিটিয়ে আগুন ধরিয়ে নিন।
প্রণালী: মুরগি ৪ টুকরা করে কেটে, ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। ছুরি দিয়ে একটু চিরে নিন। বারবিকিউ সস বাদে অন্য সব উপকরণ একত্রে মিশিয়ে আট ঘণ্টা মেরিনেট করে রাখুন। দুই ঘণ্টা বাইরে রেখে বাকি ছয় ঘণ্টা ফ্রিজে রাখুন। শিকগুলো ধুয়ে তাতে তেল ব্রাশ করে মাংস গাঁথুন। শিকগুলো চুলায় বসান। শিকগুলো ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে দেবেন ও বারবিকিউ সস দিয়ে একটু পরপর ব্রাশ করে দিন।
যখন মুরগির টুকরোগুলো একটু পোড়া পোড়া হবে, তখন শিকগুলো চুলা থেকে বের করে সাবধানে মাংসগুলো পাত্রে সাজিয়ে নিন। সালাদের সঙ্গে পরোটা বা নান দিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

গরুর মাংসের কালো ভুনা

উপকরণ: এক কেজি হাড় ছাড়া গরুর মাংস, মরিচ গুঁড়া (ঝাল বুঝে) হাফ চামচ বা তার বেশি, হলুদ গুঁড়া এক চামচ, জিরা গুঁড়া হাফ চামচ, ধনে গুঁড়া হাফ চামচ, এক চামচ পেঁয়াজ বাটা, দুই চামচ রসুন বাটা, হাফ চামচ আদা বাটা, গরম মসলা (সামান্য দারুচিনি, কয়েকটা এলাচি), হাফ কাপ পেঁয়াজ কুঁচি (এটা পরে ব্যবহার করা হবে), কয়েকটা কাঁচা মরিচ, পরিমাণ মতো লবণ, তেল (সরিষার তেল হলে আরও ভালো হয়)।
প্রণালি: মাংস কেটে ধুয়ে পেঁয়াজ কুঁচি ও কাঁচা মরিচ রেখে সব মসলা ও লবণ তেল দিয়ে ভালো করে মাখিয়ে নিতে হবে। এবার মাখানো মাংস হালকা আঁচে চুলায় তুলে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর দুই কাপ পানি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে দিন। মাংস সেদ্ধ হতে সময় লাগবে। যদি মাংস না নরম হলে তবে আবারও গরম পানি দিয়ে ঝোল বাড়িয়ে সেদ্ধ করতে পারেন। মাংস নরম হবে এবং ঝোল শুকিয়ে যাবে। অন্য একটা কড়াইতে তেল গরম করে পেঁয়াজ কুঁচি ও কয়েকটা কাঁচা মরিচ ভাঁজতে থাকুন, সোনালি রং নেমে আসবে। এবার সেই কড়াইতে গরুর মাংস দিয়ে ভাজতে থাকুন। হালকা আঁচে। খুন্তি দিয়ে ভালো করে নাড়ুন। পুড়ে যাবে না কিন্তু ভাজিতে রং কালো হতে থাকবে। এই সময় চুলা ছেড়ে যাবেন না। কাছেই থাকুন এবং নাড়ুন। ফাইনাল লবণ দেখুন। লাগলে ছিটিয়ে দিন, না লাগলে ওকে বলুন।

Scroll To Top