ছয়তলা ভবন শনিবার হঠাৎ হেলে পড়েছে

প্রকাশ:| শনিবার, ৮ জুন , ২০১৩ সময় ০৫:৫১ অপরাহ্ণ

ctg-building-tilted_4833_0চট্টগ্রাম নগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন পশ্চিম ষোলশহরের শ্যামলী আবাসিক এলাকায় একটি ছয়তলা ভবন শনিবার হঠাৎ হেলে পড়েছে।

 এ ঘটনায় ওই ভবনের আতংকিত বাসিন্দাদের নিরাপদে অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছে পুলিশ। পাশাপাশি চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (চউক) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আশরাফুল আমিনের নির্দেশে ভবনটি সিলগালা করা হয়েছে।
পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার সমকালকে বলেন, মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী মাহাবুবুর রহমানের মালিকানাধীন ‘কোহিনূর ম্যানসন’ নামের ছয়তলা ভবনটিতে ১২টি ফ্ল্যাট রয়েছে। কোনো ভূমিকম্প ছাড়াই শনিবার দুপুরের পর হঠাৎ ভবনটি হেলে পড়ে বলে আমরা জানতে পারি।
তিনি বলেন, “সম্প্রতি ঢাকার সাভারে ভবন ধসের ঘটনায় এমনিতেই মানুষ এখন আতংকগ্রস্ত। এরই মধ্যে ছয়তলা এই ভবনটি হেলে পড়ায় ভবনের বাসিন্দাদের আতংক আরও বেড়ে যায়। এ অবস্থায় তাদের নিরাপদে অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছি আমরা।”
এছাড়া ওই ভবনের গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষকে পুলিশের পক্ষ থেকে অবহিত করা হয়েছে বলেও জানান জানান ওসি।
চউক এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আশরাফুল আমিন সমকালকে বলেন, “ছয়তলা ভবনটি ক্রমশ হেলে পড়ছে। যে কোনো সময় এটি ধসে পড়তে পারে। তাই ওই ভবনের লোকজনকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে ভবনটি সিলগালা করে দিয়েছি।”
দুর্বল ফাউন্ডেশনের কারণেই ভবন হেলে পড়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে- উল্লেখ করে তিনি বলেন, “ভবনটি পাশের পাঁচতলা ভবনের সঙ্গে লেগে গেছে। এ কারণে ওই পাঁচতলা ভবনের লোকজনও এখন নিরাপদ নয়। এজন্য তাদেরকে অন্যত্র সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছি।”
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জানান, ভবনটি নির্মাণে চউকের কাছ থেকে অনুমতি নেয়া হয়েছিল কিনা কিংবা চউকের কাছ থেকে প্ল্যান পাশ করার পর সেই প্ল্যান অনুযায়ী ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কাগজপত্র দেখে এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।