হারানো স্বজনদের খুঁজছে কুতুবদিয়া পাড়া গ্রাম

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর , ২০১৬ সময় ১১:৩৫ অপরাহ্ণ

৩ নভেম্বর সাগরে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন কক্সবাজার শহরের কুতুবদিয়া পাড়া গ্রামের হারুণ। সঙ্গী ছিল এফবি সাজ্জাদের আরও ২৮ জেলে। রওয়ানা দেওয়ার দুদিন পরেই প্রাকৃতিক দূর্যোগের কবলে পড়ে তাদের বহনকারী নৌকাটি। তখন থেকেই হসিদ নেই ২৬ বছর বয়সী হারুণ ও তার সঙ্গীদের। আর ফেরেননি তারা।

হারুণরা কোথায় আছেন? কেমন আছেন-এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে তাদের কারো বৃদ্ধ বাবা-মা কিংবা কারো ভাই বোন বা প্রিয়তমা স্ত্রী ঘুরছেন প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে । কিন্তু কে দেবে সেই উত্তর। স্বয়ং কেউই যে জানে না তাদের পরিণতি।

খুরশিদা আকতার। নিখোঁজ হারুণের স্ত্রী। স্বামীর পথ চেয়ে দূর সাগরের পানে তাকিয়ে থাকতে থাকতে ঝাপসা হয়েছে দৃষ্টি, শোকে কাঁদতে কাঁদতে শুকিয়েছে জল।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে নিজ ঘরের বারান্দায় দাঁড়িয়ে স্বামী শোকে কাতর এই গৃহবধূ  জানান, সংসারে বৃদ্ধ বাবা-মা। একমাত্র উপার্জনকারী স্বামীও নিখোঁজ। তার ওপরে তিনি অন্ত:সত্বা। কিন্তু তার প্রিয়তম স্বামী বেঁচ আছেন কিনা মরে গেছেন তাও তিনি জানেন না। কি করবেন, কোথায় যাবেন, কোথায় গেলে তার স্বামীর সন্ধান মিলেবে এর উত্তর খুজছেন তিনি।

শুধু এক হারুনের পরিবার নয় প্রিয়জনের পথ চেয়ে বসে আছে কক্সবাজার পৌরসভার কুতুবদিয়া পাড়া গ্রামের ৫২ টি পরিবার। এসব পরিবারের সকলের জিজ্ঞাসা তাদের প্রিয়জন বেঁচে আছেন তো? প্রিয়মুখের জন্য তাদের আর্তনাদে বিষাদের ছায়া নেমেছে পুরো গ্রামে। ভোর রাতে ওইসব পরিবার আহাজারিতেই জেগে উঠছে প্রতিবেশীরা।

কক্সবাজার পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আকতার কামাল জানান, ২২ দিনের সরকারী নিষেধাজ্ঞা শেষে ৩ নভেম্বর কক্সবাজার থেকে শতাধিক মাছ ধরার নৌকা সাগরে যায়। এরই মধ্যে সৃষ্ট প্রাকৃতিক দূর্যোগে সাগরে নিখোঁজ হয় ৫ টি ট্রলার। তার মধ্যে ২ টি নৌকা ফিরে আসলেও এখনো ৩ টি ট্রলারের হদিস মিলেনি। এর মধ্যে নিখোঁজ এফবি সাজ্জাদ, এফবি সুমী আকতার রেশমী ও এফবি জায়েদ উদ্দিনে কুতুবদিয়া পাড়ার ৫২ জন মাঝিমাল্লা রয়েছে। যাদের সন্ধান এখনো মিলেনি।

তিনি আরো জানান, ৩ টি মাছ ধরার নৌকা ৭৪ জন জেলে নিয়ে নিখোঁজ রয়েছেন। নৌকা মালিকরা এ ব্যাপারে সদর থানায় নিখোঁজ ডায়েরি ও জেলা প্রশাসকের কাছে ৩ টি আলাদা তালিকা দিয়েছেন।

তালিকামতে, শহরের ২ নম্বর ওয়ার্ডের ৬ নম্বর ঘাট এলাকার বাসিন্দা মো. কামাল হোসাইনের মালিকানাধীন এফবি সাজ্জাদের ২৯ জন মাঝি-মাল্লা নিখোঁজ রয়েছেন। এদের মধ্যে ১৯ জনই কক্সবাজার পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কুতুবদিয়া পাড়ার বাসিন্দা। তারা হলেন, শামসুল আলম বহদ্দারের ছেলে নুরু ছৈয়দ মাঝি, রশিদ আহমদের ছেলে ছৈয়দ ও তার সহোদর আব্দুস শুক্কুর, আবুল মুছার ছেলে মুফিজ, আবদুল মালেকের ছেলে মো. গুন্নু, ছালামত উল্লাহ’র ছেলে আজম, সৈয়দ নুরের ছেলে দুদু মিয়া, ছালেহ আহমদের ছেলে মিন্টু, আনোয়ার হোসেনের ছেলে সেলিম, জকির আলমের ছেলে এরশাদ, জামাল হোছেনের ছেলে মোহাম্মদ নুর, আবুল হোসেনের ছেলে মুসলিম উদ্দিন, মৃত আবুল খায়েরের ছেলে শাহাদাতুল করিম, আবুল কালামের ছেলে সোনা মিয়া, শামসুল আলমের ছেলে হারুন, মো. হাসানের ছেলে মো. ইসমাঈল, নুরুচ্ছফার ছেলে ইউনুছ, মো. হোসেনের ছেলে আজিম (২) এবং দেলোয়ার।

শহরের এন্ডারসন রোড়ের অধিবাসী আবুল হোসেনের মালিকানাধীন এফবি সুমি আকতার রেশমীর ২৬ জন জেলে এখনো নিখোজ রয়েছে। তাদের মধ্যে ১৯ জন মাঝি মাল্লা পরিবার সহ বসবাস করেন শহরের কুতুবদিয়া পাড়ায়। তারা হলেন, নিবাসী মৃত ইলিয়াছের ছেলে মিনহাজ উদ্দিন (মাঝি), মৃত গোলাম মাবুদের ছেলে মো. মানিক, মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে আলী হোসেন, আকবর আলীর ছেলে নুর বাদশা, ছৈয়দ আহমদের ছেলে আতা এলাহী, জাফর আহমদের ছেলে আনোয়ার, শাহাজাহানের ছেলে আমির হোসেন, মৃত মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে মাহাম্মদ উল্লাহ, মো. কালু মিয়ার ছেলে মো. ইলিয়াছ, মৃত সুলতানের ছেলে নুরুল ইসলাম, মাহাম্মদুল করিমের ছেলে মো. হাছন, আবুল কাসেমের ছেলে আবদুল আমিন, নুর মোহাম্মদের ছেলে নুরুল আলম, আবু ছৈয়দের ছেলে মুজিবুর রহমান, মো. শাহাজানের ছেলে এরফান, নুরুচ্ছফার ছেলে নুরুজ্জামান, মো. ইউছুপের ছেলে মো. ছিদ্দিক, মো. হানিফের ছেলে মো. হোসেন, আলী আহমদের ছেলে মো. সাইফুল।

শহরের ১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. ওমর ফারুক মাঝির মালিকনাধীন এফবি জায়েদ উদ্দিন ৩ নভেম্বর থেকে ১৯ জন মাঝিমাল্লা নিয়ে নিখোঁজ রয়েছেন। এদের মধ্যে ১৪ জনই কুতুবদিয়া পাড়ার বাসিন্দা । তারা হলেন, মৃত অলি আহমদের ছেলে মোক্তার মাঝি, হাজী জামাল উদ্দিনের ছেলে মো. রুবেল, জামাল উদ্দিনের ছেলে মো. আবু হানিফ, আব্দুর রহমানের ছেলে আব্দুর রহিম, মোজাহের মিয়ার ছেলে শফি আলম, ফেরদৌসের ছেলে মো. লেডু, জাবেরের ছেলে সিরাজ, বাদশা মিয়ার ছেলে ছাদেক, গোলালুর রহমানের ছেলে আকতার, মহিউদ্দিনের ছেলে সাদ্দাম হোসেন, ওমর আলীর ছেলে জকরিয়া, মো, হোসেনের ছেলে রুহুল আমিন, আবুল হোসেনের ছেলে মো. ইউনুছ এবং কবির ।

এ বিষয়ে কক্সবাজার ফিশিং বোট মালিক সমিতির সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, প্রাকৃতিক দূযোর্গের কবলে পড়ে কক্সবাজার জেলার শতাধিক জেলা এখনো নিখোঁজ রয়েছেন। তিনি প্রশাসনকে সবিনয় অনুরোধ জানিয়েছেন নিখোঁজদের সন্ধান নিতে।

কক্সবাজার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা অমিতোষ সেন বাংলানিউজকে জানান, নিখোঁজ ব্যক্তিদের কোন তালিকা না থাকলেও তাদের পক্ষ থেকে মৎস্য অধিদপ্তরে হদিস বিহীন ট্রলারের নাম উল্লেখ করে তালিকা পাঠানো হয়েছে। তাদের সন্ধানের জন্য নৌ বাহিনীকে অভিযান চালাতেও অনুরোধ করা হয়েছিল।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন জানান, নিখোঁজদের সন্ধানে প্রশাসন সর্বাত্মক চেষ্টা করছে।