‘দেশ-জাতি-চেতনার আদর্শের নাম শেখ মুজিব’

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৭ মার্চ , ২০১৬ সময় ০৮:৫৮ অপরাহ্ণ

প্রবাসী মন্ত্রীপ্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একটি নাম নয়। একটি দেশ, জাতি এবং তার সঙ্গে মিশে থাকা সব চেতনা ও আদর্শের নাম শেখ মুজিব। বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতি যতদিন টিকে থাকবে ততদিন বেঁচে থাকবে শেখ মুজিবের নাম।

বৃহস্পতিবার নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট চট্টগ্রামের (টিআইসি) মুক্তমঞ্চে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলা শাখা আয়োজিত তিন দিনব্যাপী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মজয়ন্তী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে ‘চেতনার সৈকতে ভোরের নোঙর বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু অন্তত যদি আরও দশটি বছর বেঁচে থাকতেন, তাহলে এতদঞ্চলের মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, থাই্যলান্ডের চেয়ে বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা আজ কোনো ক্ষেত্রেই কম হতো না। পিতৃহত্যার কলঙ্কের দায়ভার নিয়ে একটা জাতির ভাগ্যে যা হওয়ার আজ বাংলাদেশের অবস্থা তাই হয়েছে। রাজনীতি, সমাজনীতি, অর্থনীতি, শিক্ষানীতি এবং রাষ্ট্রীয় দর্শন ও আদর্শ সব কিছু যেন খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে। কিন্তু এত ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও তার মূল্যবোধ হারিয়ে যেতে পারে না। তাই বাংলাদেশের সংগ্রামী মানুষ আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে। দীর্ঘদিন পরে হলেও বতর্মান সরকার বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করছে।

মন্ত্রী বলেন, পঁচাত্তরের পর মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশকে যারা আবার পাকিস্তান বানানোর অপচেষ্টা করছে তারা আজ মানুষের ঘৃণার পাত্রে পরিণত হয়েছে। এই বিশ্বাসঘাতক পাপীদের অন্যতম অংশ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হচ্ছে, ফাঁসিতে ঝুলছে। এই গোষ্ঠীর বড় শরিক আজ রাজনৈতিকভাবে বিপন্ন ও দেউলিয়া। দেশের নতুন প্রজন্ম মুক্তিসংগ্রামের দীর্ঘ ইতিহাস এবং মুক্তিযুদ্ধের গৌরবগাথার প্রতি এখন প্রবল আগ্রহ সহকারে ঝুঁকছে। তারা জানতে চায় এত বড় কঠিন ও দীর্ঘ সংগ্রামের মহান নেতা কে ছিলেন, কার হুকুমে মানুষ অকাতরে প্রাণ দিয়ে মাত্র নয় মাসের যুদ্ধে বাংলাদেশকে স্বাধীন করল। তারা আরও জানতে চায় কী সেই দর্শন, আদর্শ ও চেতনা, যা সমগ্র বাঙালি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিল এবং কীভাবে তৎসময়ে সাড়ে সাত কোটি মানুষের গহিনে তা প্রোথিত হয়েছিল। জানতে চায় সেই দীর্ঘ সংগ্রামের প্রতিটি গৌরবগাথার উজ্জ্বল কাহিনি।

বঙ্গবন্ধুর জন্মজয়ন্তী উদযাপন পরিষদের সদস্যসচিব শেখ মুজিব আহমদের সভাপতিত্বে ও জোটের সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলমের সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নঈম উদ্দিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চের সম্পাদক সৈয়দ উমর ফারুক, নগর আওয়ামী লীগ নেতা জামশেদুল আলম চৌধুরী, জামাল খান ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোরশেদুল আলম, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, বঙ্গবন্ধু প্রকৌশলী পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক রফিকুল ইসলাম মানিক, সংস্কৃতিসেবী প্রকৌশলী সুদীপ বশাক, বঙ্গবন্ধু জন্মজয়ন্তী উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক সুমন দেবনাথ, প্রধান সমন্বয়কারী লিটন রায় চৌধুরী, শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুর রশিদ লোকমান, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা পংকজ রায়, নগর যুবলীগের সদস্য তানভীর আহমেদ রিংকু, শহিদুর রহমান শহিদ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক ইয়াসির আরাফাত।

অনুষ্ঠান শুরুতে দলীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন সৃজামি সাংস্কৃতিক অঙ্গন (পরিচালনা: সুজিত চক্রবর্তী), একক সঙ্গীতানুষ্ঠান পরিবেশন করেন নব প্রজন্মের বেতার ও টেলিভিশন শিল্পীরা। আলোচনা সভা শেষে দলীয় নৃত্য পরিবেশন করেন নিত্য নিকেতন (পরিচালনা: রিয়া দাশ চায়না), বৃন্দ আবৃত্তি পরিবেশন করে বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদ (পরিচালনা: অঞ্চল চৌধুরী)।