পেকুয়ায় চেয়ারম্যানের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশ:| বুধবার, ৩ মে , ২০১৭ সময় ১০:৪২ অপরাহ্ণ

পেকুয়া প্রতিনিধি

কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ছৈয়দ নুরের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (৩মে) বিকেল চারটার দিকে এবিসি আঞ্চলিক মহাসড়কের পেকুয়া উপজেলা পরিষদের সামনে এ সব কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

গতকাল বুধবার দুপুর দুইটা থেকে রাজাখালীর বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে খ- খ- মিছিল নিয়ে উপজেলা পরিষদের সামনে সমাবেত হতে থাকে। বিকেল চারটার দিকে এবিসি মহাসড়কের পেকুয়া চৌমুহনী থেকে সিকদারপাড়া পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে কয়েক হাজার নারী-পুরুষেরা চেয়ারম্যান ছৈয়দ নুরের মুক্তির দাবি সম্বলিত ব্যানার-পেষ্টুন নিয়ে দাঁড়িয়ে যান। একটি পেষ্টুনে সবার চোখ আটকে গেছে, ‘আমার বাবা নির্দোষ, আমার বাবাকে মুক্তি দিন।’ আরেকটি ব্যানারে লেখা ‘কথিত অস্ত্র উদ্ধার নাটক রাজাখালীর জনগন বিশ্বাস করে না।’ আরেকটি পেষ্টুন নিয়ে দাঁড়িয়েছেন রহিমা বেগম নামের এক নারী। তাঁর পেষ্টুনে লেখা ‘র‌্যাবের সাজানো নাটকে জড়িতদের বিচার চাই।’

মানববন্ধন শেষে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেন পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহনেওয়াজ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম, উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ছেনুয়ারা বেগম, স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতা এসএম সাহাদাত হোসেন, রাজাখালী ইউপি সদস্য বাদশা মিয়া, আজম উদ্দিন, ছৈয়দ নুরের ভাই জাহাঙ্গীর আলম, আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

প্রতিবাদ সভায় ছৈয়দ নুরের ভাই জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমার ভাই নির্দোষ। সে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার আগ থেকে এলাকার সাধারণ জনগণের সেবাই নিয়োজিত ছিলেন। এর আগের বার তিনি অল্প ভোটের ব্যবধানে হেরে গেলেও গত ইউপি নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেন। তারপর থেকে একটি চক্র তাকে ফাঁসাতে বিভিন্ন কৌশলের আশ্রয় নেয়। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাবকে ম্যানেজ করে অস্ত্র দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। মিথ্যা বানোয়াট এ মামলার কারণে পেকুয়া উপজেলার আপমর সাধারণ জনগন তার পক্ষে অবস্থান নিয়ে নজির সৃষ্টি করেছে। আমরা পেকুয়াবাসী ও বস্তুনিষ্ট সংবাদ পরিবেশনকারী সাংবাদিকদের কাছে কৃতজ্ঞ।

পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম বলেন, ছৈয়দ নুর বঙ্গবন্ধুর সৈনিক। তিনি অবৈধ অস্ত্র ও ইয়াবা ব্যবসায় বাধা দেওয়ায় তাকে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসানো হয়েছে। এটা পরিকল্পিত নাটক। আমরা প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় তাঁর মুক্তি দাবি তুলবো। এছাড়াও সাংবাদিকেরা যে সত্য লেখেন তা আবারো প্রমাণ হয়েছে। আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।

পরিচালনা কমিটির সদস্য চেয়ারম্যান ছৈয়দ নুরের মুক্তির দাবীতে
এয়ার আলী খান উচ্চ বিদ্যালয়ে সমাবেশ

স্কুল পরিচালনা কমিটির অবিভাবক সদস্য পেকুয়া উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সদ্য র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার (জেল হাজতে) ছৈয়দ নুরের মুক্তি দাবী করে সমাবেশ করেছে রাজাখালীস্থ এয়ার আলী খান উচ্চ বিদ্যালয় এর পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। গত ২ মে সকাল ১১টায় স্কুল হল রুমে ওই সমাবেশ অনুষ্টিত হয়।

সহকারী শিক্ষক সিকদার ইয়াসিনের পরিচালনায় অনুষ্টিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম।
এ সময় বক্তব্য রাখেন, সহকারী প্রধান শিক্ষক বাবু নিরপম দাস, সি:সহকারী শিক্ষক আবু জাফর এমএ, শিক্ষক হাবিবুর রহমান, পরিচালনা কমিটির সদস্য মৌলভী ফিরোজ আহমদ, পরিচালনা কমিটির সদস্য আবদুল মান্নান এমইউপি, শিক্ষক আমির হোছাইন, আবদু রহিম, মিসকাত কবির আজাদ, দশম শ্রেনীর ছাত্র আবদু শুক্কুর, ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী হাদিছা বেগম।
এ সময় বক্তারা বলেন, ছৈয়দ নুর রাজাখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হলেও এয়ার আলী খান উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির অবিভাবক সদস্য। তিনি এ স্কুলটি পরিচালনায় অনেক দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন এবং শিক্ষকসহ সকল শিক্ষার্থীর সাথে তার একটি ভাল সম্পূর্ক গড়ে ওঠে। তিনি শিক্ষাবান্ধব একজন মানুষ। তার আচার আচরণে কখনো সন্ত্রাসী কার্যক্রম ধরা পড়েনি। তিনি ছিলেন অস্ত্র, ইয়াবা ব্যবসায়ীর আতংক ও নিরহ জনগনের বন্ধু। তার কারণে স্কুলের শিক্ষার্থীরা ইভটিজিং মুক্ত ছিল। আমাদের দাবী সে কখনো অস্ত্র ব্যবসায়ী নয়। অস্ত্র দিয়ে তাকে ফাসাঁতে চক্রান্তের আশ্রয় নেয়া হয়েছে। আমরা এ ঘটনায় তার দ্রুত মুক্তি দাবী ও প্রশাসনের উর্ধ্বতম কর্তৃপক্ষের কাছে মামলা প্রত্যাহারের আবেদন জানাচ্ছি।