৭ই মার্চে যে ভাষণ পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ভাষণ- আলীগ ও জাপা

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর , ২০১৭ সময় ১০:৫৩ অপরাহ্ণ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চে যে ভাষণ দিয়েছিলেন তাকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ভাষণ বলে আখ্যায়িত করেছেন আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা।

মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) রাতে জাতীয় সংসদে কার্যপ্রণালী বিধির ১৪৭ বিধিতে সাধারণ আলোচনার জন্য একটি প্রস্তাব উত্থাপন করেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

ওই নোটিশে বলা হয়, ‘সংসদের অভিমত এই যে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো কর্তৃক বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় দেশ ও জাতির সাথে আমরা গর্বিত এবং এজন্য ইউনেস্কো সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে জাতীয় সংসদ ধন্যবাদ জানাচ্ছে।’

আরো বলা হয়, গত ৩০ অক্টোবর প্যারিসে ইউনেস্কোর সদর দফতরে সংস্থাটির মহাপরিচালক ইরিনা বোকোভা এক বিজ্ঞপ্তিতে, ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) দেওয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্বালাময়ী ওই ভাষণটিকে ‘ডকুমেন্টারি হেরিটেজ’ (প্রামাণ্য ঐতিহ্য) হিসেবে ঘোষণা করেছেন। ‘মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ কর্মসূচির ইন্টারন্যাশনাল অ্যাডভাইজরি কমিটি ৭ই মার্চের ভাষণসহ ৭৮টি দলিলকে ‘ডকুমেন্টারি হেরিটেজ’ হিসেবে রেজিস্ট্রিভুক্ত করেছে।

প্রস্তাব উত্থাপন করে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চে বঙ্গবন্ধু ঐতিহাসিক বক্তৃতা দিয়েছিলেন। যা আমরা সংবিধানের অংশ হিসেবে উল্লেখ করেছি, গ্রহণ করেছি। আমরা সেই ভাষণকে বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ভাষণ হিসেবে চিন্তা করতাম, বলতাম। আজ তা বিশ্বস্বীকৃত। জাতির জনকের ভাষণ পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ভাষণ একারণেই যে, একটি ভাষণের মধ্য দিয়ে নিরস্ত্র বাঙালি জাতিকে তিনি সশস্ত্র বাঙালি জাতিতে রূপান্তরিত করেছিলেন। সেদিন ১৯ মিনিটের বক্তৃতায় একদিকে ছিল স্বাধীনতার ঘোষণা, আরেক দিকে যাতে বিচ্ছন্নতাবাদী হিসেবে আখ্যায়িত হতে না হয় সব দিক চিন্তা করেই ভাষণ  দিয়েছিলেন।