৭ই মার্চের ভাষণ স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিকতার ঘোষণা

প্রকাশ:| সোমবার, ৬ মার্চ , ২০১৭ সময় ১১:৫০ অপরাহ্ণ

বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের আলোচনা সভায় মুক্তিযোদ্ধা ও রাজনীতিবিদ নঈম উদ্দিন চৌধুরী

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নঈম উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ মহান স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। এই ঘোষণার মধ্য দিয়ে বাঙালি স্বকীয় অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইয়ে মরণপণ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ পৃথিবীর প্রথম তিনটি ভাষণের একটি। মাত্র ১৯ মিনিট স্থায়ী এই ভাষণে বঙ্গবন্ধু নিরস্ত্র বাঙালিকে স্বাধীনতার মন্ত্রে দীক্ষিত করেছিলেন। গতকাল সোমবার বিকেলে ঐতিহাসিক ৭মার্চ দিবস পালন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলার উদ্যোগে নগরীর জেলা শিশু একাডেমী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য চূড়ান্ত লড়াই দীর্ঘ ২৪ বছরের রাজনৈতিক সংগ্রামের ফসল এবং এর নেতৃত্ব দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এটাই বাস্তবতা এবং ইতিহাসের পাঠ। স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে হঠাৎ করে জিয়াউর রহমানের নাম কিভাবে আসে? ২৪ বছরের রাজনৈতিক লড়াইয়ে আমরা কখনো তার নাম শুনিনি। এই ব্যাক্তিটি প্রতি বিপ্লবী এবং ইতিহাসের খলনায়ক। বাংলাদেশকে পরাধীন করার জন্য এই ব্যক্তিটি ৭১ সালে ঘাফটি মেরে বসেছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গন থেকে পালিয়ে গিয়েছিলেন। মুখ্য আলোচকের ভাষণে কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শফর আলী বলেন, বঙ্গবন্ধু ৪৮ সাল থেকেই স্বাধীনতার স্বপ্ন জাল বুনেছিলেন। তিনি বুঝেছিলেন, বাঙালিকে রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে হবে। তিনি জানতেন বাঙালির মধ্যেই স্বভাবগত বিদ্রোহের বীজ আছে। ৬-দফা ঘোষণার মধ্য দিয়ে তিনি সেই বিদ্রোহের বীজকে অংকুরিত করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলার সিনিয়র সহ সভাপতি ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য আবদুল মান্নান ফেরদৌসের সভাপতিত্বে ও জোটের সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য শেখ মুহাম্মদ ইছহাক, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর আহমেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা কিরণ লাল আচার্য্য, জেলা শিশু একাডেমীর শিশু সংগঠক ও পরিচালক নার্গিস সুলতানা, জোটের সহ-সভাপতি সুমন দেবনাথ, আকবর শাহ থানা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবু সুফিয়ান, ওমরা মিয়া চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ আবদুর রহীম চৌধুরী, মোপলেস সভাপতি কবি সজল দাশ, যুবলীগ নেতা সাজিদ মাহমুদ, সংস্কৃতিকর্মী এনামুল হাসান প্রমুখ।