৫ সন্তানের জননীকে পেঠালেন ইউপি চেয়ারম্যান!

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৪ মার্চ , ২০১৭ সময় ০৯:৩৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে বসতঘরে ঢুকে ৫ সন্তানের জননী এক অসহায় গৃহবধূকে অমানুষিক নির্যাতনের গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি ঘটে, গতকাল ২৩ মার্চ সন্ধ্যার দিকে পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউনিয়নের বটতলী পাড়া গ্রামে। আহত গৃহবধূর নাম মনোয়ারা বেগম (২৭)। সে ওই গ্রামের আবুল কালামেসর স্ত্রী। গৃহবধূকে পেকুয়া সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গৃহবধূর শরীরের বিভিন্ন অংশে লাটির আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকা গৃহবধূ মনোয়ারা বেগম অভিযোগ করেছেন, গতকাল ২৩ মার্চ সন্ধ্যার দিকে ইউপি চেয়ারম্যান জাহেদ কয়েকজন সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে তার বসতঘরে প্রবেশ করেন। এসময় কিছু বুঝে উঠার পূর্বেই তাকে চুলের মুটি ধরে টানা হেছড়া করে ঘর থেকে বের করে উঠানে নিয়ে আসা হয়। এসময় একটি লাটি দিয়ে তার শরীরের পিছন ও সামনের বিভিন্ন অংশে বেধড়ক পেঠানো হয়। চেয়ারম্যানে অকথ্য নির্যাতনের সময় তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

নির্যাতিত গৃহবধু মনোয়ারা বেগমের ভাই আনিস অভিযোগ করেছেন, তার বোনকে ইউপি চেয়ারম্যান অমানুষিক নির্যাতন চালিয়েছন। তারা এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা করবেন।
জানা গেছে, ওই গৃহবধূর প্রতিবেশী আবুল কাসেম নামের এক ব্যক্তি গত কয়েক দিন পূর্বে মনোয়ারার পরিবারের বিরুদ্ধে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে ইউপি চেয়াম্যানের কাছে নালিশ করেন। এর সুত্র ধরে ঘটনার দিন ইউপি চেয়ারম্যান কয়েকজন সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে ঘটনার দিন ওই গৃহবধূর বসতঘরে ঢুকে তাকে ব্যাপক মারধর করেন।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে টইটং ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

উল্লেখ্য যে, ইতিপূর্বেও চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম স্থানীয় এক যুবককে প্রকাশ্যে রাস্তায় লাটি দিয়ে বেধড়ক পিঠিয়ে গুরুতর আহত করেছিল।