৫ নাবিক বহির্নোঙরে পৌঁছেছেন

প্রকাশ:| রবিবার, ৭ জুলাই , ২০১৩ সময় ০৯:৩৭ অপরাহ্ণ

এমভি হোপের উদ্ধার হওয়া ৬জন নাবিকের মধ্যে ৫ জন চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পৌঁছেছেন।চট্টগ্রাম বন্দর সূত্রে জানা গেছে,jahaj 1 রোববার রাত ৮টা ৪৫ মিনিটে এমভি বাক্সমুন নামের কনটেইনারবাহী একটি জাহাজে করে চট্টগ্রাম পৌঁছেন ৫ নাবিক ।পাঁচ নাবিকরা হলো- জাহাজের চতুর্থ প্রকৌশলী মো. আবদুল হাকিম, ডেক ক্যাডেট মোখলেসুর রহমান এবং নাবিক মো. রুবেল, মো. ওসমান ও সাইফুল ইসলাম।

থাইল্যান্ডের ফুকেট উপকূলে ডুবে যাওয়া এমভি হোপের ১৭ নাবিকের মধ্যে নিখোঁজ ৬ নাবিকের সন্ধান পাওয়া যায়নি। এ অবস্থায় রোববার শেষ হয়েছে উদ্ধার অভিযান।

পিঅ্যান্ডআই ক্লাবের প্রতিনিধি ইন্টারপোর্ট মেরিটাইম লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন আবদুল কাদের  জানান, এমভি হোপের নিখোঁজ নাবিকদের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। এরই মধ্যে রোববার বিকেলে উদ্ধার অভিযান শেষ হয়েছে।

 এর আগে তারা এমভি বাক্সমুন নামের কনটেইনারবাহী একটি জাহাজে করে আসছেন বলে জানিয়েছিলেন পিঅ্যান্ডআই ক্লাবের প্রতিনিধি ইন্টারপোর্ট মেরিটাইম লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন আবদুল কাদের।তিনি বলেন,‘পাঁচ নাবিক  রাতে জাহাজে অবস্থান করবেন। এরপর সোমবার সকালে নগরীর আগ্রাবাদে একটি হোটেলে উঠবেন।’

 অপর নাবিক আবু বকর সিদ্দিক থাইল্যান্ডের হাসপাতালে চিকিত্সাধীন। এই ছয়জন নাবিককে দুর্ঘটনার দিনই (বৃহস্পতিবার) উদ্ধার করা হয়।

 উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজ এমভি হোপ দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে এক পাশে কাত হয়ে আন্দামান সাগরে ডুবতে শুরু করে। থাইল্যান্ডের ফুকেট উপকূল থেকে প্রায় ৩০ নটিক্যাল মাইল দূরে জাহাজটি দূর্ঘটনায় পড়ে।  জাহাজের নাবিকরা এসময় প্রাণ বাঁচাতে লাইফ জ্যাকেট নিয়ে সাগরে লাফিয়ে পড়েন।

 পরদিন  শুক্রবার জাহাজের তিন নাবিককে জীবিত এবং দুজনকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। জীবিত তিনজন হলেন মুশফিকুর রহমান, মো. মোবারক হোসেন ও রায়েক ফাইরুজ। আর জাহাজের প্রধান কর্মকর্তা মাহবুব মোরশেদ ও প্রধান প্রকৌশলী কাজী সাইফুদ্দিনের লাশ উদ্ধার করা হয়। ঘটনায় জাহাজের আরো ছয়জন নিখোঁজ রয়েছেন। তারা হলেন- জাহাজের ক্যাপ্টেন রাজীব চন্দ্র কর্মকার, দ্বিতীয় প্রকৌশলী মো. নেজাম উদ্দিন, ইলেকট্রিশিয়ান সাদিম আলী, প্রধান কুক নাসির উদ্দিন, নাবিক নাসির উদ্দিন ও মো. আলী হোসেন ।