৩২ তলা সমমানের একটি আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টার

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৯ জুলাই , ২০১৩ সময় ০৩:৫১ অপরাহ্ণ

মঙ্গলবার দুপুরে নগরীর কাজির দেউড়ি এলাকায় সেনা কল্যাণ সংস্থার জায়গায় সেনা বাহিনীর তত্ত্বাবধানে নির্মিতব্য কনভেনশন কনসেন্টারের সাইট পরিদর্শন শেষে পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ড.হাসান মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন ‘চট্টগ্রামবাসীর দীর্ঘদিনের চাওয়া একটি কনভেনশন সেন্টার। চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানে করার চিন্তা ভাবনা করা হলেও জমি অধিগ্রহণসহ নানা জটিলতায় তা করা হয়নি।‘। চট্টগ্রামে সেনা কল্যাণ সংস্থার প্রায় দেড় একর জায়গায় ৩২ তলা সমমানের একটি আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টার নির্মাণ করতে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক এ কনভেনশন সেন্টার নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে আড়াই থেকে ৩০০ কোটি টাকা। সরকারের পক্ষ থেকে দেখভালের দায়িত্বে আছেন ড.হাসান মাহমুদ।

চট্টগ্রামে আন্তর্জাতিক মানের কনভেনশন সেন্টার নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সেনা কল্যাণ সংস্থা। দেড় একর জায়গা বেশি না হলেও এটি একটি দৃষ্টান্ত হবে। চট্টগ্রামের সর্বোচ্চ ভবন হবে এটি।

তিনি বলেন, এ কনভেনশন সেন্টারে আন্তর্জাতিক মানের সব ধরণের সুযোগ সুবিধা থাকবে। এখানে এক্সপজিশন এবং কনভেনশনের সুবিধা থাকবে। আগামী তিন বছরের মধ্যে এর কাজ শেষ হবে।‘

সেনা কল্যাণ সংস্থার রিয়াল অ্যাস্টেট বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মেজর মো.রেজাউল করিম (ইঞ্জিনিয়ার্স) সাংবাদিকদের জানান, এক্সপজিশন ও কমার্শিয়াল সেন্টার তৈরি করবো। ৩২তলার সমান উঁচু ভবন হবে। আড়াই হাজার লোকের ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন কনভেনশন সেন্টারে হবে। তিনটা বেইজম্যান্টে ৪০০ গাড়ি পার্কিং এর সুবিধা থাকবে।

তিনি বলেন, এটি চট্টগ্রামের জন্য একটি আইকনিক প্রজেক্ট। চট্টগ্রামে আন্তর্জাতিক মানের কোন কনভেনশন সেন্টার ছিল না। এছাড়া মেজবান করার মতো কোন সেন্টার ছিল না। এর মাধ্যমে চট্টগ্রামবাসীর প্রত্যাশা পূরণ হবে।

তবে ভবনটির চূড়ান্ত নকশা এখনো হয়নি বলে জানিয়ে তিনি বলেন,‘নকশার কাজের সঙ্গে সঙ্গে চলছে বিদেশি বিনিয়োগকারী খোঁজার কাজ। ’

বিনিয়োগে বিদেশি কোন সংস্থা এগিয়ে না এলেও ট্রাস্ট ব্যাংক থেকে লোনের মাধ্যমে এ কনভেনশন সেন্টার করা হবে বলে জানান তিনি।

ক‍াজের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী:

সেনা কল্যাণ সংস্থার রিয়াল অ্যাস্টেট বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মেজর মো.রেজাউল করিম (ইঞ্জিনিয়ার্স) জানান, আগামী দুই মাসের মধ্যে নির্মাণ কাজ শুরু হবে। আর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন,‘চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। তিনি জানিয়েছেন আগামী সেপ্টেম্বর মাসে চট্টগ্রামে বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। তখন এ কনভেনশন সেন্টারেরও উদ্বোধন করবেন।’

মহাব্যবস্থাপক বলেন,‘এখানে কয়েকটি ভবন ছিল সেগুলো ভাঙার কাজ চলছে। আগামী এক মাসের মাসের মধ্যে ভাঙার কাজ শেষ হবে।’

এ প্রজেক্টে কনসালট্যান্ট হিসেবে কাজ করছে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গৃহায়ন লিমিটেড। পরিদর্শনের সময় ওই প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ইঞ্জিনিয়ার পুলক বড়ুয়া উপস্থিত ছিলেন।


আরোও সংবাদ