২৫৪ রানে অল আউট হয়েছে বাংলাদেশ

প্রকাশ:| রবিবার, ২৬ অক্টোবর , ২০১৪ সময় ১০:২০ অপরাহ্ণ

টেস্টের দ্বিতীয় দিন তৃতীয় সেশনে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে ২৫৪ রানে অল আউট হয়েছে বাংলাদেশ। ফলে প্রথম ইনিংসে ১৪ রানের লিড পেল স্বাগতিকরা। মুশফিকুর রহিম, মুমিনুল হক ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের অর্ধশতকে লিড পেয়েছে মুশফিক বাহিনী। এছাড়া অন্যসব ব্যাটসম্যানরা এদিন ছিল আসা যাওয়ার মিছিলে।

২১৩ রানে পিছিয়ে থেকে রোববার ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় দিন শুরু করে বাংলাদেশ। শামসুর রহমান শুভ ৮ ও মুমিনুল হক ১৪ রানে দিন শুরু করেন।

তবে স্কোরবোর্ডে ২ রান যোগ করতেই সাজঘরে ফিরেছেন শামসুর রহমান। পানিয়াঙ্গারার বলে লং অনে চিগাম্বুরার তালুবন্দি হন তিনি। ২ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৯ রান। মুমিনুলের সঙ্গে ক্রিজে যোগ দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। দলকে টেনে তুলছেন তারা।

জিম্বাবুয়ে বোলারদের শাসন করে ফিফটি তুলে নেন মুমিনুল (৫৩)। এরপর রানআউটের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। মুমিনুলের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন দেশসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। তবে রানআউট যেন পেয়ে বসেছে বাংলাদেশকে। মুমিনুলের পর সাকিবের (৫) বিদায় হয়েছে সেই রানআ্উটে।

এরপর অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে জুটি বাধেন মাহমুদউল্লাহ। এরপর টেস্ট ক্যারিয়ারের ৯ম ফিফটি তুলে নেন মাহমুদউল্লাহ। ১৬০ বলে ৬৩ রান করে সিকান্দার রাজার এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়ে ক্রিজ ছাড়েন তিনি।

তার পরিবর্তে মাঠে নামেন শুভাগত হোম। মুশফিককে যোগ্য সঙ্গ দেন তিনি। কিন্তু বাংলাদেশের স্কোরসিটে ১৪ রান যোগ করেই বিদায় নিলেন শুভাগত।

এদিকে, টেস্ট ক্যারিয়ারের ১৪তম ফিফটির দেখা পেয়েছেন মুশফিক। তিনি নিজের ইনিংসটি ৬৪ রানের ওপরে তুলতে পারলেন না। পানিয়াঙ্গারার বলে আরভিনের হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন টাইগার দলপতি।

এবার শাহাদাত হোসের রাজিবের আয়েশি বিদায় দেখল ক্রিকেট ভক্তরা। আরভিনের হাতে বল। তা দেখেও ব্যাট উঁচিয়ে আয়েশ করছেন তিনি। রানআউটের শিকার হন তিনি। রানের পাতাই খুলতে সক্ষম হননি বাংলাদেশের দীর্ঘকায়ী এই ক্রিকেটার।

শাহাদাতের পর বিদায় নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। তবে তার ব্যাট থেকে এসেছে মূল্যবান ১৯ রান। দলকে লিড এনে দেন তিনি। সবশেষে আল-আমিন হোসেন শিকার হয়েছেন পানিয়াঙ্গারার।

বাংলাদেশের স্কোরসিটে যোগ হয়েছে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৫৪ রান। আর তাতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৪ রানের লিড নিতে সক্ষম হয়েছে স্বাগতিকরা।

এর আগে টসে জিতে ব্যাটিং করতে নেমে সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণি বোলিংয়ে ২৪০ রানে গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। সাকিব একাই নেন ৬ উইকেট। তরুণ তুর্কী জুবায়ের হোসেন লিখন নেন ২টি উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন শাহাদাত হোসেন রাজীব ও তাইজুল ইসলাম।

জিম্বাবুয়ের হয়ে সর্বোচ্চ ৫১ রান করেন ওপেনার সিকান্দার রাজা।

উল্লেখ্য, এই ম্যাচ দিয়ে অভিষেক হয় লেগ স্পিনার জুবায়ের হোসেন লিখনের। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের একমাত্র লেগ স্পিনার ১৯ বছর বয়সি এই তরুণ।

বাংলাদেশ দল : মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, শামসুর রহমান শুভ, মুমিনুল হক, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, শুভাগত হোম, তাইজুল ইসলাম, জুবায়ের হোসেন লিখন, শাহাদাত হোসেন, আল-আমিন হোসেন।

জিম্বাবুয়ে দল : ব্রেন্ডন টেইলর (অধিনায়ক), ভুসিমুজি সিবান্দা, সিকান্দার রাজা, রেজিস চাকাভা, টেন্ডাই চাতারা, এলটন চিগুম্বুরা, ক্রেগ আরভিন, তাফাজওয়া কামুঙ্গোজি, হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, জন নিয়ম্বু, তিনাশে পানিয়াঙ্গারা।