২৪ সেপ্টেম্বর প্রীতিলতা’র ৮৩ তম আত্মাহুতি দিবস

প্রকাশ:| বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর , ২০১৫ সময় ১০:৫৮ অপরাহ্ণ

শফিউল আজম, পটিয়া॥
প্রীতিলতাপ্রীতিলতাব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের মহানায়ক মাষ্টারদা সূর্য সেনের অন্যতম সহযোগী এবং এদেশের প্রথম নারী শহীদ বীরকন্যা প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের ২৪ সেপ্টেম্বর ৮৩ তম আত্মহুতি দিবস। এ উপলক্ষ্যে পটিয়া উপজেলার ধলঘাট ইউনিয়নের বীরকন্যা প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের গ্রামের বাড়িতে নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে।
জানা যায়, ১৯১১ সালে ৪মে পটিয়া উপজেলার ধলঘাট ইউনিয়নে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। প্রীতিলতা বাবা জগবন্ধু ওয়াদ্দেদার ও মাতা প্রতিভাদেবী ওয়াদ্দেদার। বাবা চট্টগ্রাম মিউনিসিপ্যাল অফিসের প্রধান কেরাণী চাকরি করলেও মা ছিল গৃহিণী। জগবন্ধু ওয়াদ্দেদারের পরিবারে ছয়সন্তানের জন্ম মধূসুধন, প্রীতিলতা, কনকলতা, শান্তি লতা, আশালতা, সন্তোষ। ১৯২৪ সালে স্কুলে পড়াকালিন প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার দেশের স্বাধীনতার জন্য এক দুর্ধর্ষ ডাকাতির কথা শুনে তাকে খুবই আলোড়িত করে এবং দেশের স্বাধীনতার জন্য কাজ করার উৎসাহ প্রকাশ করেন। ওই সময়ে ভারত উপমহাদেশ ব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন। ১৯২৯ সালে মাষ্টারদা সূর্যসেন চট্টগ্রাম জেলা কংগ্রেসের সম্পাদক। জেলে কংগ্রেসের কার্যালয়ে পূর্ণেন্দু দস্তিদার মাষ্টার সূর্যসেনকে প্রীতিলতা সেনের কথাগুলো বললেন। মাষ্টারদা সূর্যসেন প্রীতিলতার সবকিছু শুনে প্রীতিলতাকে ওই দিন দলের সদস্য করে নিলেন। মাষ্টারদা সূর্যসেন বলেন, আমরা তিনজন ছাড়া এই খবর কাউকে জানানো যাবে না। সূর্যসেনের সাথে প্রীতিলতার ভবিষ্যৎ কর্মকান্ড নিয়ে আলোচনা হয়। মাষ্টার দা নির্দেশে সাংগঠনিক কাজ শুরু করেন। ১৯৩০ সালে ১৮এপ্রিল মহানায়ক সূর্যসেনের নেতৃত্বে চট্টগ্রাম দখল হয়। ১৯৩২ সালে কলকাতা বেথুন কলেজ থেকে বি.এ. পাস করার পর চট্টগ্রাম অপর্ণাচরণ ইংরেজি বালিকা বিদ্যালয়ে প্রীতিলতা প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৩২ সালে মে মাসে প্রীতিলতার জন্মস্থান পটিয়া ধলঘাট সাবিত্রী দেবীর বাড়িতে মাষ্টার দা তাঁর সহযোদ্ধাদের সঙ্গে গোপনে বৈঠক করেন। সে বৈঠক চলার সময় ব্রিটিশ সৈন্যদের সাথে বিপ্লবীদের বন্দুক যুদ্ধ শুরু হয়। বন্দুক যুদ্ধে প্রাণ দেন নির্মল সেন ও অপূর্ব সেন। সূর্যসেন প্রীতিলতাকে নিয়ে বাড়ির পাশে ডোবার পানিতে লুকিয়ে থাকেন। ১৯৩২ সালে ১৭ সেপ্টেম্বর দক্ষিণ কাট্টলী গ্রামে এক গোপন বৈটকে সূর্যসেনের নির্দেশে প্রীতিলতা ও কল্পণা দত্ত ইউরোপিয়ান ক্লাব আক্রমণের পরিকল্পনা করার জন্য গ্রামের উদ্দেশ্যে পুরুষের বেশে রওনা দেন। পথে পাহাড়তলীতে কল্পণা দত্ত ধরা পড়লেও প্রীতিলতা নিরাপদে নির্দিষ্ট গ্রামের বাড়ি পটিয়ায় ফিরে যায়। গ্রাম থেকে প্রীতিলতার নেতৃত্বে ইউরোপিয়ান ক্লাব আক্রমণ করার পরিকল্পনা নেয়া হয়। ১৯৩২ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে পাহাড়তলী ইউরোপীয়ান ক্লাব আক্রমণ করে সফল হন। আজ বৃহ¯প্রতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর তাঁর ৮৩ তম আত্মাহুতি দিবসে পটিয়া উপজেলাস্থ নিজ গ্রাম ধলঘাটে বীরকন্যা প্রীতিলতা ট্রাষ্ট’র উদ্যোগে সারাদিন ব্যাপি নানা কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে। সকাল ১০টায় বীরকন্যা প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে অবস্থিত তাঁর আবক্ষ মুক্তিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, দুপুরে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।
এব্যাপারে বীরকন্যা প্রীতিলতা ট্রাষ্টের সভাপতি পংকজ চক্রবর্তী জানান, সকাল থেকে বৃহ¯প্রতিবার সারাদিন বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হবে। বীরকন্যা প্রীতিলতাকে স্মরণ, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আত্মাহুতি দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় অনুষ্ঠিত হবে।