‘‘১৮ আগষ্টের ঘটনা পাহাড়ীদের ঐক্যে বিভেদ সৃষ্টির ষড়যন্ত্র ‘’

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| বুধবার, ১২ সেপ্টেম্বর , ২০১৮ সময় ০৭:০৬ অপরাহ্ণ

জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল (পূর্ব-৩) এর পক্ষ থেকে আজ ১২ সেপ্টেম্বর বিকেল ৩:৩০ টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন কক্ষে খাগড়াছড়ি স্বনির্ভর বাজারে গত ১৮ আগস্ট ২০১৮ইং তারিখে সংঘটিত হত্যাকান্ডের ঘটনা ও তার পরবর্তীতে পানছড়ি প্যারাছড়া ব্রীজে প্রতিবাদী মিছিলে হামলার ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী দলের সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, মুক্তি কাউন্সিল (পূর্ব-৩) সভাপতি এডভোকেট ভুলন লাল ভৌমিক, গণমুক্তি ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক নাসির উদ্দিন আহমেদ নাসু, এডভোকেট আমীর আব্বাস, ভাষা গবেষক এহসানুল কবীর, বাংলাদেশ লেখক শিবিরের কেন্দ্রীয় সদস্য সামিউল আলম এবং বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন চট্টগ্রাম নগর সভাপতি লোকেন দে।
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য পাঠ করেন, এডভোকেট আমীর আব্বাস,
সংবাদ সম্মেলনে পরিদর্শক দলের পক্ষ থেকে মুক্তি কাউন্সিলের সভাপতি এডভোকেট ভূলন ভৌমিক বলেন, পাবর্ত্য রাজনৈতিক দলগুলোর মতাদর্শিক দূরত্ব থাকলেও নিজেদের মধ্যে যতবারই সংঘাত এড়াতে তারা চেয়েছে ততবার সংঘাত ও সংঘর্ষকে উস্কে দিয়ে বিভেদ ও হত্যার রাজনীতি সৃষ্টি করা হয়েছে। সর্বশেষ, ১৮ আগষ্টের ঘটনাটি পাহাড়ী জাতির নিজেদের ঐক্যে বিভেদ সৃষ্টির সুস্পষ্ট ষড়যন্ত্র।
আমরা ঘটনাস্থল ও আশপাশে যেখানেই গেছি-সব জায়গাতেই মানুষের মধ্যে আতংক দেখেছি। আমাদের বন্ধু ও শুভাকাঙ্খিরা পরিদর্শনের ব্যাপারে আমাদের নিরাপত্তা নিয়ে শংকিত ও ভীত ছিলেন। তাহলে প্রশ্ন উঠে পার্বত্য চট্টগ্রামে এতবড় নিরাপত্তা বাহিনীর প্রয়োজন কেন? আমাদের তদন্তে হত্যার শিকার ভিকটিমদের পরিবারের সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে সঠিক তদন্ত হবে না বলে জানিয়েছেন। তারা সন্দেহ করছেন যে, পার্বত্য পরিস্থিতিতে বিশেষ মহলের কারণে তদন্ত প্রভাবিত হবে
এডভোকেট ভূলন ভৌমিক বলেন, ১৮আগষ্ট হত্যাকান্ডে মহামান্য হাইকোর্টের একজন বর্তমান কর্মরত বিচারকের নেতৃত্বে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন পূর্বক ঘটনায় জড়িত দু®কৃতিকারীদেরকে চিহিৃত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।