১৪৮ কলেজে কেউ ভর্তি হয়নি

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই , ২০১৫ সময় ০৯:২৯ অপরাহ্ণ

সারা দেশের ১৪৮টি কলেজে একাদশ শ্রেণিতে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হয়নি বলে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি জানিয়েছে।

এই কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আবু বক্কর ছিদ্দিক বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানিয়ে বলেন, কলেজগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত ২৯ জুন থেকে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে, চলবে আগামী ২৬ জুলাই পর্যন্ত। গত ১ জুলাই একাদশ শ্রেণিতে ক্লাস শুরু হয়েছে।

আটটি সাধারণ বোর্ডের সঙ্গে মাদ্রাসা ও কারিগরি বোর্ড মিলিয়ে মোট আট হাজার ৯৩৩টি কলেজে একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমোদন রয়েছে।

এবার ঢাকা বোর্ডের ১৪টি কলেজ এবং কুমিল্লা বোর্ডের ছয়টি কলেজে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হয়নি বলে বোর্ড কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

এছাড়া রাজশাহী বোর্ডের ১৫টি, যশোর বোর্ডের ১০টি, চট্টগ্রামে একটি, বরিশালে একটি, সিলেটে পাঁচটি এবং দিনাজপুর বোর্ডের ১৬টি কলেজের একাদশ শ্রেণিতে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হয়নি।

কারিগরি বোর্ডের অধীন ৭২টি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং মাসাদ্রা বোর্ডের অধীনে আটটি মাদ্রাসায়ও কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হয়নি।

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আবু বক্কর মনে করেন, কলেজগুলোর মান ভাল না হওয়ায় সেখানে একজন শিক্ষার্থীও ভর্তি হয়নি।

“তবে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের চেয়ে কলেজগুলোতে আসন বেশি থাকায় শিক্ষার্থীরা পছন্দের কলেজেই ভর্তি হয়েছে, এক্ষেত্রে তাদের আগ্রহ প্রাধান্য পেয়েছে,” বলেন তিনি।

তবে যেসব কলেজে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হয়নি শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে সেগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান আবু বক্কর।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ জানিয়েছেন, এবার একাদশ শ্রেণিতে দুই লাখের বেশি আসন ফাঁকা থাকবে। এবছর মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষায় ১২ লাখ ৮২ হাজার ৬১৮ জন পাস করেছে।

আবু বক্কর বলেন, এবার অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম হাতে নেওয়ায় কোনো কলেজেই ভুয়া শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে পারেনি।

অন্য বছরগুলোতে ওইসব কলেজ কিছু শিক্ষার্থীর নামে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নিবন্ধন করিয়ে পাঠদানের অনুমতি ঠিক রাখত বলে মনে করেন তিনি।

কারিগরি জটিলতা দেখা দেওয়ার নির্ধারিত সময়ের তিন দিন পর গত ২৮ জুন মধ্যরাতে ভর্তির জন্য প্রথম মেধাতালিকা প্রকাশ করা হয়। ওই তালিকায় হাজারো ভুলের কারণে কলেজে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েন শিক্ষার্থীরা।

অনেক কলেজ কর্তৃপক্ষও সময়মতো তালিকা না পেয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে ভোগান্তিতে পড়ে। বিলম্ব ফি ছাড়াই শিক্ষার্থীরা আগামী ২৬ জুলাই পর্যন্ত কলেজে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন।

গত কয়েক বছর ধরে মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হচ্ছে।