১৩ রানের পরাজয়ের যাতনা

প্রকাশ:| সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি , ২০১৪ সময় ১০:০১ অপরাহ্ণ

ওভারপ্রতি ৪.৫০ তুললেই চলে। ৪৩ ওভারে করতে হবে ১৮১। ইনিংসের শুরুতেই লাসিথ মালিঙ্গার ছোবলে দলের শূন্য রানে এনামুল হক ফিরলেও শামসুর রহমান ও মুমিনুল হক এগোচ্ছিলেন দুরন্ত গতিতেই। জয়টা তখন মনে হচ্ছিল স্রেফ সময়ের ব্যাপার। হঠাত্ বদলে গেল ম্যাচের রং। ১৪.৩ ওভারে ১ উইকেটে ৭৮ থেকে ৩৫.৩ ওভারে ৮ উইকেটে ১৬১—এই ২১ ওভারে ৮৩ রান তুলতেই বাংলাদেশ খোয়াল ৭ উইকেট। মুশফিকুর রহিম আশার সলতে জ্বালিয়ে রাখলেন অনেকক্ষণ। কিন্তু শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের বলে ২৭ করা বাংলাদেশ অধিনায়ক কেন নিজের মূল্যবান উইকেটটি অমন বিলিয়ে দিয়ে এলেন, সে প্রশ্ন বহুদিন ভাসবে মিরপুরের বাতাসে। নইলে কি আর ১৬৭ রানে অলআউট হতে হয়! ১৩ রানের পরাজয়ের যাতনা সইতে হয় বাংলাদেশের!
বাংলাদেশ দলের বড় ট্র্যাজেডির নাম শামসুর রহমান। ম্যাচ চলার সময় শ্রীলঙ্কার সাবেক অল-রাউন্ডার রাসেল আরনল্ড টুইট করেছেন, ‘শামসুর শোয়িং সাম ক্লাস!! গ্রেট নক…!!’ আরনল্ডের স্তুতিবাক্যের সংগত কারণ রয়েছে। স্ট্রোকের পসরা সাজিয়ে কি দুরন্ত গতিতেই না এগোচ্ছিলেন শামসুর! ঝটপট ছুঁলেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ওয়ানডে অর্ধশতক। কিন্তু এমনই দুর্ভাগ্য, ৬২ রানে কাটা পড়লেন অদ্ভুত এক রান আউটে। তাঁর আউটের সিদ্ধান্ত দিতে থার্ড আম্পায়ারকে সময় নিতে হলো বেশ কিছুক্ষণ।

ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ বারবার ক্যাচ হাতছাড়া করলেও শ্রীলঙ্কার ক্ষেত্রে ঠিক উল্টো। আরেকভাবে বললে, শ্রীলঙ্কার দুর্দান্ত ফিল্ডিংয়ের কাছেই বাংলাদেশ হারল আজ। এনামুলের ক্যাচটি স্লিপে প্রথমে সেনানায়েকের হাত গলে বেরিয়ে গেলেও ম্যাথুস ঠিকই হাতে জমিয়ে ফেললেন। পয়েন্টে দিলশান যে ফিল্ডিং করলেন তা এক কথায় অসাধারণ! কিংবা কিথুরুয়ান ভিথানাগে সোহাগ গাজীর যে ক্যাচটি নিলেন সেটিও বা কম কিসে! মোদ্দাকথা বাংলাদেশের বাজে ফিল্ডিংয়ের বিপরীতে শ্রীলঙ্কা যে অসাধারণ ফিল্ডিংয়ের অনুপম নিদর্শন রাখল, তা বহুদিন ক্রিকেটপ্রেমীদের স্মৃতিতে জমে থাকতে বাধ্য।