১৩ মণ স্বর্ণ জব্দ করে বাংলাদেশ ব্যাংকে হস্তান্তর

প্রকাশ:| রবিবার, ৪ জুন , ২০১৭ সময় ০৭:৪১ অপরাহ্ণ

বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় আপন জুয়েলার্সের ৫টি শো রুম থেকে সাড়ে ১৩ মণ স্বর্ণ আনুষ্ঠানিকভাবে জব্দের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকে হস্তান্তর প্রক্রিয়া চলছে। জব্দকৃত স্বর্ণ ও ডায়মন্ড শুল্ক আইন অনুযায়ী নিষ্পত্তি করা হবে বলে জানিয়েছেন শুল্ক গোয়েন্দারা। এসময় শোরুমের সামনে ভিড় করতে দেখা যায় উদ্বিগ্ন গ্রাহকদের।

রোববার সকালে রাজধানীর সীমান্ত স্কয়ারে অবস্থিত আপন জুয়েলার্সের শো-রুমে অভিযানে যান শুল্ক গোয়েন্দারা। এসময় সংশ্লিষ্টদের উপস্থিতে একে একে খোলা হয় সিলগালা। পরে বৈধ কাজগপত্র দেখাতে না পারায় আনুষ্ঠানিকভাবে অলঙ্কার জব্দ কার্যক্রম শুরু করে সংস্থাটি।

একইভাবে রাজধানীর গুলশান ডিসিসি মার্কেট, গুলশান অ্যাভিনিউ, উত্তরা ও মৌচাকের শো রুমে শুল্ক গোয়েন্দাদের আলাদা টিম অভিযান চালায়। শুল্ক গোয়েন্দারা জানান, ঢাকা কাস্টমস হাউসের শুল্ক গুদামের মাধ্যমে স্বর্ণগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকে দেয়া হবে। জব্দকৃত স্বর্ণালঙ্কারের বাজারমূল্য প্রায় আড়াই’শ কোটি টাকা।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর জাকির হোসেন বলেন, ‘উনাদের সুযোগ দেয়া হয়েছে, বৈধ কাগজপত্র আছে কিনা তা দেখানোর জন্য। আমরা দেখেছি যে, তাদের কাছে কোন বৈধ কাগজপত্র নেই। তাই আমরা আইনানুগভাবেই আজ এগুলো জব্দ করতে এসেছি।’

এদিকে, মেরামত করতে দিয়ে এখনো অলঙ্কার পাননি এমন গ্রাহকদেরও উপস্থিতি ছিল কয়েকটি শো-রুমে। এসময় তারা নিজেদের বৈধ স্বর্ণালঙ্কার ফেরত পাওয়ার দাবি জানান।

এর আগে গত ১৪ ও ১৫মে শুল্ক গোয়েন্দারা আপন জুয়েলার্সের ৫টি শো রুমে অভিযান চালিয়ে প্রায় সাড়ে ১৩ মণ স্বর্ণ ও ৪২৭ গ্রাম ডায়মন্ড সাময়িকভাবে জব্দ করে। এরপর আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ ও তার দুই ভাইকে আত্মপক্ষ সমর্থনে শুল্ক গোয়েন্দাদের পক্ষ থেকে ৩ দফায় শুনানির সুযোগ দেয়া হলেও কোনো প্রকার বৈধ কাগজ দেখাতে পারেননি তারা।