১২ দফা দাবী মেনে না নিলে নির্বাচনে জবাব

প্রকাশ:| শনিবার, ১৩ জুলাই , ২০১৩ সময় ০৮:০২ অপরাহ্ণ

হলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত হাটহাজারী উপজেলার উদ্যোগে আহলে সুন্নাত ঘোষিত ১২ দফার বিষয়ে ওলামা মাশায়েখ, ahle hathazari picZZZ02পেশাজীবি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন এর সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ সাকুর মিয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্টিত মতবিনিময় সভার প্রারম্ভে ১২ দফা দাবীর প্রসঙ্গিকতা তুলে ধরে সূচনা বক্তব্য রাখেন আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত সমন্বয় কমিটির সদস্য সচিব আলহাজ্ব এডভোকেট মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার মতবিনিময় সভায় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, ওলামা মাশায়েখ, শিক্ষাবিদ-আইনজীবি, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, ব্যবসায়ীসহ নানা সত্মরের পেশাজীবি নেতৃবৃন্দ বলেন, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত ঘোষিত ১২ দফা দাবী দেশে চলমান গভীর সংকট থেকে উত্তরনে সহায়ক ভূমিকা রাখতে সক্ষম। তাই দাবী গুলো সরকার কিংবা বিরোধীদল কারো স্বার্থে নয়, বরং জনগণ ও দেশের বর্তমান চাহিদা পূরনের লক্ষ্যে দেওয়া হয়েছে। অভিযুক্ত বস্নগারদের সর্ব্বোচ্চ শাসিত্ম আজ গণদাবীতে রূপ নিয়েছে। তাই এর পক্ষে আইন সংস্কার করার বিষয়ে সরকার এবং বিরোধীদলকে সুস্পষ্ট বক্তব্য এবং পদক্ষেপ নিতে হবে। অন্যথায় জনগণই আগামি জাতীয় নির্বাচনে এর সমূচিত জবাব দিবে। তারা বলেন- আসন্ন জাতীয় নির্বাচন প্রশ্নে সরকার আর বিরোধীদল এখনো অনড় অবস’ানে রয়েছে। যা দেশে চরম সংকট তৈরী করবার আশংকা রয়েছে। তাই অবিলম্বে রাজনৈতিক দল গুলোকে সংলাপে বসাতে সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। সংবিধানে আলস্নাহর নাম সংযোজন এবং নারী নীতি থেকে কুরআন-সুন্নাহ পরিপন’ী অংশ প্রত্যাহার করে জনগণের আস’া ফিরিয়ে আনার বিকল্প নেই। বিশেষতঃ মুসলমানে-মুসলমানে চলমান শত বছরের সংঘাত নিরসনে কওমী মাদরাসা গুলোকে আলীয়া মাদরাসার মতো একই মাদরাসা শিক্ষানীতি , সিলেবাস এবং সরকারি শিক্ষাবোর্ড ও নিয়ন্ত্রনাধীন করার দাবী দ্রুত বাসত্মবায়ন করতে হবে। সরকার হেফাতের সাথে আঁতাত করা শুরম্ন করেছে। ধ্বসাংত্মক হরতাল এবং লাগাতার সংসদ বর্জনের মতো রাজনীতি বন্ধে আইন এবং নির্বাচনী অঙ্গীকার আজ সময়ের দাবী। সংখ্যালঘূ, পুলিশ, মিডিয়া কর্মী, মসজিদ-মাজার, কুরআন, হাদীস এবং সরকারি-বেসরকারি স’াপনায় হামলা ও অগ্নি সংযোগের সাথে জড়িতদের নিরপেক্ষ ভাবে শনাক্ত করে দৃষ্টানত্ম মূলক শাসিত্মর আওতায় আনতে হবে। সাইফুলের হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার পূর্বক বিচার শুরম্ন করতে হবে। মায়ানমারের মুসলমানদের নির্যাতন বন্ধে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়ার দাবীগুলো অত্যনত্ম ন্যায্য এবং সময়োপযোগি বলে অভিমত ব্যক্ত করা হয়।

মতবিনিময় সভায় নানা সত্মরের পদস’ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, পেশাজীবি ও ওলামা মাশায়েখদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- আহলে সুন্নাত সমন্বয় কমিটির সদস্য অধ্যক্ষ আবুল ফরাহ মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন, এডভোকেট মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, হাটহাজারী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সভাপতি অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ইসমাঈল, উপজেলা ইসলামী ফ্রন্ট’র সভাপতি উপাধ্যক্ষ মৌলানা সৈয়দ নুরম্নল আমিন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ জাফর উল্লাহ তালুকদার, সাউদার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন আযহারী, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মীর সাইফুদ্দিন খালেদ চৌধুরী, চবির রাসায়ন ও অনুপ্রান বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মঈনুল ইসলাম রিমন, চবির রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মোহাম্মদ বখতিয়ার উদ্দিন,প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ নজরম্নল ইসলাম, অধ্যক্ষ মৌলানা ইব্রাহীম নঈমী, অধ্যক্ষ সৈয়দ হোসাইন আলকাদেরী, অধ্যক্ষ মৌলানা তৈয়ব আলী, অধ্যাপক শেখ মোহাম্মদ খোরশেদুল আলম, অধ্যাপক মোহাম্মদ আফজল হোসেন, প্রেস ক্লাব সভাপতি কেশব কুমার বড়-য়া, বিশিষ্ট ব্যাংকার মোহাম্মদ ইউসুফ, মৌলানা হাসানুল করিম চৌধুরী, আবু তৈয়ব চৌধুরী সুমন, মোহাম্মদ ওমর ফারম্নখ লিটন, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুল হালিম, অধ্যক্ষ মৌলানা বদিউল আলম জিহাদী, শাহজাদা শ.ম এনাম, মোহাম্মদ এমরান হোসেন, মোহাম্মদ মাহাবুল আলম, অধ্যক্ষ আবু নওশাদ নঈমী, ব্যবসায়ী নেতা দিদারুল আলম বাবুল, মৌলানা মীর হাসানুল করিম, আলহাজ্ব মোহাম্মদ হারুন প্রমুখ।ahle hathazari picZZZ02