১০ বছর পর চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা

প্রকাশ:| বুধবার, ৩০ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ০৮:৩৭ অপরাহ্ণ

সভাপতি ইমরান উদ্দিন হিরু,সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি
দীর্ঘ ১০ বছর পর চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি বুধবার বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ বিভিন্ন পদে ২৪ জনের নাম ঘোষণা করে। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পাওয়া চট্টগ্রামের ৫ জনের নামও ঘোষণা করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক শেখ রাসেল।

ঘোষিত কমিটিতে সভাপতি পদে রয়েছেন ইমরান উদ্দিন হিরু। সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি। হিরু চট্টগ্রাম সরকারি সিটি কলেজ ছাত্রলীগের বক্তৃতা ও বিতর্ক সম্পাদক। রনি ওমর গণি এমইএস কলেজ ছাত্রলীগ নেতা। দু’জনই চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী বলে জানা গেছে।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে সহ-সভাপতি পদে রয়েছেন তালেব আলী, মো. ইমতিয়াজ বাদল, রূপন মল্লিক, ফারুক ইসলাম, নাজমুল হাসান রনি, ইয়াসির আরাফাত কচি, আব্দুল খালেক, মো. নাজিম উদ্দিন রাসেল, রাহুল বড়ুয়া। যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন জাকারিয়া দস্তগির, রনি মির্জা, রিয়াজুল করিম বিলাস, লুৎফর এহসান শাহ, ওয়াহেদ রাসেল, মঈন শাহরিয়ার, আয়াজ উদ্দিন, শওকত আলী রনি, শওকত আলম মানিক, খোরশেদ আলম মানিক, ইরফানুল আলম জিকু, আমির হামজা। প্রচার সম্পাদক পদে তপু বড়ুয়া। দপ্তর সম্পাদক পদে আজিজুর রহমান সায়েম।

এছাড়া চট্টগ্রামের পাঁচ ছাত্র নেতাকে মহানগর কমিটিতে স্থান দিতে না পারায় কেন্দ্রীয় কমিটির অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন আজিজুর রহমান (উপ-প্রচার সম্পাদক), ইলিয়াছ উদ্দিন (উপ-শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদক), জাহেদ বিন কাসেম (সদস্য), দেবাশীষ আচার্য (সদস্য), মোরশেদুল আলম রাসেল (সদস্য)।

চট্টগ্রাম মহানগরীর নতুন কমিটির ২৪ জন এবং কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পাওয়া পাঁচ ছাত্র নেতার মধ্যে বেশির ভাগ এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা আ জ ম নাসির উদ্দিন এবং সাবেক মহানগর যুবলীগ নেতা ও কাউন্সিলর মামুনুর রশীদ মামুনের অনুসারী।

২০১১ সালের ১০ জুলাই অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সম্মেলন। নিয়ম অনুযায়ী কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে সব জেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির গঠন হওয়ার কথা। চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সর্বশেষ কমিটি গঠন হয় ২০০৩ সালের ৯ ডিসেম্বর। ২০১১ সালের জুন মাসে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়। চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগ নেতাদের ঐক্যমত্যের অভাবে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়িয়ে যাওয়ার কৌশল হিসেবে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় সম্মেলন ছাড়া কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নতুন কমিটি ঘোষণা করবে।

এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশেষ দায়িত্ব দেন। তিনি যাচাই-বাছাই করে প্রায় ১৫০ জনের একটি তালিকা ৩০ জুনের মধ্যে ঢাকায় প্রেরণ করেন।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলির সদস্য এবং ছাত্রলীগের ব্যাপারে বিশেষ দায়িত্বপ্রাপ্ত ওবায়দুল কাদের এই তালিকার প্রতি অভিন্ন মত পোষণ করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে পাঠান। চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এমআর আজিম ও সাধারণ সম্পাদক মো. সালাউদ্দিন ২০১১ সালের ৫ জুলাই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে তালিকাটি জমা দেন।

এই তালিকায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে কয়েকজনের নামও প্রস্তাব করা হয়। কিন্তু এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর নির্দেশনা মতে তৈরি তালিকার ব্যাপারে চট্টগ্রামের অন্যান্য সিনিয়র আওয়ামী লীগ নেতারা এক মত পোষণ না করায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ ১০ জুলাই কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগে নতুন কমিটি ঘোষণা করতে পারেনি। অবশেষে দীর্ঘ দশ বছর পর গতকাল চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটির ২৪ জনের নাম ঘোষণা করা হয়।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নেতারা জানান, নতুন কমিটির ২৪ জনের সর্ব সম্মতিক্রমে একটি তালিকা কেন্দ্রে প্রেরণ করবে। ওই তালিকার ভিত্তিতে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের ১২১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে।