হিউম্যান রাইটস অফ বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের বিভাগীয় কমিটির সভা

প্রকাশ:| রবিবার, ১০ ডিসেম্বর , ২০১৭ সময় ০৮:৩৮ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উদ্যাপন জাতিসংঘের নির্দেশনায় বিশ্বের সকল দেশে প্রতি বছর ১০ ডিসেম্বর পালনে বর্ণাঢ্য র‌্যালি আলোচনা সভা ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আব্দুল মান্নান মোবাইলে ভিডিও বার্তায় বলেন, দেশে বর্তমান প্রধান মন্ত্রী মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশ্বে মাদার অফ হিউম্যানিটি খ্যাতাব অর্জন বিরল দৃষ্টান্ত। নির্যাতিত বার্মার রোহিঙ্গা মুসলিম নাগরিকদের আশ্রয় দিয়ে এই সরকার বিশ্বে মানবতার মডেল হিসেবে স্বীকৃত পেল। রাষ্ট্রীয় প্রোগ্রাম থাকায় না আসতে পেরে তিনি ভিডিও বার্তায় মানবাধিকার দিবসে অধিকার রক্ষায় সকল সংস্থা কে সমন্বয় করে কাজ করার আহবান জানান।

বিভাগীয় কমিটির সভাপতি মোঃ জাহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সংবর্ধনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রিয় নারী নেত্রী ও ভাইস চেয়ারম্যান মিসেস উম্মে কুলসুম, বিশিষ্ট ব্যাংকার ও কেন্দ্রিয় সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, বিভাগীয় মহাসচিব শাহ মোঃ সিরাজুর রহমান (সজল),সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ সুরুজ্জামন,প্রকৌশলী মোঃ হাবিব, মহানগর সহ-সভাপতি হাজী আব্দুল হালিম,সাঃ সম্পাদক মোঃ বিল্লাল হোসেন বেলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ফারুখ নাছির, নিজাম উদ্দিন মীর, শামসুদ্দিন হাওলাদার, বিভাগীয় কমিটির সদস্য রানা।

নারী নেত্রী ফাতেমার সঞ্চালনায়ে সংবর্ধনা সভাতে ২০১৭ সালে মানবাধিকার ক্ষেত্রে বিশেষ কাজ করায় ইপিজেড থানার ওসি সৈয়দ আহসান, নারী নেত্রী উম্মে কুলসুম সহ ১৮জন মহিয়াশী ব্যক্তি কে স্মারক সম্মাননা প্রদান করে ইউনিটি ফর ইউনির্ভাস হিউম্যান রাইটস অফ বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিটি ।

এসময় বক্তরা বলেন,জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক, ১৯৪৮ সাল থেকে দিবসটি উদযাপন করা হয। এছাডও, ‘সার্বজনীন মানব অধিকার সংক্রান্ত ঘোষণাকে’ বাস্তবাযনের লক্ষ্যে এ তারিখকে নির্ধারণ করা হয। সার্বজনীন মানব অধিকার ঘোষণা ছিল ২য বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী নবরূপে সৃষ্ট জাতিসংঘের অন্যতম বৃহৎ অর্জন। সকল মানুষের মানবাধিকার সুরক্ষা, সমধিকার, অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন নিশ্চিতকরণে পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠীকে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প ও কর্মসূচির মাধ্যমে এগিয়ে নিতে হবে। মানবাধিকার আন্দোলন বিশ্ব ভ্রাতৃত্ব গড়ে তুলবে। মানবাধিকার কর্মীরা মানুষের মৌলিক অধিকার রক্ষায় বিশ্বব্যাপী কাজ করে যাচ্ছে। আর নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু অধিকার রক্ষা ও মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করার পাশাপাশি সরকারী উদ্যোগ আরও গতিশীল করতে হবে।
এর আগে সকালে মানবাধিকার র‌্যালিটি চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব থেকে শুরু হয়ে ডিসি হিল ঘুরে পূনরায় প্রেসক্লাবে এসে শেষ হয়।