হাটহাজারীতে ৩৩ হাজার ভোল্টের বিদ্যুৎ লাইনের নিচে নির্মিত হচ্ছে বহুতলা ভবন !

প্রকাশ:| সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর , ২০১৩ সময় ০৬:০১ অপরাহ্ণ

হাটহাজারীতে ৩৩ হাজার ভোল্টের বিদ্যুৎ লাইনের নিচে নির্মিত হচ্ছে বহুতলা ভবন !হাটহাজারী পৌরসভাস্থ ১১ মাইল এলাকায় সৈয়দ ওয়াহিদুল আলম সড়কে ৩৩ হাজার ভোল্ট বিশিষ্ট ফোরট্টি লাইনের নিচে অবৈধভাবে উপজেলার গড়দুয়ারা নিবাসী জনৈক মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী মিজান নির্মান করছে বহুতলা ভবন। বিল্ডিংটির উভয়পাশে ৩৩ হাজার ভোল্ট বিদ্যুৎ লাইন এবং ১১ হাজার ভোল্ট বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন রয়েছে। বিদ্যুৎ লাইন এর নিচে বহুতলা ভবন নির্মাণ সরকারি ভাবে সম্পূর্ণ নিষেধ থাকলেও দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের যথাযথ নজরদারির অভাবে ঝুঁকিপূর্ণ এ ভবন নির্মিত হচ্ছে। এতে করে যেকোন সময় ভয়াবহ দূর্ঘটনার আশংকা প্রকাশ করা হচ্ছে।
জানা যায়,হাটহাজারী পৌরসভা এলাকায় বহুতলা ভবন নির্মাণ করতে হলে চট্টগ্রাম বিদ্যুৎ বিভাগ, সিডিএ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা,পৌরসভার প্রশাসক ও ভূমি অফিসের অনুমতি প্রয়োজন। কিšু‘ প্রবাসী মিজান এই সব অনুমতির তোয়াক্কা না করে সাবেক এক চেয়ারম্যান এর নাম ব্যবহার করে সম্পূর্ণ অবৈধভাবে ভবনটি নির্মাণ করছেন। ভবনটির ২য় তলার কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে। ইতিমধ্যে ৩য় তলার কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে। প্রশাসনের কর্মকর্তাকে তোয়াক্কা না করে ১১ হাজার বা ৩৩ হাজার ভোল্টের লাইনের নিচে ভবনটি নির্মাণ করায় জনমনে ভীতির সঞ্চার হয়েছে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ভবনটি সম্পূর্ণ ঝুকি পূর্ণ যে কোন মূহুর্তে বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা প্রকাশ করছেন সচেতন মহল। এ ভবনে লোকজন বসবাস করাও নিরাপদ নয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে বিল্ডিং এর মালিক প্রবাসী মিজানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগে একবার পত্রিকায় দিয়েছিল সাংবাদিকরা। উর্ধতন কর্মকর্তাদের একটি টিম তদন্ত করে তারা তিন তলা করার নির্দেশ দিয়েছেন। মিজান বিষয়টি পত্রিকায় না দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন এবং হুংকার দিয়ে বলেন দিলেও কোন কাজ হবে না। আমি কোন সংবাদপত্রকে পরোয়া করিনা। প্রশাসনকে টাকা দিয়ে কাজ চালিয়ে যাব। তিনি আরো বলেন আমি এ ব্যাপারে বেশী কিছু বলতে পারব না। বাকী কথা এক চেয়ারম্যানের উল্লেখ করে তিনি বলবেন বলে জানান।
একটি সূত্রে জানা যায়, প্রবাসী মিজান একটি ভূয়া সিডিএ’র অনুমতির কাগজপত্র বানিয়েছেন। কোন লোক জানতে চাইলে অনুমতি আছে বলে ভূয়া কাগজটি দেখান।
এ ব্যাপারে সিডিএ’র চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম এর কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি জানি না। তবে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
এ ব্যাপারে চট্টগ্রামের বিদ্যুৎ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী স্বপন কুমার সাহার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ৩৩ হাজার, ১১ হাজার ভোল্ট বা ফোরফরট্টি সঞ্চালক লাইনের নিচে বহুতলা ভবন নির্মাণ করা সম্পূর্ন রুপে সরকারি নিষেধ আছে। বিষয়টি আমি হাটহাজারী নির্বাহী প্রকৌশলীকে দেখার জন্য বলব। তবে বিষয়টি সম্পূর্ণ ভাবে উপজেলা প্রশাসন ও পৌরসভা প্রশাসকের এখতিয়ার।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পৌর প্রশাসক ইসরাত জাহান পান্নার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান,আমি এ বিষয়ে কিছু অবগত নয়। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করব।