হাটহাজারীতে বিষধর দু-মুখো সাপ আটক

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৮ জুলাই , ২০১৭ সময় ০৮:২০ অপরাহ্ণ

মোহাম্মদ মহিন উদ্দীন, হাটহাজারী:: নির্জনে সাপ শব্দটা উচ্চারণ করলেই বুকের রক্ত চলকে ওঠে। আমাদের দেশে প্রতিবছর ৬ হাজারের বেশি মানুষ সাপের কামড়ে মারা যায়। পাশের দেশ ভারতে প্রতিবছর ২৫ হাজার মানুষ সাপের কামড়ে মারা যান , কেবল পশ্চিমবঙ্গেই ৫-৬ হাজার মানুষ সর্পদংশনে মারা যান । আমাদের চিকিৎসাব্যবস্থার নগণ্যতার কথা সকলেরই জানা ; কিন্তু চিকিৎসার অভাব ছাড়াও সর্পদংশনে মৃত্যুর আরেকটি বড় কারণ হল সাপ সম্পর্কে অজ্ঞতা , কুসংস্কার , ওঝা-গুনিন-হাতুরের ওপর অন্ধ নির্ভরতা অথ্যাৎ অবৈজ্ঞানিক ধারণা ও বিশ্বাস ।

হাটহাজারীতে দু-মুখো (আনাই) সাপের বাচ্চা আটক। দু-মুখো সাপ সাপটি হাটহাজারী উপজেলার ফরহাদাবাদ ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড উদালিয়া গ্রামের মদনহাটের পশ্চিমে দিদার মার্কেটের দোকানদার মোঃ আজিজ মিয়া এ বাচ্চা সাপটি কে ধরে পানির বোতলে জীবিত অবস্থায় আটকে রেখেছে। এখনো জীবিত আছে বাচ্চা সাপটি। এলাকায় খুব বিষাক্ত সাপ হিসেবে তাঁর পরিচিতি রয়েছে।

দু-মুখো সাপ:- দু-মুখো সাপ বলতে কোন সাপ নেই। যে সাপকে দু-মুখো বলে সংজ্ঞায়িত করা হয় আসলে এর মাথা একটিই। এর আকৃতি এমন যে, কোনটি মাথা আর কোনটি লেজ তা সহজে সনাক্ত করা যায় না। দেহ গোল নলের মতো , লেজ চ্যাপ্টা ও ভোঁতা – অবিকল মাথার মতো আকৃতি তাতেই লোকে দুমুখো সাপ বলে মনে করে নেয় । অনেক সময় শরীর গোলশপাকিয়ে ডেলা করে ভোঁতা লেজটি তুলে রাখে মাথার মতো । তাছাড়া পিছু হটার সময় এ সাপ পিছন ফেরে না, ব্যাক-গিয়ারে পিছিয়ে যায়। তবে নিতান্ত প্রকৃতির খেয়ালে একই সাপের দেহে দুটি মাথা গজিয়ে উঠতে পারে ।


আরোও সংবাদ