হাটহাজারীতে ডিজিটাল মেলার শেষদিনে দর্শনার্থীর ভিড়

প্রকাশ:| রবিবার, ২৭ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ০৭:০৫ অপরাহ্ণ

হাটহাজারীতে ডিজিটাল মেলার শেষদিনে দর্শনার্থীর ভিড় ১তথ্য প্রযুক্তি ছাড়া দেশকে এগিয়ে নেওয়া অসম্ভব
বিপ্লব দে,হাটহাজারী>>
হাটহাজারীতে দু’দিন ব্যাপী ডিজিটাল মেলার শেষদিন রবিবারে ছিল উপচে পড়া ভিড়। শিক্ষক শিক্ষার্থী ও দর্শনার্থীদের প্রদচারনায় ছিল মুখরিত। হাটহাজারী পার্বতী উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে আয়োজিত মেলায় ২৯টি ষ্টল স্থাপন করা হয়েছে।
উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে,সরকারের ভিশন ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ধারণা সুস্পষ্ট করার জন্য এ ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার আয়োজন করা হয়। এ আয়োজনের মাধ্যমে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর গুলোর দৈনন্দিন ওয়েবসাইট ও ওয়েবপোর্টাল ভিত্তিক কার্যক্রম সম্পর্কে জনসাধারণকে অবহিতকরণ করা হয়।
পাশাপাশি স্কুল,কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদেরকে ডিজিটাল কন্টেট ব্যবহারের উদ্ভাবনী মানসিকতা তৈরীর লক্ষে এ মেলার আয়োজন করা হয়। এছাড়া জনসাধারণের দৈনন্দিন কার্যক্রমে ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার থেকে বিভিন্ন সহযোগী বিষয় ব্যবহারের ক্ষেত্রে আগ্রহী করে তোলা। ইন্টারনেটে ই-মেইল একাউন্ট তৈরী, ইমেইলিং, ডাটা রিজার্ভ, ডাটা শেয়ার, পোর্টালে ডাটা আপলোড করণ ইত্যাদি সম্পর্কে সম্যক ধারণা জ্ঞাপন করা। শিক্ষার্থীদের বোর্ড ভিত্তিক বিভিন্ন পরীক্ষার নোটিশ, ভর্তি, রেজিস্ট্রেশন, ফলাফল ইত্যাদি বিষয় সম্পর্কে ধারণা জ্ঞাপন। অনলাইন সিস্টেম এ ব্লগিং, ফ্রিল্যান্সিং, আউটসোর্সিং এক্টিভিটি, ইন্টারপ্রেনার ও ওয়েব ডিজাইনিংয়ে আগ্রহী করে তোলা। ইউআইএসসি উদ্যোক্তাদের সহায়তায়-মোবাইল ব্যাংকিং, মাটি পরীক্ষা ও সারের সুপারিশ, বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ, জীবন বীমা সুবিধা, বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের কল্যাণভাতা ও অবসর ভাতা, বিদেশে কর্মী প্রেরণের প্রক্রিয়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে জনসাধারণকে ধারনা দেয়া এবং আগ্রহী করে তোলায় ছিল এ মেলার মূল লক্ষ্য।

মেলায় আগত ড.শহীদুল্লাহ একাডেমীর নবম শ্রেনীর ছাত্রী সানজিদা রহমান জেরিন বলেন,বর্তমানে প্রতিটি ক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার রয়েছে। আমাদের বিভিন্ন ক্লাসগুলোও ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে করানো হচ্ছে। তাই শূধু উপজেলায় নয় প্রত্যেকটি ইউনিয়নে প্রতিবছর ডিজিটাল মেলা করার প্রয়োজন বলে সে অভিমত প্রকাশ করেন ।

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি হাটহাজারী উপজেলা শাখার সভাপতি শিমুল মহাজন বলেন, তথ্য প্রযুক্তির নানাবিধ সুবিধা কাজে লাগিয়ে সরকারের ভিশন ডিজিটাল বাংলাদেশ এর উন্নয়নের অংশীদার হিসেবে নাগরিকদের একজন সৎ, দক্ষ ও আদর্শ নাগরিক হিসেবে প্রস্তুত করাই এ ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার লক্ষ্য। আমরা বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্কি সর্ম্পকে কি শিক্ষা দিচ্ছে তা এখানে উপস্থাপন করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত জাহান পান্না বলেন,মেলায় বিভিন্ন বেসরকারী ব্যাংক,ইউনিয়ন পরিষদ তথ্য ও সেবাকেন্দ্র, কৃষি বিভাগ ,এলজিইডি বিভাগ, থানা, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্্েরক্স,বিভিন্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজ অংশগ্রহন করে।
মেলার সমাপনী দিনে বক্তারা বলেছেন,তথ্য প্রযুক্তি ছাড়া দেশকে এগিয়ে নেওয়া সম্ভব না। তাই দেশের শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে হবে। বর্তমান বিশ্ব হচ্ছে তথ্য প্রযুক্তির যুগ। এ যুগে টিকে থাকতে হলে বিজ্ঞানের নতুন নতুন আবিষ্কারের সাথে সম্পর্ক থাকতে হবে এবং বিঝ্ঞানের আবিষ্কার সর্ম্পকে বিস্তারিত জ্ঞান থাকতে হবে। তাই প্রতিযোগীতার বিশ্বে ঠিকে থাকতে হলে শিক্ষার্থীদের আধুনিক শিক্ষা গ্রহন করতে হবে। সমাপনী দিনে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত জাহান পান্না,সহকারী কমিশনার (ভূমি) শামসুজ্জামান,হাটহাজারী প্েরস ক্লাব সভাপতি কেশব কুমার বড়–য়া প্রমুখ।

এর আগে শনিবার দু’দিন ব্যাপী মেলার উদ্বোধন করেন পানি সম্পদ মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।


আরোও সংবাদ