হরতালের আগের দিন রাজধানীতে গাড়িতে আগুন, ভাঙচুর ও বিস্ফোরণ

প্রকাশ:| রবিবার, ৩ নভেম্বর , ২০১৩ সময় ০৮:১৮ অপরাহ্ণ

আগামীকাল সোমবার থেকে শুরু হতে যাওয়া ৬০ ঘণ্টার হরতালের আগের দিন আজ রোববার রাজধানীতে গাড়িতে আগুন, ভাঙচুর ও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।ককটেলের বিস্ফোরণ

মতিঝিলে, শাহজাদপুর, তেজগাঁও, মহাখালী, নয়াপল্টন ও গুলিস্তানে যানবাহনে আগুন এবং সায়েদাবাদের ধলপুর এলাকায় হরতালের সমর্থনে ছাত্রশিবিরের একটি মিছিল থেকে কয়েকটি গাড়ির কাচ ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।
এদিকে কাঁটাবনে বোমা বিস্ফোরণ ঘটাতে গিয়ে আনোয়ার হোসেন (৩০) নামের এক যুবক আহত হয়েছেন। সেখানে অবিস্ফোরিত অবস্থায় পাওয়া একটি বোমা পরে নিষ্ক্রিয় করা হয়।

মতিঝিল

পুলিশের মতিঝিল থানার ভ্রাম্যমাণ পরিদর্শক (পিআই) শেখ আবুল বাশার প্রথম আলো ডটকমকে বলেন, বেলা সোয়া দুইটার দিকে রাজউক ভবনের বিপরীত পাশের সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা একটি বাসে কে বা কারা আগুন দেয়। পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে। এ ছাড়া সকাল ১০টার দিকে মতিঝিলের টিঅ্যান্ডটি কলোনির সামনে দাঁড়িয়ে থাকা জনতা ব্যাংকের একটি স্টাফ বাসে আগুন দেন কয়েকজন যুবক। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ ফায়ার সার্ভিসের সহায়তায় আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। আগুনে বাসের আসনগুলো পুড়ে গেছে। তবে হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেনি। তিনি বলেন, আগামীকালের হরতালের সমর্থনে বাসটিতে আগুন দেওয়া হতে পারে।

নয়াপল্টন

পল্টন থানার পরিদর্শক মো. আলমগীর জানান, বেলা ১টার দিকে বিএনপির অফিসের পাশে হোটেল অরচার্ড প্লাজার সামনে কয়েকজন যুবক একটি প্রাইভেটকারে আগুন দেয়। এতে গাড়িটি পুরোপুরি পুড়ে যায়। এ সময় তাঁরা কয়েকটি ককটেলে বিস্ফোরণ ঘটায়। তবে এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

কাঁটাবন

রমনা অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার রেজাউল করিম প্রথম আলো ডটকমকে জানান, আনোয়ার নামের ওই যুবক সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পাইপের মধ্যে করে শক্তিশালী বোমা নিয়ে কাঁটাবন এলাকায় যান। তিনি ওই এলাকায় পর পর দুটি বোমা ছোড়েন। একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়, আরেকটি অবিস্ফোরিত ছিল। তৃতীয় বোমাটি তাঁর কাছে থাকার সময়ই বিস্ফোরিত হয়। আহত অবস্থায় তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। দুপুর পৌনে ১২টার দিকে বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল বোমাটি নিষ্ক্রিয় করে।

আনোয়ার হোসেনের গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের শ্রীপুরে। তাঁর বাবার নাম হেমায়েত উদ্দিন। আনোয়ার রামপুরার আফতাবনগরে থাকেন। তিনি মৌচাকের আনারকলি মার্কেটের ফুটপাতে কসমেটিকসের ব্যবসা করেন।

মিছিলকারীর একজন ঢিল ছুড়ে বিআরটিসি গাড়ির কাচ ভাঙচুর করে। ছবি: মনিরুল আলমগোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দলের অতিরিক্ত উপকমিশনার ছানোয়ার হোসেন বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে যেসব ককটেল বা বোমা বিস্ফোরণ হয়েছে, তার চেয়ে এই বোমা ভিন্ন। এটি আগেরগুলোর চেয়ে বেশি শক্তিশালী। আশপাশে বেশি লোক থাকলে হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়ত। বোমাটি নিষ্ক্রিয় করার পর এর উপাদান পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ল্যাবে নেওয়া হবে।

সায়েদাবাদ
যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, সকাল সাড়ে নয়টার দিকে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রশিবিরের ৩০-৪০ জন নেতা-কর্মী হরতালের সমর্থনে মিছিল বের করেন। এ সময় তাঁরা বিআরটিসির বাসসহ কয়েকটি গাড়ির কাচ ভাঙচুর করেন। এ ছাড়া রাস্তার একপাশে আগুন ধরিয়ে দেন। পরে পুলিশ গিয়ে ধাওয়া দিয়ে তাঁদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

গুলিস্তান

বেলা তিনটার দিকে গুলিস্তান এলাকায় মেয়র হানিফ উড়ালসড়কের নিচে গুলিস্তান-মাওয়া রুটের ইলিশ পরিবহনের একটি বাসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।সার্জেন্ট আহাদ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নাসির উদ্দিন প্রথম আলো ডটকমকে জানান, বাসটি মাওয়া থেকে গুলিস্তানে পৌঁছানোর পর যাত্রীরা যখন নামছিলেন, তখন যাত্রীবেশে কেউ বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়। প্রথমে চালক টের পাননি। তবে আগুন ছড়িয়ে পড়ার পর আশপাশের লোকজন বাসটির আগুন নেভায়। বাসটি পুরোপুরি পুড়ে না গেলেও এর পেছনের আসনগুলো পুড়ে গেছে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

এ ছাড়াও ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণকক্ষের কর্তব্যরত কর্মকর্তা আতিকুর রহমান জানান, মহাখালী এলাকার হোটেল অবকাশের সামনে একটি মিনিবাসে, শাহজাদপুরে সুবাস্তু নজরভ্যালির সামনে একটি প্রাইভেটকারে এবং তেজগাঁও বিএসটিআইয়ের কার্যালয়ের সামনে রানার গ্রুপের একটি স্টাফ বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।