হজে অনিয়মের দায় মন্ত্রীর ওপর চাপালেন ধর্ম সচিব

প্রকাশ:| রবিবার, ১১ অক্টোবর , ২০১৫ সময় ১১:০৬ অপরাহ্ণ

এবার হজে শেষ সময়ে পাঠানো পাঁচ হাজার হজযাত্রীর বাড়ি ভাড়া নিয়ে অনিয়মের দায় মন্ত্রীর ওপর চাপালেন ধর্ম সচিব চৌধুরী মো. বাবুল হাসান।
তিনি বলেন, ‌‘মন্ত্রী মতিউর রহমান নিজেই সব কিছু করেছেন। ইনচার্জ মিনিস্টার অনেক কিছু করে ফেলেন, তখন কিছু বলার থাকে না।’
ধর্ম সচিব বলেন, ‘সময় তো ছিল না, পাঁচ হাজার হজযাত্রী প্রেরণ সবচেয়ে জরুরি বিষয় ছিল। এটা কিছু অনিয়ম হতেই পারে। এ ব্যাপারে আমার কোনো ‘ইয়ে’ নাই।’
রোববার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সচিব এ কথা জানান।
এবার হজে বাংলাদেশ থেকে এক লাখ দুই হাজার জন যাওয়ার কথা থাকলেও গমনেচ্ছু বেশি হওয়ায় শেষ সময়ে আরও পাঁচ হাজার জনকে পাঠানো হয়।
সৌদি আরবে ওই পাঁচ হাজার জনের বাড়ি ভাড়া থেকে ৬ কোটি টাকা (প্রতি জনের ১২ হাজার টাকা) অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে, যা নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নের মুখে পড়েন ধর্ম সচিব বাবুল হাসান।
এবার হজে বেসরকারি পর্যায়ে যেতে প্রতিজনকে প্রায় ৩ লাখ টাকা খরচ করতে হয়েছে। সরকারিভাবে যে এক হাজার জন গেছেন, তাদের খরচ ছিল কিছুটা কম।
বাড়ি ভাড়ার অনিয়মের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ধর্ম সচিব বলেন, ‘বাড়ি ভাড়া যখন হয় তখন আমি ছিলাম না। মন্ত্রী মহোদয় (সৌদি আরবে) চলে গেলেন। কিন্তু আমি যেহেতু সরকারের সচিব, পারমানেন্ট পোস্ট হোল্ড করি, সে জন্য দেখলাম আমার দায়িত্বটা বেশি। এ জন্য আমি যেতে পারিনি। আমি তিনবার যাওয়ার সময় পরিবর্তন করেছি।’
‘বাড়ি ভাড়া হয়ে যাওয়ার পর আমাদের ভিসা হয়েছে। বাড়ি ভাড়ার জন্য নির্বাচিত ও অনির্বাচিত হাব (হজ এজেন্সিস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ) নেতাদের সমন্বয়ে একটি ১০ সদস্যের কমিটি মন্ত্রী করে দিয়েছেন। তারা বাড়ি ভাড়া করেছেন। তখন বেশি-কম হতেই পারে। আমি যতটুকু জানি, বাড়ি ভাড়ার বিষয়টি নিয়ে বেশি আলাপ করেছিলেন জামাল সাহেব (হাবের সাবেক সভাপতি জামাল উদ্দিন)। সময় তো ছিল না, কিছু অনিয়ম হতেই পারে। সে ব্যাপারে আমার কোনো ইয়া নেই।’
অনিয়ম হলে কোনো ব্যবস্থা নেবেন কি না- এ বিষয়ে সচিব বলেন, ‘আমাদের মন্ত্রী তো এ বিষয়ে কমিটি-টমিটি করে দিয়েছেন। নিহতদের খোঁজটোজের মধ্যে কমিটির সবাইরে লাগাইছে যে বাড়ি ভাড়া কর। কত হওয়ার কথা কি হইছে-টইছে, ওই পর্যায়ে আমি আর আলাপে যাচ্ছি না ভাই। যেহেতু মাননীয় মন্ত্রী সব করেছেন।


আরোও সংবাদ