স্বামীর কু-কীর্তি শুনে সংজ্ঞা হারালো স্ত্রী,বিয়ে পড়ে এক জুটির মুক্তি

প্রকাশ:| বুধবার, ৭ মে , ২০১৪ সময় ০৮:৪২ অপরাহ্ণ

চকরিয়ায় অবৈধ কার্যকালাপরত অবস্থায় গ্রেফতার ১২

মুহাম্মদ জিয়াউদ্দীন ফারুক,চকরিয়াঃ
চকরিয়াস্থ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্ক সড়কের দুপাশের কয়েকটি গেষ্ট হাউস থেকে অবৈধ কার্যকালাপরত ৭ জন পুরুষ ও শিশূসহ ৫ মহিলাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার বিকাল ৩টার দিকে গ্রেফতার করা হয় এই ১২জন নারী পুরুষকে। পরে এক জুটি অভিভাবকের সম্মতিক্রমে রাতে বিয়ে করায় তাদের মুক্তি দিয়ে ১০ জনকে ভ্রাম্যমান আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এদিকে স্ত্রী-সন্তান থাকা স্বত্বেও সদ্য দুবাই থেকে দেশে ফিরে অন্য মেয়ের সাথে অবৈধ মেলামেশাকালে পুলিশের হাতে গ্রেফতারের সংবাদ পেয়ে থানায় ছুটে আসা স্ত্রী হাফসা ওসির কক্ষেই সংজ্ঞা হারিয়ে ঢলে পড়ে। পরে শশ্রুষার পর একটু জ্ঞান ফিরলে তাকে বাড়ী পাঠিয়ে দেয়া হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, চকরিয়ার মালুমঘাট এলাকার শামশুল হকের ছেলে পতিতা ব্যবসার সর্দার খ্যাত মাহবুবুর রহমান(৩৫), মালুমঘাট সোয়াজানিয়া পাড়ার কামাল হোসেনের ছেলে আনোয়ার হোসের(২৭), চকরিয়া পৌরসভার সবুজবাগ এলাকার মৃত মোঃ হোছেনের মেয়ে হাফসা বেগম(২২), কাকারাস্থ পাহাড়তলীর মোঃ কালুর মেয়ে শাহনাজ(৩০), পুরাতন বাস টার্মিনাল এলাকার মৃত শামশুল আলমের শিশু মেয়ে মুন্নি(১২), বরইতলীস্থ পহরচাঁদার মৃত নুরুল হকের মেয়ে হাছিনা আক্তার(৪০), চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া থেকে চকরিয়ায় এসে সবুজবাগ এলাকায় বসবাস করা সদ্য বিদেশ ফেরত খালেকুজ্জামানের ছেলে জালাল আহমদ(৪৫), কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ এলাকার শাহাবউদ্দিনের মেয়ে মাদ্রাসা ছাত্রী কেয়া মনি(১৬), রাতে আপোষে বিয়ে পড়িয়ে মুক্তি পাওয়া চকরিয়া পৌরসভার সাবেক কমিশনার ভাংগারমুখ এলাকার হুমায়ন কবিরের কলেজ পড়–য়া মেয়ে কাউছার জন্নাত সুইটি(২২), চিরি্গংা ইউনিয়নস্থ বুড়িপুকুর এলাকার আবু তাহেরের ছেলে আনসার ভিডিপিতে কর্মরত মিরাজ উদ্দিন(৩০),মহেশখালী ঝাপুয়ার মোস্তাক আহমদের ছেলে মোস্তফা কামাল(২৬) ও বান্দরবান জেলার আলিকদমের মৃত দবির আহমদের মেয়ে প্রিয়া মনি(১৬)।
চকরিয়া থানার ওসি প্রভাষ ধর বলেন, পারিবারিক আপোষে মিরাজ ও সুইটি বিয়েতে সম্মতি দেয়ায় তাদের মুক্তি দিয়ে অপর ১০ জনকে ভ্রাম্যমান আদালতে পাঠানো হয়েছে।
অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া কক্সবাজার সদর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মুহাম্মদ খালেদ-উজ-জামান বলেন, কয়েকদিন পরপর অভিযান চালিয়ে অবৈধ মেলামেশাকালে নারী পুরুষকে গ্রেফতার কালে দেখা গেছে ধৃতদের সিংহভাগই স্কুল মাদ্রাসা পডুয়া অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছাত্রছাত্রী। তাই গেষ্ট হাউস মালিকদের বারবার সতর্ক করা স্বত্বেও দিনের বেলায় ঘন্টা হিসেবে কক্ষ ভাড়া দিয়ে শিক্ষার্থীদের অনৈতিক মেলামেশার সুযোগ দেয়ায় অচিরেই গেষ্ট হাউস গুলো সিলগালা করে দেয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।