স্বাধীনতা পদক নেবেন না ন্যাপ সভাপতি মোজাফফর

প্রকাশ:| বুধবার, ১১ মার্চ , ২০১৫ সময় ১১:৫৭ অপরাহ্ণ

স্বাধীনতা পদক-২০১৫ গ্রহণ করবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। বুধবার বিকেলে ন্যাপের ধানমন্ডির ন্যাপ সভাপতি মোজাফফরকার্যালয় থেকে দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. ইসমাইল হোসেনের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে ন্যাপ সভাপতির বরাত দিয়ে বলা হয়, সত্যিকার অর্থে যাঁরা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলেন, জীবন উৎসর্গ করেছিলেন, তারা কেউই কোনো প্রাপ্তির আশায় মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়নি। আমি সম্মানের সাথে ঘোষিত ‘স্বাধীনতা পদক-২০১৫’ গ্রহণ করতে অপারগতা প্রকাশ করছি। এতে আরও বলা হয়, সম্প্রতি আমাকে ‘স্বাধীনতা পদক-২০১৫’ প্রাপ্তদের তালিকায় মনোনীত করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে নানা কথা ছড়ানো হচ্ছে। পদক দিলে বা নিলেই সম্মানিত হয়, এ দৃষ্টিভঙ্গিতে আমি বিশ্বাসী নই। বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, মানুষ তার কর্মগুণে সম্মানিত হয়। নিছক দেশপ্রেম, মানবতাবোধে উদ্বোদ্ধ হয়েই আমি রাজনীতিতে এসেছিলাম। কোনো পদক বা পদ-পদবী আমাকে কোনোভাবেই উদ্বোদ্ধ করে নি। নিতান্তই রাজনৈতিক কর্তব্যবোধে শত প্রতিকূল অবস্থা মোকাবেলা করে আমি আমার দায়িত্ব পালন করেছি মাত্র। একইসঙ্গে তিনি স্বাধীনতার পদক প্রাপ্তির বিষয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি না করতে অনুরোধ জানান। উল্লেখ্য, জাতীয় পর্যায়ে গৌরবোজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ আট বিশিষ্ট ব্যক্তিকে ২০১৫ সালের স্বাধীনতা পুরস্কার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। পদকপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন- স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ক্ষেত্রে বৃহত্তর সিলেটে মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনায় বিশেষ ভূমিকা পালনকারী মরহুম কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী। ১৯৭১ সালে রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি হিসেবে কর্মরত অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধে সহায়তা প্রদানের জন্য পাকিস্তানি-হানাদার বাহিনীর হাতে শাহাদাতবরণকারী মামুন মাহমুদ। ১৯৭১ সালে ওয়াশিংটনস্থ পাকিস্তান দূতাবাসে কর্মরত অবস্থায় বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশকারী এবং প্রবাসে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জনমত সংগঠক, প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী মরহুম শাহ্ এ এম এস কিবরিয়া। প্রবীণ রাজনীতিবিদ এবং মুক্তিযুদ্ধকালে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের উপদেষ্টা অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। সাহিত্য ক্ষেত্রে বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান। সংস্কৃতি ক্ষেত্রে যশস্বী চলচ্চিত্র অভিনেতা আব্দুর রাজ্জাক। গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ক্ষেত্রে স্বনামধন্য কৃষি গবেষক ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রাক্তন মহাপরিচালক ড. মোহাম্মদ হোসেন মন্ডল এবং সাংবাদিকতা ক্ষেত্রে প্রথিতযশা সাংবাদিক প্রয়াত সন্তোষ গুপ্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ২৫ মার্চ ঢাকার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ২০১৫ সালের স্বধীনতা পদক প্রদান করবেন।