স্বর্ণ চোরাচালনের হোতা কারা রহস্য উদঘাটিত হয়না

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ১১:৫৮ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমান বন্দরে র্স্বণ সহ ধরা পড়া চক্রটির অধিকাংশ রাউজানের

নিউজচিটাগাং২৪.কম : চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমান বন্দরে র্স্বণ সহ ধরা পড়া চক্রটির অধিকাংশ রাউজানের বাসিন্দ্বা । একের পর এক স্বর্ণ সহ ধরা পড়লেও আসল স্বর্ণ চোরাচালনের হোতা কারা রহস্য উদঘাটিত হয়না কোন সময়ে, ধরা পড়েনি কোন সময়ে । স্বর্ণপাচারকারী গডফাদারের থাকেন আড়লে । রাউজানের পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের ইউনিয়নের মগদাই,কাগতিয়া,বদুমুন্সিপাড়া, পুর্ব গুজরা ইউনিয়নের আধারমানিক, বড়ঠাকুর পাড়া, বাগোয়ান ইউনিয়নের গশ্চি, পাচঁখাইন, নোাযাপাড়া ইউনিয়নের পটিয়া পাড়া, সামমাহলদার পাড়া, গুহ পাড়া, শেখ পাড়া উরকির চর ইউনিয়নের মিরা পাড়া, হারপাড়া, মইশকরম, বইজ্যাখালী, উরকির চর এলাকা সহ রাউজানের বিভিন্ন এলাকার অর্ধ লক্ষ প্রবাসী মধ্যপ্রাচ্যের দুবাই, আবুদাবী, সারজাহ, আসমান, রাস আল কাইমা, ওমানের সালালা, রুই, সাহাম, বরকা, বেরহমী, সৌদি আরবের মক্কা, মদিনা জেদ্দা, রিয়াদ. কাতার, বাহরাইন, দোহা এলাকায় কর্মরত রয়েছে । এসব প্রবাসীদের মধ্যে হাতে গোনা কয়েকজন মধ্যপ্রাচ্যে ট্রাভেল এজেন্সি গড়ে তোলেছে । মধ্যপ্রাচ্যের মধ্যে প্রতিষ্টিত ট্রাভেল এজেন্সির মালিকেরা ট্রাভের ব্যবসার সুবাধে প্রবাসীদের সাথে সম্পর্ক রয়েছে । অপরদিকে ট্রাভেল এজন্সির ব্যবসায়ীদেও সাথে বাংলাদেশ বর্হিগমন বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে সম্পর্ক গড়ে উঠেছে । মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরর্ত প্রবাসীদের আয়ের টাকা ট্রাভেল এজেন্সির মালিকেরা নিয়ে এই টাকা হুন্ডির মাধ্যমে দেশে প্রেরণ করেন । হুন্ডির ব্যবসার আড়ালে ট্রাভেল এজেন্সির মালিকেরা মধ্যপ্রাচ্য থেকে স্বর্ণ পাচার করার সাথে জড়িত । প্রবাসীদের মধ্যে রাউজানের প্রবাসীরা দেশে ফেরার সময়ে হুন্ডি ব্যবসায়ীরা দেশে আসা প্রবাসীদের বিমানের টিকেট, নগদ টাকা হাতে গুজে দিয়ে তাদের র্স্বণ ভর্তি প্যাকেট লাগেজ ধরিয়ে দেয় । অসহায় প্রবাসী যারা মধ্যপ্রাচ্যে প্রবাসে গিয়ে তেমন আয় রোজগার করতে না পেরে হুন্ডি ব্যবসায়ীদের ফাদেঁ পড়তে হয় । হুন্ডি ব্যবসায়ীদের ফাদেঁ পড়ে যে সব প্রবাসী তাদের দেওয়া র্স্বণ নিয়ে দেশে আসলে কেউ বিমান বন্দরের বর্হিগমন বিভাগ এর কর্মকর্তাদের যোগসাজছে পার পেয়ে যায় । আবার র্স্বণ নিয়ে ধরা পড়ে অনেকেই । স্বর্ণের চোরাচালানের প্রধান হোতারা কখনো ধরা পড়েনা ।তারা ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে হুন্ডি ব্যবসা র্স্বণ চোরাচালান করে আসছে বীরদর্পে ।সম্প্রতি রাউজানের মগদাই এলাকার আবদুল ছালামের পুত্র নাহিদ. ইউছুপের পুত্র মাঈন উদ্দিন চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমান বন্দরে বিপুল পরিমাণ র্স্বণ সহ ধরা পড়ে। এই দুই প্রবাসীর বাড়ীতে রাউজানের মগদাই এলাকায় গিয়ে জানা গেছে, এলাকার হারুন, রাউজানের পুর্ব গুজরার ইসহাক, নোয়াপাড়ার শীর্ষ সন্ত্রাসী ফজল হক, ও ফজল হকের ভাই জানে আলম হুন্ডি ব্যবসারসাথে জড়িত । এই হুন্ডি ব্যবসায়ীরা এলাকার দরিদ্র মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসীদের ব্যবহার করে মধ্যপ্রাচ্য থেকে র্স্বণ পাচার কাজে ব্যবহার করছে বলে বিদেশ ফেরৎ প্রবাসী ইউছুপ জানান । রাউজানের মগদাই এলাকার দুই প্রবাসী চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমান বন্দরে স্বর্ণসহ ধরা পড়া দুই প্রবাসীর ব্যাপারে কোন তথ্য আছে কিনা রাউজান থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, এখনো র্স্বণ সহ ধরা পড়া প্রবাসীর ব্যাপারে রাউজান থানাকে কিছুই জানানো হয়নি ।