স্ত্রী নির্যাতন; বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মচারী গ্রেফতার

প্রকাশ:| শনিবার, ৪ এপ্রিল , ২০১৫ সময় ০৮:০০ অপরাহ্ণ

বান্দরবান প্রতিনিধি॥
বান্দরবানে যৌতুকের দাবীতে স্ত্রী’কে ঘরের ভিতরে আটকে রেখে নির্যাতনের ঘটনায় বিদ্যুৎ বিভাগের এক কর্মচারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় দীর্ঘ ছয়মাস ধরে ঘরের বন্দি করে রাখা বধু স্ত্রী নায়মা আফ্রজেন (২৫) উদ্ধার করা হয়েছে। আজ শনিবার দুপুরে জেলা শহরের নিউগুলশানস্থ বিদ্যুৎ বিভাগের সরকারী কোয়ার্টারে এই ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, দীর্ঘ ছয় মাসেরও অধিক সময় ধরে নিউগুলশানস্থ বিদ্যুৎ বিভাগের সরকারী কোয়ার্টারের একটি বাসায় স্ত্রী নায়মা আফ্রজেন’কে (২৫) আটকে রেখে শারীরিক-মানষিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে স্বামী বিদ্যুৎ বিভাগের লাইনম্যান সাগর চৌধুরী (২৬)। যৌতুকের দাবীতে স্ত্রী’কে প্রায়শ মারধর এবং খেতে খাবার দেয়া হতো না অভিযোগ মেয়ের পরিবারের। নির্যাতনের বিষয়টি জানতে পেরে মেয়ের মা লুৎফা বেগম শুক্রবাররাতে বান্দরবান সদর থানায় একটি নারী নির্যাতন মামলা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ মেয়ের পরিবারের সঙ্গে ঘটনাস্থলে গিয়ে অসুস্থ অবস্থায় মেয়েকে উদ্ধার করে। এসময় স্বামী সাগর’কে গ্রেফতার করে পুলিশ। মামলার বাদী মেয়ের মা লুৎফা বেগম ও ছোটভাই ইকবাল হোসেন বলেন, ২০১১ সালের ১৪ এপ্রিল সাগরের সঙ্গে মেয়ে নায়মা’র বিয়ে হয়। বিয়ের পর অন্যজনের সঙ্গে স্বামীর গোপন সম্পর্কের প্রমাণ পাওয়ায় স্বামীর ঘর ছেড়ে ২০১২ সালে বাপের বাড়িতে চলে যায় নায়মা। প্রায় চার মাস দুজনের মধ্যে কোনো সম্পর্ক ছিলোনা। দীর্ঘদিন পর সাগর ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চাইলে নায়মা আবারও তার কাছে ফিরে যান। তারপর কিছুদিন ভালো সম্পর্ক চলে কুমিল্লায়। সেখান থেকে বান্দরবান আসার পর পরিবারের সঙ্গে মেয়ের কোনো যোগাযোগ ছিলনা, কিন্তু যৌতুকের দাবীতে নির্যাতনের ঘটনা বিভিন্নভাবে জেনেছি। একটি মোটর সাইকেল এবং নগদ ২ লক্ষ টাকা দাবী করছে জামাই সাগর। যৌতুকের বিষয়টি পরিবারকে না জানানোর কারণে নায়মা’কে শারীরিক-মানুষিকভাবে বেশি নির্যাতন করা হয়েছে অভিযোগ তাদের। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সায়মা’কে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম নিয়ে যাচ্ছি। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ আহম্মেদ জানান, নারী নির্যাতনের মামলায় বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মচারী সাগর’কে গ্রেফতার করা হয়েছে। অফিস কলোনী থেকে স্ত্রী’কে অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। তার শরীরের নির্যাতনের বিভিন্ন চিহ্ন পাওয়া গেছে। ঘটনাটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।