স্ত্রীর গায়ে আগুন লাগিয়ে খুন

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৫ জুন , ২০১৫ সময় ১১:৪২ অপরাহ্ণ

স্ত্রীর গায়ে আগুন লাগিয়ে খুন করার অভিযোগ উঠেছে এক পাষণ্ড স্বামীর বিরুদ্ধে। নিহতের নাম জান্নাতুল নাঈমা(১৮)। রোববার সীতাকুণ্ডের বারআউলিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত স্বামী মো. হাসান মাসুদ(২৩) পলাতক।

বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ওই গৃহবধুর মৃত্যু হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, দুই মাস আগে সাতকানিয়া থানার চরখাগড়িয়া গ্রামের জান্নাতুল নাঈমার সঙ্গে একই গ্রামের হাসান মাসুদের বিয়ে হয়। হাসান মাসুদ পেশায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী। বিয়ের পর স্বামী-স্ত্রী দুইজনই সীতাকুণ্ড থানার বারআউলিয়া এলাকার দুবাইওয়ালা শফির ভবনে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন।

বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য স্বামী-স্ত্রী’র মধ্যে গণ্ডগোল লেগেই থাকত। ঘটনার আগে কয়েকদিন ধরেই অভিযুক্ত হাসান মাসুদ বাপের বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে আসার জন্য স্ত্রীর কাছে জোরাজুরি করছিলেন। কিন্তু জান্নাতুল নাঈম রাজী না হওয়ায় তাকে মারধরও করা হয়।

রোববার (৩১মে) সকালেও জান্নাতুল নাঈমকে মারধর করা হয়। ওইদিন বেলা ১১টার দিকে ঘরের দরজা বন্ধ করে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এসময় জান্নাতুল নাঈম চিৎকার করলে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে বাসার দরজা ভেঙ্গে ফেলেন। এসময় শরীরে আগুন নিয়ে দৌঁড়ে পুকুরে লাফ দেন জান্নাতুল নাঈম। প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

আবদুল মালেক খোকন বলেন,‘বিয়ের পর থেকে ছোট বোনের কাছ থেকে তার স্বামী পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে আসছিল। এ টাকা না দেয়ায় আমার বোনকে বার বার নির্যাতন করেছে সে। সর্বশেষ রোববার তাকে মারধর করে তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। ’

বার্ন অ্যান্ড প্ল্যাস্টিক সার্জারি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন খালেদ বলেন,‘জান্নাতুল নাঈমের শরীরের ৪৫ শতাংশ পুড়ে গেছে। বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে তার মৃত্যু হয়।’

সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইফতেখার হাসান বলেন,‘গৃহবধুর গায়ে আগুন দেওয়ার ঘটনায় বৃহস্পতিবার মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত স্বামী হাসান মাসুদ পলাতক। ঘটনা শুনার পর থেকে তাকে ধরার জন্য বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালানো হয়েছে। শুনেছি বৃহস্পতিবার রাতেই ওই গৃহবধু মারা গেছেন। এখন মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তর করা হবে।’