সৌর বিদ্যুতে ৪৩০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে স্কাইপাওয়ার

প্রকাশ:| শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর , ২০১৫ সময় ০৮:২৩ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশের সৌর বিদ্যুৎ খাতে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা (৪৩০ কোটি ডলার) বিনিয়োগ করবে কানাডাভিত্তিক বহুজাতিক স্কাইপাওয়ার গ্লোবাল নামের একটি প্রতিষ্ঠান। সৌর শক্তি উৎপাদনে বিশ্বের বৃহত্তম এবং সবচেয়ে সফল প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি স্কাইপাওয়ার গ্লোবালের প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কেরি এডলার এ কথা জানান।

গতকাল শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের একটি হোটেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বিজনেস কাউন্সিল ফর ইন্টারন্যাশনাল আন্ডারস্ট্যান্ডিংয়ের (বিসিআইইউ) এক গোলটেবিল বৈঠকে এ ঘোষণা দেন কেরি এডলার। খবর বাসসের।
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম জানান, আগামী চার বছরের মধ্যে বাংলাদেশে দুই হাজার (২০০০) মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য একটি প্ল্যান্ট স্থাপনে বিনিয়োগ করতে প্রতিষ্ঠানটি সম্মত হয়েছে। টুঙ্গিপাড়ায় প্রতিষ্ঠানের কার্যালয় স্থাপন করা হবে। কোম্পানি ৪২ হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবে। এ ছাড়া, বাংলাদেশের ১৫ লাখ বাড়িতে ব্যবহার করা যাবে এমন বাতি দেবে এই কোম্পানি।
সভায় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে বিনিয়োগ করার জন্য ব্যবসায়ীদের আমন্ত্রণ জানিয়ে বাংলাদেশের বিকাশমান বিনিয়োগ সম্ভাবনাগুলোর কথা তুলে ধরেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশের পণ্যের শুল্ক ও কোটামুক্ত প্রবেশাধিকার পেতে সমর্থন করার জন্য বিজনেস কাউন্সিল ফর ইন্টারন্যাশনাল আন্ডারস্ট্যান্ডিং (বিসিআইইউ)-এর প্রতি আহ্বান জানান।
শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা ও মৌলিক চাহিদা নিশ্চিত করেছে। ‘আমরা এখন অবকাঠামো উন্নয়ন এবং কীভাবে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা যায় তাতে গুরুত্ব দিচ্ছি।’ তিনি বলেন, উন্নয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশের প্রতিটি খাতে এখন দেশি-বিদেশি উৎস থেকে বিনিয়োগের প্রয়োজন এবং বিশেষ করে আইসিটি, গ্যাস ও বিদ্যুৎ খাতকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। তাই, বাংলাদেশ বিদেশি বিনিয়োগের জন্য দরজা খোলা রাখা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাহাজ নির্মাণ, ওষুধ, পাট ও পাটজাত পণ্য উৎপাদন, হালকা প্রকৌশল ও সাগর সম্পদ অন্বেষণ খাতসমূহে বাংলাদেশে বিনিয়োগের বিরাট সুযোগ রয়েছে। তিনি বলেন, ‘বিরোধ নিষ্পত্তির পরে ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নির্ধারণ হওয়ায় সরকার নীল অর্থনীতিতে গুরুত্ব দিচ্ছে।’
সৌর বিদ্যুশেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার ব্যবসা করছে না, বরং প্রকৃত উদ্যোক্তা ও কোম্পানিদের ব্যবসা করার ভালো সুযোগ করে দিতে কাজ করে যাচ্ছে।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম আলোচনায় অংশ নেন।
বৈঠকে বিশ্বের ২৭টি বৃহৎ কোম্পানির প্রধান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। কাউন্সিল ফর ইন্টারন্যাশনাল আন্ডারস্ট্যান্ডিং (বিসিআইইউ)-এর প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পিটার জে টিচানস্কি, স্কাইপাওয়ার গ্লোবাল-এর প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কেরি এডলার, আমেরিকান পাওয়ার করপোরেশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট সঞ্জয় আগরওয়াল, জিপায়ার ম্যানেজমেন্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা টমাস বেরি, মাস্টারকার্ড ইন্টারন্যাশনালের এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট এডওয়ার্ড ব্রান্ডট এবং এক্সেলারেট এনার্জির প্রধান উন্নয়ন কর্মকর্তা ড্যানিয়েল বাসটোস গোলটেবিল আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা মশিউর রহমান ও গওহর রিজভী, যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম জিয়াউদ্দিন, জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি আবদুল মোমেন ও এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমদসহ অন্যরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম জানান, বাংলাদেশে বিনিয়োগের সম্ভাবনা এবং সুযোগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজনেস কাউন্সিল ফর ইন্টারন্যাশনাল আন্ডারস্ট্যান্ডিংর সঙ্গে একটি ব্যাপক ভিত্তিক আলোচনা করেছেন।