সেনিটেশন ও ড্রেনেজ উন্নয়ন পরিকল্পনা এবং মাষ্টার প্লান

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই , ২০১৫ সময় ০৮:২২ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম নগরীতে বিশ্ব ব্যাংকের আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় সেনিটেশন ও ড্রেনেজ উন্নয়ন পরিকল্পনা এবং মাষ্টার প্লান হতে যাচ্ছে। এ বিষয়ে চট্টগ্রাম ওয়াসা প্রজেক্ট ডিরেক্টর নিয়োগ দিয়ে কর্ম পরিকল্পনা প্রনয়নে কাজ করছে। ৯ জুলাই ২০১৫খ্রি. বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম ওয়াসার বোর্ড রুমে এ সংক্রান্ত বিষয়ক এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সেনিটেশন ও ড্রেনেজ উন্নয়ন পরিকল্পনা এবং মাষ্টার প্লান এর সাথে সংশ্লিষ্ট চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন, চট্টগ্রাম ওয়াসা, পানি উন্নয়ন বোর্ড, পরিবেশ, চট্টগ্রাম বন্দর, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কতৃপক্ষ, রেলওয়ে কতৃপক্ষ সহ নগরীর বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিগণ তাদের মতামত তুলে ধরেন। সভার শুরুতে পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে অত্র মাষ্টার প্লানের বিভিন্ন দিক তুলে ধরা হয়। প্রস্তুতি সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে এম ফজল্লুাহ। প্রস্তুতি সভায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন সেনিটেশন ও ড্রেনেজ উন্নয়ন পরিকল্পনা এবং মাষ্টার প্লান এর গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের অনেক উন্নত দেশ- বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগি হতে চায়।

বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগী। ইতিমধ্যে ওয়াসার পানি ব্যবস্থা উন্নয়নে জাইকা ও বিশ্ব ব্যাংক প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। মেয়র ওয়াসার দেয় তথ্য তুলে ধরে বলেন, জাইকার ২টি প্রজেক্টে ২২ হাজার ৫শত কোটি টাকার এবং বিশ্ব ব্যাংক ১ হাজার কোটি টাকার পানি সরবরাহ প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করছে। নতুন আরো একটি প্রজেক্ট এর সম্ভাব্যতা যাচাই করা হচ্ছে। এ সকল প্রজেক্টগুলো বাস্তবায়িত হলে চট্টগ্রামবাসীর পানির চাহিদা পুরন হবে। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের সামগ্রীক উন্নয়ন ও সমস্যা নির্ণয় করে কর্ম পরিকল্পনা গ্রহন ও বাস্তবায়ন করা হবে। মেয়র বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে কর্ণফুলী নদী ড্রেনিং করা, সকল খাল খনন করা, কর্ণফুলী নদীর সাথে সংশ্লিষ্ট খালে সুইচ গেইট নির্মাণ করার পরিকল্পনা গ্রহন ও বাস্তবায়ন করা হবে। তিনি বলেন, নগরীর সড়ক, বাইলেইন, শাখা সড়ক ও ভিআইপি সড়ক সমূহ পর্যায়ক্রমে কংক্রিটের রাস্তায় উন্নত করা হবে। মেয়র বলেন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আধুনিকায়ন করা হবে, গণ সচেতনতা সৃষ্টি করা হবে।

মেয়র নগরীর সরকারী, আধা সরকারী, স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার সাথে সমন্বয় সাধনের উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতায় নগরীকে আধুনিক নগরীতে রূপ দেয়া হবে। প্রস্তুতি সভায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মোহাম্মদ শফিউল আলম, সচিব রশিদ আহমদ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এয়াকুব নবী, মো. রফিকুল ইসলাম, স্থপতি এ কে এম রেজাউ করিম, নির্বাহী প্রকৌশলী মনিরুল হুদা, কামরুল ইসলাম, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ শফিকুল মন্নান সিদ্দিকী, জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবদুর রহিম, চট্টগ্রাম ওয়াসার সচিব মোহাম্মদ সামসুদ্দোহা, ডিএমডি রতন কুমার সরকার, মাহমুদ আবদুল আওয়াল, প্রধান প্রকৌশলী জানে আলম ভূইয়া, চট্টগ্রাম বন্দর কতৃপক্ষের প্রধান প্রকৌশলী মাহমদুল হাসান খান, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কতৃপক্ষের চীফ প্লানার সাহিনুল ইসলাম খান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আমান উল্লাহ, পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক শেখ সালেহ আহমদ সহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা গণ উপস্থিত ছিলেন।