সেনা মোতায়েনের মতো কোনো পরিস্থিতি হয়নি

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর , ২০১৫ সময় ১১:৫৫ অপরাহ্ণ

আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় পৌর নির্বাচনে বিএনপির সেনা মোতায়েনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ বলেছেন, সেনা মোতায়েনের মতো কোনো পরিস্থিতি হয়নি। আমরা বিভিন্ন
জায়গা থেকে যে তথ্য পেয়েছি, তাতে এমন কোনা খারাপ আলামত নেই, এমন পরিস্থিতি নেই যে সেনা মোতায়েন করতে হবে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে নিজ কার্যালয় থেকে বের হওয়ার পথে অপেক্ষমান সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন সিইসি।

এরআগে বিকেলে সিইসির সঙ্গে দেখা করে নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের দাবি জানিয়ে আসে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল। প্রায় ঘণ্টাখানেক সিইসির সঙ্গে কথা বলে বেরিয়ে এসে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান
সাংবাদিকদের বলেন, পৌর নির্বাচন ঘিরে সহিংসতা বৃদ্ধি পাওয়ায় সেনা মোতায়েনের দাবি জানানো হয়েছে। মানুষ যাতে নির্ভয়ে ভোট দিতে যেতে পারেন সেজন্যই সেনা মোতায়েনের দাবি জানানো হয়েছে।

তিনি বলেন, গত দুই সপ্তাহে পৌরসভাগুলোতে ব্যাপক সহিংসতা হয়েছে। এজন্য সিইসির কাছে সেনা মোতায়েনের অনুরোধ করা হয়েছে।

বিএনপি আজ এ দাবি জানালেও সিইসি অবশ্য আগেও বলেছিল, সারাদেশের পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে তাই সেনা মোতায়েনের দরকার নেই।

কাজী রকিব আজ বলেন, পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছি। গোয়েন্দা সংস্থা ও অন্যদের প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখেছি, এখনো পর্যন্ত (সেনা মোতায়েনের মতো) ওরকম পরিস্থিতি বা খারাপ আলামত সৃষ্টি হয়নি।

কয়েকটি এলাকায় হামলা-সংঘর্ষের ঘটনাগুলো পর্যালোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা নিয়মিত পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছি। মাঠ পর্যায় থেকে প্রতিবেদনও আসছে। তবে ওরকম (সেনা মোতায়েনের মতো) পরিস্থিতি হয়নি। জনগণ যাতে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারে সে ব্যবস্থা করা হবে। সে বিষয়ে সচেষ্ট আছি, থাকবো।

সিইসি আরো বলেন, সবাই একসঙ্গে বসে হাসবেন, ঠাট্টা করবেন, পলিটিক্সও করবেন আর কারো মাথায় বাড়ি দেবেন না- দুর্ভাগ্য যে এখনো আমাদের এ সংস্কৃতি গড়ে ওঠেনি। আশা করি, আগামীতে রাজনীতির গুণগত মান আসবে, ট্রাডিশনের
উন্নতি হবে।

সিইসি জানান, সব প্রার্থী সুন্দরভাবে স্বাচ্ছন্দ্যে প্রচারণা চালাচ্ছেন। নিয়মিতভাবে নির্বাহী হাকিমরা বিধিলঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে জরিমানা করছেন। সেখানে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীও রয়েছে।

সবার জন্যে সমান সুযোগ তৈরিতে নিরপেক্ষভাবে মাঠ কর্মকর্তাদের কাজ করার তাগিদ দেয়া হয়েছে বলেও জানান সিইসি।

সাংবাদিকদের ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে কাজী রকিব বলেন, আমি পরিষ্কার বলে দিয়েছি- যাদের বৈধ কার্ড দেব, যাদের আমরা অ্যালাউ করবো, তারা ভোটকেন্দ্রে ঢুকবেন। কিন্তু আপনারা গোপন কক্ষের দিকে ক্যামেরা তাক করবেন না, ওদিকে যাবেন না। আপনার বেশিক্ষণ থাকবেনও না। আপনারা আপনাদের দায়িত্ব পালন করে চলে আসবেন। যাতে করে অন্যরা তাদের দায়িত্ব পালন করতে পারে।


আরোও সংবাদ