সেনা টহলের মধ্যেও মিরসরাই ও সীতাকুণ্ডে ৫টি পণ্যবাহী গাড়িতে আগুন

প্রকাশ:| সোমবার, ২৩ ডিসেম্বর , ২০১৩ সময় ১১:২২ অপরাহ্ণ

গাড়িতে আগুনঢাকা-চট্টগ্রাম মহসড়কে সেনাবাহিনীর টহলের মধ্যেও মিরসরাই ও সীতাকুণ্ডে চারটি পণ্যবাহী গাড়িতে আগুন দিয়েছে অবরোধকারীরা। এছাড়া নগরীর বহদ্দারহাট এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ৮টার মধ্যে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, সন্ধ্যায় ১০ থেকে ১৫ জনের একটি দল মহাসড়কে চলাচলরত গাড়িতে পাথর ছুড়ে ৭ থেকে ৮টি গাড়ির কাঁচ ভেঙে দেয়। এসময় অন্য গাড়িগুলো গতি কমালে ধান বোঝাই চট্টগ্রামগামী একটি ট্রাক (চট্ট মেট্রো ড ০৪২৯) ও ঢাকাগামী একটি কার্ভাডভ্যানে (ঢাকা মেট্রো ট ১৬-৩০৪১) আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায় তারা। গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের সময় মহাসড়কে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো টহল ছিল না।

কার্ভাডভ্যানের চালক মো. শফি জানান, গাড়িতে সুতা নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয় যাচ্ছিলেন।

ট্রাকচালক মো. শাহীন জানান, ধান বোঝাই করে বারইয়ারহাট থেকে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী নিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি।

মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইমতিয়াজ ভূঁঞা জানান, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টহল থাকলেও দুর্বৃত্তরা ফাঁকি দিয়ে গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে।

এদিকে রাত ৮টার দিকে নগরীর বহদ্দারহাট মসজিদের সামনে একটি যাত্রীবাহী বাস ও অলংকার মোড়ে একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দিয়েছে অবরোধকারীরা।

নগরীর পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জাফর ওমর ফারুক জানান, মুরাদপুরের দিক থেকে বহদ্দারহাটগামী একটি যাত্রীবাহী বাস বহদ্দারহাট মসজিদের সামনে পৌঁছলে গাড়িতে থাকা যাত্রীরা পেট্রোল ঢেলে আগুন দেয়ার চেষ্টা করে। তবে অন্য যাত্রী ও চালক দ্রুত গাড়ির আগুন নিভিয়ে ফেলে। ঘটনার পরপর পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও চালকসহ কাউকে পাওয়া যায়নি।

অবরোধকারীরা বহদ্দারহাট মোড়ে আতঙ্ক সৃষ্টির জন্যই একাজ করেছে বলে পুলিশ ধারণা করছে। এদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সীতাকুণ্ডের বটতলা এলাকায় দু’টি ট্রাকে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।