সেনাবাহিনী দেশ ও জাতির আস্থার প্রতীক

প্রকাশ:| বুধবার, ২৯ মার্চ , ২০১৭ সময় ১০:৪৫ অপরাহ্ণ

ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে মেজর জহির

সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও (কক্সবাজার)প্রতিনিধি: ইচ্ছা, যোগ্যতা ও ইতিবাচক মনোভাব থাকলে সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা হওয়া অসম্ভব কিছু নয়। সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়ে দেশ ও জাতির সেবায় নিয়োজিত হওয়ার সুযোগ রয়েছে। এ বাহিনীতে ভর্তির পরও বিভিন্ন বিষয় ও বিভাগে দেশে-বিদেশে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ রয়েছে। দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও অখন্ডতা রক্ষার পাশাপাশি দুর্যোগ ও উন্নয়নসহ যে কোন জাতীয় প্রয়োজনে সেনাবাহিনী দেশের সবচেয়ে নির্ভরশীল সংগঠন। আর এ বাহিনীতে চাকুরী হলে অবসরের পরও শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আবাসন, খাদ্য ও সঞ্চয়ের ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত ও পরিবার-পরিজনের ব্যাপক সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রয়েছে। যেখানে অন্য সব বাহিনী ব্যর্থতার পরিচয় দেয় সেখানে সেনাবাহিনী আন্তরিকতা ও পেশাদারিত্বের কারণে সাফল্যের স্বর্ণশিখরে পৌঁছায়। ২৯ মার্চ দুপুরে কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় নবনির্মিত হলঘরে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেজর মো. জহিরুল ইসলাম উপরোক্ত প্রত্যাশার কথা ব্যক্ত করেন। বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের সেনাবাহিনীতে যোগদানে উদ্বুদ্ধকরণ উপলক্ষ্যে আয়োজিত এ কার্যক্রমে তিনি ভিডিও চিত্র উপস্থাপনের মাধ্যমে সোবাহিনীর সার্বিক কার্যক্রম সংক্ষেপে তুলে ধরেন। শেষে এ ধরণের উদ্যোগ নেয়ায় সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন প্রধান শিক্ষক খুরশীদুল জান্নাত। ৯ম- ১০ম শ্রেণির কয়েকশ ছাত্রছাত্রীর অংশগ্রহণে এ প্রোগ্রামটির আয়োজন করেন সেনাবাহিনীর রামু ১০ম পদাতিক ডিভিশনের অধীন চকরিয়া আর্মি ক্যাম্প। সংশ্লিষ্ট ক্যাম্পের ২ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারীর ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত এ উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রমে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র শিক্ষক মোহাম্মদ রশিদ, এস.এম. তারেক, মো. ইবরাহিম, মোহাম্মদ আলম, মোজাম্মেল হক প্রমুখ। আয়োজকদের পক্ষে ছিলেন সেনা সদস্য আল আমিন, মাঈনুদ্দীন, জুলফিকার, মেহেদী প্রমুখ।
সেশন পরিচালনাকারী সেনা কর্মকর্তা আরো জানান, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে নানা ঝুঁকিপূর্ণ কাজে পুরুষের পাশাপাশি নারী সৈনিকরা যুগপৎ ভুমিকা রাখছে। যা ইতিমধ্যে দেশবাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। তিনি নারীদের সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়ে সুশৃঙ্খল ও স্বচ্ছল জীবন-যাপনের আহবান জানান। প্রধান শিক্ষক দেশ ও জাতির আস্থার প্রতীক দেশ প্রেমিক সেনাবাহিনীর নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে ভবিষ্যতে তার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এ ধরণের আরো উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রম পরিচালনার অনুরোধ জানান। শেষে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন এ মেজর।


আরোও সংবাদ