সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে সংশ্রয় প্রকাশ করলেন মীর নাসির

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর , ২০১৫ সময় ১১:০৪ অপরাহ্ণ

আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে চট্রগ্রামের ১০টি পৌরসভায় কয়েকটি প্রার্থীর উপর হামলা,গণসংযোগকালে বাধাদান, প্রার্থীর লোকজনকে ভয়ভীতি প্রদানের অভিযোগ করে সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে সংশ্রয় প্রকাশ করে বক্তব্য রাখলেন মনিটরিং সেলের আহবায়ক মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বলেছেন, যেভাবে পৌরসভা নির্বাচনের বিভিন্ন এলাকায় আওয়ামী দলীয় সন্ত্রাসীরা বিএনপি প্রার্থীদের উপর হামলা করছে, প্রচারনায় বাধা দান করা হচ্ছে তা নজির বিহীন। এ কারনে পৌরসভা নির্বাচন সুষ্ঠু, অর্থবহ ও গ্রহনযোগ্য করতে চাইলে সেনাবাহিনী মোতায়নের কোন বিকল্প নেই।

মঙ্গলবার তার চট্টেশ্বরী রোডস্থ বাসভবনে বিএনপি ও ২০দলীয় ঐক্যজোট নেতাদের সাথে এক সভায় তিনি এ কথা বলেন।

মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বলেন, বিগত কয়েকদিনে বারৈয়ারহাট পৌরসভা বিএনপি’র দুই নেতা লাঞ্চিত হন। ২০শে ডিসেম্বর লাঞ্চিত হন বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী মঈনুদ্দীন লিটন এর স্ত্রী, হামলার শিকার হন প্রার্থীর ভাই সহ ৫জন কর্মী। প্রচারনার সময় সন্ত্রাসীরা মাইক ভাংচুর করে। মীরসরাই পৌরসভায় বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী জেডএম রফিকুল ইসলাম পারভেজের নির্বাচনী প্রচারনায় ব্যাবহৃত ২টি গাড়ীতে সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়, ১টি সিএনজি  অটোরিকসা ভাংচুর করে। এভাবে তারা এক ভয়ানক ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করেছে।

মীরসরাই বারৈয়ারহাট বিএনপি দলীয় প্রার্থীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান নুরুল আমিন এর উপর হামলা চালায়, গুরুতর অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এমনকি তার টাকা ও মোবাইল ফোন ও ছিনিয়ে নেয়া হয়। অন্যদিকে আর এক বিএনপি প্রার্থীর সমন্বয়কারী হাজী জালালউদ্দিনকে লাঞ্চিত করে জোরপূর্বক তাকে বাসে তুলে দিয়ে এলাকা ত্যাগে বাধ্য করা হয়।

একই ভাবে সীতাকুণ্ড, পটিয়া, চন্দনাইশ ও সাতকানিয়ায় বিএনপি প্রার্থীদের এ ধরনের  পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। প্রত্রিকায় এসব সংবাদ ফলাও করে প্রচার করা হলেও নির্বাচন কমিশন নির্বিকার। অথচ আইনশৃঙ্গলা বাহিনীর মাঠ জরীপে দেখা যায় যে চট্টগ্রামের ১০টি পৌরসভার মধ্যে ৪টি মারাত্বক ঝুঁকিপূর্ন। এসব পৌরসভার মোট ১৩৩টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১১৪টিকেই ঝুঁকিপূর্ন তালিকায় রাখা হয়েছে। একদিকে বিএনপি প্রার্থীদের প্রচার প্রচারনায় সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় বাধা দান করা হচ্ছে। অন্যদিকে সরকার বিশেষ অভিযানের নামে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের ব্যাপক হারে ধরপাকড় করা হচ্ছে।

এমন এক ভয়ংকর ও অস্বাভাবিক ভীতিকর পরিস্থিতিতে কোনভাবে একটি সুষ্ঠ, কার্য্যকর ও গ্রহনযোগ্য নির্বাচন হতে পারে না। বিগত সংসদ নির্বাচন স্টাইলে এ যদি নির্বাচন করা হলে তা পৌরসভা নির্বাচনের নামে একটি প্রহসনের নাটকে পরিনত হবে। তাই গ্রহনযোগ্য নির্বাচনের স্বার্থে চট্টগ্রামরে ১০টি পৌরসভাসহ সারাদেশের সেনা মোতায়ন করা অতীব জরুরী।

মীর নাসিরআজ নগরীতে আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে চট্রগ্রামের ১০টি পৌরসভায় অংশগ্রহনকারীদের প্রতিনিধিদর এক বৈঠকে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি উপরোক্ত মন্ত্যব্য করেন।
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী,দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ সভাপতি এড ইফতেখার হোসেন চৌধুরী মহসিন, চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ শাহেদ,রাঙ্গুনিয়া পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী হেলাল উদ্দিন শাহ সহ বিভিন্ন পৌরসভার নেতৃবৃন্দ।