সুন্দর ঠোঁট

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| বুধবার, ১২ সেপ্টেম্বর , ২০১৮ সময় ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ

মেয়েদের দিকে তাকাতেই আমাদের চোখ চলে যায় তাদের মুখের দিকে। চোখ আর ঠোঁটের প্রতি সবারই আছে দূর্বার আকর্ষণ। তবে ঠোঁটের রঙের দিকে যত্ন আছে প্রত্যেক মেয়েরই। লিপস্টিক বাছাইয়ের ক্ষেত্রে ত্বক এবং মেইকআপের সঙ্গে মানানসই রং বেছে নেওয়া খুবই জরুরি। কারণ লিপস্টিকের রং যদি ত্বকের ও মেইকআপের সঙ্গে না মানায় তবে দেখতে দারুণ বেমানান মনে হতে পারে। তবে শুধু লিপস্টিক লাগালেই চলবে না, ত্বক সুন্দর না হলে যেমন মেইকআপ সুন্দর হয় না, তেমনি ঠোঁটের ত্বক যদি সুন্দর না হয় তাহলে লিপস্টিকও ঠোঁটে বসবে না। শীতের শুষ্ক আবহাওয়ায় ঠোঁটফাটা, চামড়া ওঠার মতো বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। তাই শীতে ত্বকের মতো ঠোঁটের বাড়তি যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। আর ঠোঁটে লিপস্টিক লাগানোর আগে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যেন ঠোঁটে মরা চামড়া না থাকে এবং ঠোঁট আদ্রতা বজায় থাকে।

ত্বকের মতোই ঠোঁটের যত্ন নিতে হবে। সারাদিন পর ঘরে ফিরে যেমন ত্বকের মেইকআপ উঠানো হয় তেমনি ঠোঁটের মেইকআপও যত্নের সঙ্গে পরিষ্কার করতে হবে। এরপর এক্সফলিয়েটর এবং ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে।

যদি ঠোঁটে গাঢ় এবং উজ্জ্বল রংয়ের লিপস্টিক ব্যবহার করা হয় তাহলে চোখের মেইকআপ হালকা বা ন্যাচারাল রাখতে হবে। কারণ ঠোঁটের সঙ্গে চোখের মেইকআপও গাঢ় হলে দেখতে বেমানান মনে হতে পারে।

‘ট্রেন্ডি কালার’ বা যুগের হাওয়ায় যেসব রংয়ের লিপস্টিকের চলন বেশি হবে সেগুলো যে সবাইকে মানাবে তা ঠিক নয়। বরং নিজের সঙ্গে মানানসই লিপস্টিক বেছে নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বেমানান রংয়ের লিপস্টিক ব্যবহার করলে দেখতে ভালো তো লাগবেই না বরং হিতেবিপরীত হতে পারে।

ত্বকের মেইকআপ দীর্ঘস্থায়ী করতে এবং চোখের আইশ্যাডোর রং সুন্দর করে স্থায়িত্ব বাড়াতে যেমন প্রাইমার ব্যবহার করা হয় তেমনি ঠোঁটে লিপস্টিক দেওয়ার আগে প্রাইমার লাগিয়ে নিলে লিপস্টিক সুন্দর মতো বসবে এবং দীর্ঘস্থায়ী হবে।

ঠোঁটের শেইপ সুন্দর করে নিখুঁতভাবে লিপস্টিক লাগাতে চাইলে লিপস্টিক লাগানোর আগে একই রংয়ের লিপ লাইনার ব্যবহার করে লিপ লাইন করে নেওয়া উচিত। এতে লিপস্টিক দেখতে ভালো লাগবে। বিশেষ করে গাঢ় রংয়ের ঠোঁটকাঠি ব্যবহারের ক্ষেত্রে লিপলাইনার ব্যবহার করা বেশি জরুরি। তবে লিপস্টিকের সঙ্গে লিপলাইনারের রং না মিললে দেখতে উল্টো খারাপ দেখাবে।

লিপস্টিক লাগানোর জন্য প্রথমে শুরু করতে হবে ঠোঁটের মাঝামাঝি অংশ থেকে। এরপর পুরো ঠোঁটে লাগিয়ে নিতে হবে। এতে করে পুরো ঠোঁটে নিখুঁতভাবে লিপস্টিক লাগানো যায়।

ঠোঁটের উপরের ‘ভি’য়ের মতো অংশটি এবং নিচের ঠোঁটের মাঝামাঝি অংশে হাইলাইট করলে ঠোঁট দেখতে আরও আকর্ষণীয় লাগবে।

ঘুমাতে যাওয়ার আগে যেমন ত্বকের মেইকআপ তুলে পরিষ্কার করে নিতে হয় তেমনি ঠোঁটের লিপস্টিকও উঠিয়ে নিতে হবে।

লিপস্টিক দিতে ভালোবাসেন! তারপরও প্রতিদিন লিপস্টিক না দিয়ে একটু বিরতি দেওয়া উচিত। তাছাড়া প্রতিদিন ঠোঁটে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। ঠোঁটের ত্বক অনেক নমনীয় হয়, সঠিক যত্ন না নিলে ঠোঁটের ত্বকের ক্ষতি হতে পারে।


আরোও সংবাদ