সীতাকুন্ডে শতভাগ বিদ্যুতের নামে ঘুষ বানিজ্য

প্রকাশ:| বুধবার, ১৩ সেপ্টেম্বর , ২০১৭ সময় ০৯:৪৬ অপরাহ্ণ

 

নন্দন রায়, সীতাকুন্ড (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা ঃ সীতাকুন্ডে শতভাগ বিদ্যুৎ নিশ্চিত করনের নামে ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘুষ দিলে ঘরে বিদ্যুৎ যাচ্ছে, না দিলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকছে। এ অভিযোগ করেন কয়েকটি এলাকার ভুক্তভোগীরা। উল্লেখ্য সীতাকুন্ডে বাড়বকুন্ড এলাকায় শতভাগ বিদ্যুতের কথা বলা হলেও রাতে-দিনে বিদ্যুৎ আসা-যাওয়া করছে প্রতিনিয়ত।
স্থানীয়রা জানান, বাড়বকুন্ড বিদ্যুৎ অফিসের লাইনম্যান নাছির উদ্দিন উধ্বর্তন কর্মকর্তাদের নাম ভাঙ্গিয়ে শতভাগ বিদ্যুৎ দেয়ার কথা বলে অনেকের কাছ থেকে মোটা অংকের নগদ টাকা ঘুষ নিয়েছেন। কিন্তু যারা ঘুষ দেয় নাই, তাঁরা বিদ্যুৎ সংযোগ পায় নাই।
বাড়বকুন্ড গ্রামের বাসিন্দা নুরুল ইসলাম জানান, চৌধুরীপাড়া গ্রামের ২৪-২৫ পরিবারের কাছ ১৩০০ থেকে ১৪০০ টাকা করে মোট ৫৬ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে। বৈদ্যুতিক পিলার ও তার দেওয়ার কথা বলে টাকাগুলো নিয়েছে লাইনম্যান নাছির উদ্দিন। এছাড়া ভুলাইপাড়া গ্রাম থেকে ৩৫ হাজার টাকা তুলে নিয়েছে নাছির। এসময় স্থানীয় বাসিন্দাদের নাছির উদ্দিন বলেন, আগে টু টুয়েন্টি লাইন ছিল, এখন ফোর ফরটি লাইন দেওয়া হবে। এজন্য খরচপাতি লাগবে বলে টাকাগুলো নেয়। তবে এখন পর্যন্ত কাজ করার কোন আলামত দেখা যাচ্ছে না বলে নুরুল ইসলাম জানান। একই অভিযোগ রয়েছে অলিনগর ও বাড়বকুন্ড নামার বাজার এলাকায়। কিন্তু সরকারিভাবে এটাকে শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলা কর্মসূচী বলা হলেও ঘুষ ছাড়া কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না এখানে। সরকারি শতভাগ বিদ্যুৎ কর্মসূচীর ঘোষণার ফায়দা লুটে গ্রাহকদের কাছে এই সুযোগে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে লাইনম্যান নাছির। উপজেলার ফকিরহাট, বাড়বকুন্ড, কুমিরা, বাঁশবাড়ীয়া, সীতাকুন্ড পৌরসভাসহ অনেক জায়গায় এখনো শতভাগ বিদ্যুৎ পৌছায়নি বলে স্থানীয়রা জানান।
এ ব্যাপারে লাইনম্যান নাছির উদ্দিন টাকা নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে আমতা আমতা করে বলেন, আমি কারো কাছ থেকে কোন ধরনের টাকা পয়সা নিই নাই, এ বলে সে মঙ্গলবার সকাল থেকে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে দেয়। বুধবার আবার চেষ্টা করা হলে সে ফোন রিসিভ করে বলে আমি এখন ব্যস্ত কথা বলতে পারব না।
বাড়বকুন্ড বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রসেনজিৎ চক্রবর্তী জানান, সীতাকুন্ডে শতভাগ বিদ্যুতের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কিছু কিছু এলাকায় যেমন রেল লাইনের পূর্ব পাশে যে বাড়িগুলো আছে সেখানে বিদ্যুৎতের লাইন নিতে রেলওয়ের অনুমতি লাগবে। রেলওয়ের অনুমতি পেয়ে গেলে ওই এলাকার বাড়িগুলো শতভাগ বিদ্যুৎতের আওতায় চলে আসবে। এটি শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলা কর্মসূচীর চলমান প্রক্রিয়া। ঘুষের অভিযোগের বিষয়টি তিনি অবগত নন। কেউ যদি লিখিত অভিযোগ করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উল্লেখ্য, গত রবিবার শতভাগ বিদ্যুতায়িত সীতাকুন্ড উপজেলা কর্মসূচীর শুভ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।