সিটি মেয়রের ঈদ পূনর্মিলনী ও ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়

প্রকাশ:| শনিবার, ২ আগস্ট , ২০১৪ সময় ০৫:৫৬ অপরাহ্ণ

রিয়াজউদ্দিন বাজার বণিক ও আড়তদার কল্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে মেয়রের মত ও ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়

সিটি মেয়রের ঈদ পূনর্মিলনী ও ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়৩চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব মোহাম্মদ মনজুর আলম ২ আগষ্ট ২০১৪ খ্রি, শনিবার সকালে রেয়াজুদ্দিন বাজার বণিক ও আড়তদার কল্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে তার মোস্তফা-হাকিম বাসভবনে মত ও ঈদের শুভেচ্ছা বিনিমিয় করেন । এ সময় মেয়র বলেন ব্যবসায়ীদের সাথে প্রতিনিয়ত অসংখ্য নাগরিকদের দেখা সাক্ষাৎ ও কথা- বার্তা হয়। তিনি নাগরিক সেবার ক্ষেত্রে নগরবাসীর মতামত তাদের মাধ্যমে জানতে চান । মেয়র বলেন, অতীতের যে কোন সময়ের তুলনায় চার বছরে নগরীর উন্নয়ন দৃশ্যমান সাফল্য এসেছে । কর্মকর্তা- কর্মচারীদের বেতন- ভাতা দেনা পাওনা পরিশোধসহ প্রায় ৭শত কোটি টাকার উন্নয়ন হয়েছে । মেরিনার্স সড়ক সহ অসংখ্য সড়ক, ব্রীজ ও কালভাট তৈরী করা হয়েছে। খাল ও নালা-নর্দমার মাটি আবর্জনা অপসারণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, নগরবাসীর নতুন হোল্ডিং এর উপর করারুপ ছাড়া নতুন কোন কর আরোপিত হয় নাই। বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নতুন নতুন গাড়ী ও মোভার ব্যবহার করা হয়েছে। নিজস্ব প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভাসমান স্কেভেটর দ্বারা মাটি অপসারণের কাজ চলমান। মেয়র আরো বলেন, ২২১ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ ও খাল খননের কাজ প্রক্রিয়াধীন আছে। তিনি বলেন, বিশ্ব জলবায়ু প্রভাবের কারণে জোয়ারের পানি অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে প্রতিনিয়ত জোয়ারের পানিতে নগরীর নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার কারণে নগর জীবনে দূর্ভোগ লেগেই আছে। মেয়র বলেন, ব্যবসায়ীদের সচেতনতার মাধ্যমে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আরো গতি আনা সম্ভব। তিনি বলেন, নালা-নর্দমায়, খালে বিলে, রাস্তা-ঘাটে, যত্রতত্র আবর্জনা ফেলে দূর্ভোগ সৃষ্টি করা হচ্ছে। এমনকি দোকান পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও ঘর-বাড়ীতে সৃষ্ট আবর্জনা গুলো যত্রতত্র ফেলে দেয়া হয়। আবর্জনা ও পলিথিন নালায় ফেলার কারণে স্বাভাবিক পানি চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। তিনি এসব বিষয়গুলো সর্ম্পকে ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা কামনা করেন।
ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়কালে রেয়াজউদ্দিন বাজার বণিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মাহবুবুল আলম, আড়তদার কল্যাণ সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব আবুল বশর সওদাগর, বণিক কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক এস এম এয়াকুব, আড়তদার কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক এম সাইফুদ্দিন সহ ব্যবসায়ী নেতা আলী আব্বাস খান, আলহাজ্ব মোহাম্মদ মহসিন, হাজী কামাল উদ্দিন, মো. জসিম উদ্দিন, মো. নাছির উদ্দিন, সুনীল বাবু, সেলিম উদ্দিন মিন্টু, মো. জানে আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

১০নং উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডে সর্বস্তরের নাগরিকদের সাথে সিটি মেয়রের ঈদ পূনর্মিলনী ও ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়
সিটি মেয়রের ঈদ পূনর্মিলনী ও ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়২
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব মোহাম্মদ মনজুর আলম ২ আগষ্ট ২০১৪খ্রি: শনিবার সকালে তার মোস্তফা-হাকিম বাসভবনে নগরীর ১০নং উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডের সর্বস্তরের নাগরিকদের সাথে মতবিনিময় ঈদ পূনর্মিলনী ও ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। মেয়র সকলের জীবনের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বলেন, পবিত্র ইসলামে সকল ধর্ম ও বর্ণের মানুষের সার্বিক নিরাপত্তা বিধানের দিক নির্দশনা রয়েছে। ভ্রাতৃত্ব, সৌহার্দ ও সহঅবস্থান সহমর্মিতার শিক্ষা ইসলাম দিয়েছে। প্রসঙ্গক্রমে মেয়র বলেন, জনগনের দোয়া, ভালবাসা ও সমর্থন নিয়ে আমি মেয়র হিসেবে জনগনের সেবা দিয়ে যাচ্ছি। এ সেবার ক্ষেত্রে কতটা সফল বা বিফল এর বিচারের দায়িত্ব নগরবাসীর। আমি চেষ্টা করছি ঈমানি দায়িত্ব হিসেবে সততা ও নিষ্ঠার সাথে নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে। তিনি বলেন, আমি একজন, একার পক্ষে সকল দায় দায়িত্ব পালন করা কঠিন, তাই আমি চাই নগরবাসীর সহযোগিতা। নগরবাসী সচেতনতার সাথে সহযোগিতার হস্ত প্রসারিত করলে সেবার মান আরো বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে। মেয়র আক্ষেপ করে বলেন, নগরবাসীর ট্যাক্সের বিনিময়ে যাদের বেতন-ভাতা ও চাকুরী নির্ভরশীল তাদের মধ্যে আন্তরিকতা এবং সততার অভাব পরিলক্ষিত হয়। মেয়র বলেন, নীতি-নৈতিকতা, সততা-নিষ্ঠার অভাবের কারণেই রাষ্ট্র ও সমাজ জীবনে অবক্ষয় দেখা দেয়। আমরা সকলে সত্য ও ন্যায়ের পথে পরিচালিত হলে অভাব অনটন, অশান্তি ও বিশৃংখল পরিবেশ থাকবেনা । তিনি বলেন, পবিত্র রমজান মাসে সিয়াম সাধানার মাধ্যমে আমরা যা কিছু অর্জন করেছি সেগুলো বাস্তব জীবনে প্রয়োগের মাধ্যমে সত্য ও সুন্দর জীবন গড়ে তোলতে পারি। মেয়র সকলের শান্তি ও দীর্ঘজীবন কামনা করেন। মতবিনিময় ও ঈদ পূনর্মিলনীতে উত্তর কাট্টলীর বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।