‘‘সার্কিট হাউস, চট্টগ্রাম বন্দর ও পতেঙ্গা সৈকতমুখী লুপ থাকবে’’

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি , ২০১৬ সময় ১১:০৩ অপরাহ্ণ

লুপ হবেটাইগারপাস থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত এক্সপ্রেসওয়েতে নতুন তিনটি জায়গায় লুপ বা গাড়ি ওঠানামার সুযোগ দেওয়ার ব্যাপারে ঐকমত্য হয়েছেন প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা। নতুন প্রস্তাব অনুযায়ী চট্টগ্রাম সার্কিট হাউস, চট্টগ্রাম বন্দর ও পতেঙ্গা সৈকতমুখী লুপ থাকবে।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় এ প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে গ্রহণ করা হয়। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) এক্সপ্রেসওয়ের ফিজিবিলিটি স্টাডি রিপোর্ট নিয়ে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছিল।

সভায় সাবেক মন্ত্রী আফছারুল আমীন, সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, নগর পুলিশ কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডল, জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রশাসন ও পরিকল্পনা) মো. জাফর আলম, চসিকের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, চুয়েটের অধ্যাপক মাহমুদ, ড. আসিফ প্রমুখ আলোচনায় অংশ নেন।

সিডিএর প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমান চুয়েটের বিশেষজ্ঞদের ফিজিবিলিটি স্টাডি রিপোর্ট স্লাইড শো ও অ্যানিমেশন ভিডিও দ্বারা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মুরাদপুর থেকে ওয়াসা পর্যন্ত আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারের সঙ্গে মিল রেখে প্রস্তাবিত এক্সপ্রেসওয়ের নকশা করা হচ্ছে। এতে ওয়াসা, টাইগারপাস, আগ্রাবাদ, বারিক বিল্ডিং মোড়, নিমতলা-কাস্টমস মোড়, সিইপিজেড, সিমেন্ট ক্রসিং, কাঠগড়ে যানবাহন উঠানামার জন্যে র‌্যাম্প বা লুপ থাকবে। নেভাল একাডেমিতে গিয়ে এক্সপ্রেসওয়ে শেষ হবে। সেখান থেকে গাড়িগুলো বাটারফ্লাই পার্ক হয়ে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসা-যাওয়া করবে।

তিনি বলেন, আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারে দুই নম্বর গেটে বায়েজিদমুখী গাড়ি নামার জন্য এবং জিইসিমুখী গাড়ি ওঠার জন্যে লুপ থাকবে। তবে মেডিক্যাল কলেজমুখী গাড়ি নামার জন্যে বা ওই দিক থেকে ওঠার জন্যে কোনো লুপ রাখা যাচ্ছে না সড়কটি সরু হওয়ার কারণে।


আরোও সংবাদ