সাতকানিয়া মুখোশ পরা সন্ত্রাসীদের গুলি ও কুড়ালের কোপে নিহত যুবলীগকর্মী

প্রকাশ:| রবিবার, ২ মার্চ , ২০১৪ সময় ১১:৪৯ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার কাঞ্চনা ইউনিয়নের ফুলতলা বাজার এলাকায় মুখোশ পরা সন্ত্রাসীদের গুলি ও কুড়ালের কোপে নিহত হয়েছেন মোহাম্মদ হাসান (৩৫) নামের এক যুবলীগকর্মী। আজ রোববার রাত পৌনে আটটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

হাসান কাঞ্চনা ইউনিয়নের দক্ষিণ কাঞ্চনা গুড়গুড়ি এলাকার ওলা মিয়ার ছেলে। পরিবার ও যুবলীগ এই হত্যাকাণ্ডের জন্য ছাত্রশিবিরকে দায়ী করেছে। তবে এ ব্যাপারে শিবিরের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, রাত পৌনে আটটার দিকে ফুলতলা বাজারে যুবলীগ কর্মী মোহাম্মদ হাসানকে মুখোশ পরা সন্ত্রাসীরা গুলি করে ও চাইনিজ কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে নিয়ে যায়। কর্তব্যরত চিকিত্সক প্রাথমিক চিকিত্সা দেওয়ার পর তাঁকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার চেষ্টা করা হয়। তবে পথেই তিনি মারা যান।

হাসানের চাচা মোহাম্মদ আলম প্রথম আলোর কাছে দাবি করেন, হাসান ফুলতলা বাজারের একটি ঔষধের দোকানের সামনে বসে ছিলেন। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে বসে থাকা অবস্থায় মুখোশ পরা তিন-চার জন সন্ত্রাসী সিএনজিচালিত অটোরিক্সাযোগে এসে তাঁকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি করে। গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসান মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এ সময় সন্ত্রাসীরা চাইনিজ কুড়াল দিয়ে তাঁর পায়ে ও পেটে কোপ দিয়ে পালিয়ে যায়।

মোহাম্মদ আলম আরও বলেন, হাসান স্থানীয় যুবলীগের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। গত বছর বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকার মত সাতকানিয়ার কাঞ্চনা ইউনিয়নেও জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসীরা ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছিল। সেই তাণ্ডবের বিরুদ্ধে হাসান প্রতিনিয়ত প্রতিবাদ করতেন। এ প্রতিবাদ করার কারণেই তাঁরা তাঁকে গুলি করে ও কুপিয়ে মেরে ফেলেছে।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পার্থ সারথি চৌধূরী প্রথম আলোকে বলেন, হাসান কাঞ্চনা ইউনিয়ন যুবলীগের কর্মী। তিনি ব্যক্তিগত কাজে ফুলতলা বাজারে অবস্থান করার সময় শিবিরের সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে তাঁকে হামলা করে হত্যা করেছে। গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে চলা জামায়াত-শিবিরের তাণ্ডবের বিরুদ্ধে কথা বলায় তাঁকে হত্যা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা শিবিরের সভাপতি মো. তৌফিক এলাহির মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। তবে তাঁর ফোন বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিত্সক রকিবুল হাসান প্রথম আলোকে বলেন, গুলিবিদ্ধ ও কুপিয়ে আহত করা হাসান নামে এক যুবককে হাসপাতালে আনা হয়। তবে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাঁকে প্রাথমিক চিকিত্সা দিয়ে দ্রুত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সাতকানিয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) এ কে এম ইমরান ভূঞা বলেন, ‘খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছেছি। এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’