সাংবাদিকদের প্রবেশ করতে না দেওয়ায় দুঃখ প্রকাশ সংসদীয় কমিটির সভাপতি

প্রকাশ:| রবিবার, ১ জুন , ২০১৪ সময় ১০:৫৭ অপরাহ্ণ

রোববার চট্টগ্রাম বন্দরের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বন্দর ব্যবহারকারীদের সঙ্গে বৈঠকের অনুষ্ঠানে দাওয়াত দিয়ে সাংবাদিকদের প্রবেশ করতে না দেওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম।

সভা শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলে বৈঠকের প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমরা বন্দরের বিভিন্ন সমস্যার বিষয়ে জানতে বন্দর কর্মকর্তা ও ব্যবহারকারীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছি। বৈঠকটি সবার জন্য উন্মুক্ত।

কিন্তু বন্দর কর্তৃপক্ষ রুদ্ধদার বৈঠকের কথা বলে সাংবাদিকদের প্রবেশ করতে দেননি জানালে সংসদীয় কমিটির সভাপতি বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানতাম না।

পরে সাংবাদিকদের প্রবেশ করতে না দেওয়ার জন্য সংসদীয় কমিটির পক্ষ থেকে দুঃখ প্রকাশ করে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি জানতাম না। এ ধরণের আচরণে জন্য আমি দুঃখিত।

সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দুঃখ প্রকাশের সময় তাঁর পাশে থাকা বন্দর চেয়াম্যান বেকায়দায় পড়লেও কোন কথা বলেননি।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, বন্দরের সদস্য (প্রশাসন ও পরিকল্পনা) নজরুল ইসলামের নির্দেশে গত বুধবার সচিব বিভাগ থেকে একজন কর্মকর্তা প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিক ও অফিসে ফোন করে বৈঠকের নিউজ কাভারের আমন্ত্রণ জানান। পরদিন ফোন করে বৈঠকে সাংবাদিকরা উপস্থিত থাকেতে পারবে না বলে আমন্ত্রণ প্রত্যাহার করা হয়।

বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল নিজাম উদ্দিন আহমেদের নির্দেশে সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে বন্দরের একাধিক সূত্র বাংলানিউজকে নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, গত বুধবার পর্যন্ত দেশের বাইরে ছিলেন বন্দর চেয়ারম্যান। আর তখন উধর্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করে সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্ত নেন সদস্য নজরুল ইসলাম। কিন্তু বৃহস্পতিবার অফিসে এসে সাংবাদিক আমন্ত্রণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের নির্দেশ দেন বন্দর চেয়ারম্যান।

এদিকে চট্টগ্রাম বন্দরে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই তথ্য গোপনের অভিযোগ রয়েছে নিজাম উদ্দিনের বিরুদ্ধে। এমনকি বন্দর সচিব ছাড়া কোন কর্মকর্তা সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার উপর অলিখিত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন তিনি।

এছাড়া বিভিন্ন সময়ে সংবাদ সংগ্রহ এবং সাক্ষাত করতে চাইলেও সাড়া দেন না। এমনকি মোবাইলে ফোন পর্যন্ত রিসিভ করেন না।

গত ২৫ এপ্রিল চট্টগ্রাম বন্দরের ১২৭ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকরা এ বিষয়ে অভিযোগ করলে বন্দরে তথ্য কর্মকর্তা নিয়োগের আশ্বাস দেন বন্দর চেয়ারম্যান।

এছাড়া সাংবাদিকদের ফোন রিসিভ করবেন জানিয়ে তিনি বলেন,আসলে আমি অপরিচিত নাম্বার রিসিভ করি না। কারণ নিরাপত্তার একটা বিষয় আছে।

তবে এরপর একাধিক বার ফোন করা হলেও রিসিভ করেননি বলে অভিযোগ করেছেন একাধিক সাংবাদিক। অন্যদিকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি কোন তথ্য কর্মকর্তাও।