সাংবাদিকদের পরীক্ষার মাধ্যমে সনদ দিতে চায় প্রেস কাউন্সিল

প্রকাশ:| শনিবার, ৬ সেপ্টেম্বর , ২০১৪ সময় ০৮:০৬ অপরাহ্ণ

সাংবাদিকদের জন্য বার কাউন্সিলের মত পরীক্ষার কথা বলেছেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. মমতাজ উদ্দিন আহমেদ।

শনিবার দুপুরে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে এক মতবিনিময় সভায় তিনি উদাহরণস্বরূপ দু’টি প্রস্তাব তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, জেলা পর্যায়ে আমরা সনদের কথা চিন্তা করছি। যারা সাংবাদিকতায় আছেন যেমন- যিনি আজাদীতে (দৈনিক আজাদী) কাজ করেন। আজাদীর সম্পাদক বলবেন যে, উনি পাঁচ বছর চাকরি করেছেন। আর যারা নতুন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করে আসবেন তারা একটা মৌখিক পরীক্ষা দেবেন।

তিনি বলেন, অথবা আপনারা যেভাবে প্রস্তাব করবেন। জেলা পর্যায়ে বার কাউন্সিলের মত পরীক্ষা হতে পারে। সিলেবাসও আপনারা ঠিক করবেন। পরীক্ষায় কি কি লিখতে হবে সেটা নির্ধারণ করবেন। যদি আপনারা খাতা দেখে বলেন যে পাশ করেছে তবে আমরা সনদ দেব।

মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, আমি চাই আপনারা এ ব্যবস্থায় আসেন। আপনারা নিজেদের ভাগ্যের পরিবর্তন করুন। চট্টগ্রামে এ বিষয়ে সভা করুন।

প্রেস কাউন্সিল আইন ১৯৭৪ সংশোধনের প্রয়োজনীয়তা এবং প্রেস কাউন্সিল প্রণীত আচরণ বিধি শীর্ষক এ মতবিনিময় সভায় আলোচ্যসূচির মধ্যে আরও ছিল সাংবাদিকদের জন্য সনদ প্রদান এবং মানহানির জন্য পেনাল কোডের ধারা ও বর্তমানে প্রচলিত বিচারিক আদালত থেকে সাংবাদিকদের প্রেস কাউন্সিলের আওতায় নিয়ে আসা।

দেশের বিভিন্ন জেলায় মতবিনিময়ের অংশ হিসেবে চট্টগ্রামে তা আয়োজন করা হয়।

সাংবাদিকদের পেশাগত বিষয় লেবার ল’র অধীনে থাকার বিষয়ে বিচারপতি মমতাজ উদ্দিন বলেন, একটা ডক্টরেট করা মেয়ে সাংবাদিকতায় এলো তাকে লেবার ল’ তে ফেলে দিলেন। এটা কেমন? আমার কাছে ক্ষমতা থাকলে এসব বিচার এক মাসে শেষ করতাম।

সংবাদ সংগ্রহ ও প্রচারের বিষয়ে সাংবাদিকদের আরো সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, জানুয়ারির নির্বাচনের আগে কেউ একটা চিরকুট পাঠালো নাশকতার তথ্য দিয়ে। কেউ কেউ সেখানে গিয়ে হাজির হলেন। আগে তো আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীকে জানানো উচিত ছিল।

প্রেস কাউন্সিল পুর্নগঠন নিয়ে সংসদে আলোচনা করে কাউন্সিলে আরো বেশি সংখ্যক সদস্য অর্ন্তভুক্ত করার যায় কি না সে বিষয়ে উদ্যোগ নেবেন বলে জানান মমতাজ উদ্দিন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সচিব শ্যামল চন্দ্র কর্মকারও বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামে কর্মরত গণমাধ্যমের কর্মীরা নিজেদের মতামত তুলে ধরেন এবং চেয়ারম্যানকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করেন।


আরোও সংবাদ