সরকারের নির্দেশে সব হচ্ছে

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর , ২০১৫ সময় ১১:০৯ অপরাহ্ণ

দুই বিদেশী নাগরিক হত্যা ও হোসেনী দালানে হামলাসহ সাম্প্রতিক হত্যাকাণ্ড প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ‘সরকারের নির্দেশের বাইরে কিছুই ঘটে না।’
সরকারের নির্দেশে সব হচ্ছে
যুবদলের ৩৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধীতে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

হত্যাকাণ্ডে বিএনপি নেতাদের জড়ানো প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে গয়েশ্বর বলেন, ‘প্রকৃত হত্যাকারীদের আড়াল করতে তদন্ত ছাড়াই বিএনপি নেতাদের জড়িয়ে বক্তব্য দেওয়া হচ্ছে। অনেক হত্যা মামলায় বিএনপির নেতাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। বিরোধী দল নির্মূল করার জন্যই এ ধরনের ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা গণতন্ত্র, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, দখলদারী, সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে ও জনগণের ভোটের অধিকারের কথা বলি। এ অপরাধে আমাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে।সরকারের কাজ হলো প্রকৃত অপরাধীকে আড়াল করা। আর বিএনপি নেতাদের গ্রেফতার করা।’

গয়েশ্বর বলেন, ‘সরকারের গোয়েন্দা সংস্থা চীনা বাদাম খায়। যারা হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত তাদের গ্রেফতার করতে পারে না। এ সব হত্যাকাণ্ডের ফলে বিদেশীদের কাছে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘পুলিশ কর্মকর্তারা পেশাগত বক্তব্য না দিয়ে রাজনৈতিক বক্তব্য দিচ্ছে। তদন্ত না করে বিএনপি নেতাকর্মীদের নামে মামলা দিচ্ছে। এতে প্রকৃত অপরাধীরা আড়ালে থেকে যাচ্ছে।’

যুবদলের সাবেক এ নেতা বলেন, ‘গণতন্ত্র উদ্ধারে ’৭৮ সালে জিয়াউর রহমান বিএনপি প্রতিষ্ঠা করেন। এরপরে জিয়াউর রহমান দেখলেন যুবকদের ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। দেশের অধিকাংশ যুবক বেকার থাকে। তাই সব যুবককে একত্রিত করে যুবদল প্রতিষ্ঠিত করেন। যুবদল প্রতিষ্ঠার পর থেকে জিয়াউর রহমানের আদর্শকে সমুন্নত রেখে যুবদল এগিয়ে যাচ্ছে। এখনো বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে যুবদল গণতন্ত্র উদ্ধারে কাজ করছে।

এ সময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সিনিয়র সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মীর নেয়াজ আলী নেওয়াজ, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ক ম মোজাম্মেল হকসহ যুবদলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।