সরকারী হাসপাতালে দায়িত্ব পালন না করে নিজ বাসায় চিকিৎসা কেন্দ্র!

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| সোমবার, ৬ আগস্ট , ২০১৮ সময় ০৯:৩০ পূর্বাহ্ণ

শফিউল আলম, রাউজান: রাউজানের নোয়াপাড়া মাষ্টার দা সুর্যসেন মাতৃসদন হাসপাতালের উপসহকারী কমিনিউটি মেডিকেল অফিসার পান্না রানী পাল হাসপাতালে চিকিৎসা না করে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তার বাসায় মহিলাদের চিকিৎসা করার মাস্টার দা সুর্য সেনের বসত ভিটায় এলাকার দরিদ্র পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসা সেবা দেওয়ার জন্য সরকার বিপ্লবী মাস্টার দা সুর্য সেন মাতৃসদন হাসপাতাল নির্মান করে । এলাকার মহিলাদের প্রসুতি সেবার জন্য মাতৃসদন হাসপাতালে রয়েছে উপ সহকারী কমিনিউটি মেডিকেল অফিসার পান্না রানী পাল । এলাকার লোকজন অভিযোগ করে বলেন, উপসহকারী কমিনিউটি মেডিকেল অফিসার পান্না রানী পাল মাতৃসদন হাসপাতালে নিয়মিত আসেনা । কয়েকদিন পর পর হাসপাতালে আসলে ও এলাকার মহিলারা প্রসুতি সেবার জন্য আসলে তাদের তার বাসা রাউজানের ভ্রাম্বন হাটের পুর্বে তার পাকা বাড়ীতে যাওয়ার পরামর্শ দেয় । এলাকার মহিলারা প্রসুতি সেবার জন্য তার বাসায় গেলে মোটা অংকের টাকা নিয়ে মহিলাদের গর্ভে থাকা সন্তান প্রসব করার বলে অভিযোগ করে কয়েকজন ভুক্তভোগী মহিলা তাদের পরিবারের সদস্যরা । সরেজমিনে পরিদর্শন কালে দেখা যায় রাউজানের ভ্রাম্বন হাটের পুর্ব পাশের্^ চট্টগ্রাম কাপ্তাই মহাসড়কের দক্ষিনে পান্না রানী পালের একটি ২য় তলা পাকা ভবন । ভবনের সামনে একটি ডিজিট্যাল ব্যানার লাগানো রয়েছে । ব্যানারে ডাঃ পান্না রানী পাল ও প্রসুতি মহিলাদের চিকিৎসা প্রদান ও রোগী দেখা হয় বলে লেখা রয়েছে । ভবনের ভেতরে গিয়ে ২য় তলায় উঠে দরজার সামনে গেলে দেখা যায় পান্না রানী পালকে । নিজের পরিচয় গোপন রেখে একজন সন্তান প্রসুতি মহিলাকে চিকিৎসা করার কথা বললে পান্না রানী পাল বলেন রোগী নিয়ে আসেন রোগীকে চেকআপ করে বলতে হবে কতটাকা লাঘবে । পান্না রানীর বাড়ী থেকে বাইরে এসে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে তাকে ফোন করে হাসপাতালে দায়িত্ব পালন না করে নিজের বাসায় মোটা অংকের টাকা নিয়ে মহিলাদের সন্তান প্রসব করার কাজ সর্ম্পর্কে জানতে চাইলে, পান্না রানী পাল বলেন, নোয়াপাড়া মাস্টার দা সৃর্য সেন মাতৃসদন হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করি । অবসর সময়ে আমার বাসায় প্রসুতি মহিলাদের চিকিৎসা ও সন্তান প্রসব করানোর কাজ করি ।রাউজানের নোয়াপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ দিদারুল আলম অভিযোগ করে বলেন পান্না রানী পাল নিয়মিত সুর্য সেন মাতৃসদন হাসপাতালে যায়না। তার বাসায় বসে প্রসুতি মহিলাদের চিকিৎসা করে ও সন্তান প্রসবের কাজ করে । রাউজানের নোয়াপাড়া মাস্টার দা সুর্য সেন মাতৃসদন হাসাপাতালের ইনচার্জ ডাঃ রাবেয়া খাতুনকে ফোন করে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন হাসপাতালের বাইরে রোগীর চিকিৎসা করা দোষের কিছুই নয় । পান্না রানী পাল নিয়মিত তার দায়িত্ব পালন করেন বলে দাবী করেন রাউজানের নোয়াপাড়া মাস্টার দা সুর্য সেন মাতৃসদন হাসাপাতালের ইনচার্জ ডাঃ রাবেয়া খাতুন। পান্না রানী পালের বাসার দেওয়ালে ব্যনার টাঙ্গিয়ে পান্না রানী পালের নামের আগে ডাঃ লিখে চিকিৎসা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের অনুমতি আছে কিনা রাউজানের নোয়াপাড়া মাস্টার দা সুর্য সেন মাতৃসদন হাসাপাতালের ইনচার্জ ডাঃ রাবেয়া খাতুনের কাছে জানতে চাইলে তা তিনি জানেনা বলে দাবী করেন । এ ব্যাপারে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম হোসেন রেজার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের অনুমতি ব্যতিত কেউ নিজ বাসায় চিকিৎসা কেন্দ্র গড়ে তোলা অবৈধ । উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম হোসেন রেজা খোজ নিয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানান । উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম হোসেন রেজা