‘সরকারকে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে’

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| রবিবার, ৮ জুলাই , ২০১৮ সময় ১০:০৮ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ নঈম উল ইসলাম বলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচন করতে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট প্রস্তুত। কিন্তু নির্বাচনের পরিবেশ নেই, জনগণ নিজের ভোট নিজে দিতে পারেনা, ভোট সেন্টারে যেতে ভয় পায়। নির্বাচন কমিশনের উচিৎ জনগণের ভয় দূর করা। আর সরকারের উচিৎ সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করা। বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট সব সময় বলে আসছে একটি স্বাধীন নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব। নির্বাচনকালীন সময়ে নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাহী বিভাগের ক্ষমতা দিয়ে দিতে হবে। তিনি আরো বলেন, সরকার উন্নয়ন করছে ঠিক আছে কিন্তু সমানভাবে হরিলুটও হচ্ছে। রাস্তাঘাট খুঁড়ে বছরের পর বছর পেলে রেখে মানুষকে কষ্ট দিয়ে এইরকম উন্নয়ন পৃথিবীর কোনো দেশে নেই। বহদ্দারহাট হতে কালুরঘাট, শাহ আমানত সেতু, বলিরহাট যেতে লাগে ১- ২ ঘন্টারও বেশি। এই সময় অপচয়ের মূল্য কে কখন দেবে? একজন রোগী বা গর্ভবতী মাকে নিয়ে রাস্তা দিয়ে গাড়িতে আসা যায়না। মনে হচ্ছে পথিমধ্যে সন্তান প্রসব করে দিবে। পরিকল্পিতভাবে রাস্তার উন্নয়ন করা হোক। ঘরে ঘরে গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি সংকট অথচ বলা হচ্ছে উন্নয়ন উন্নয়ন। আগামী নির্বাচনে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মোমবাতি প্রতীকে ভোটদান করার জন্য জনগণের আহবান জানান। সভায় এইমাসের মধ্যে বর্ধিত সভা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। আজ ৮ জুলাই রবিবার বিকালে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তরের সাধারণ সভায় তিনি উপরোক্ত মন্তব্য করেন। সংগঠনের সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ নঈম উল ইসলাম এর সভাপতিত্ত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন মাহমুদ এর সঞ্চালনায় সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহ সভাপতি আলহাজ্ব মাওলানা হাফেজ শিব্বির আহমেদ উসমানী, ফজলুল করিম তালুকদার, জসিম উদ্দিন মাহমুদ, জয়নুল আলম, আ ন ম তৈয়ব আলী, যুগ্ন সম্পাদক নবীর হোসাইন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ শফিউল আলম, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা সোহাইল উদ্দিন আনসারি, আব্দুল করিম সেলিম, অর্থ সম্পাদক মাওলানা মুহাম্মদ শাহজাহান, আইন সম্পাদক মাওলানা কাজী মুহাম্মদ আমিন উল্লাহ, নুরুল ইসলাম শাকিল, মুহাম্মদ ইসমাইল হোসাইন, মাওলানা মুহাম্মদ সরোয়ার উদ্দিন, মাওলানা হাফেজ ক্বারি গোলাম কিবরিয়া, মাওলানা হাফেজ ক্বারি কাজী মুহাম্মদ খালেদুর রহমান হাশেমী, আহমদ রেজা রুকু পাঠান, মাওলানা শেখ আরিফুর রহমান, মুহাম্মদ আব্দুর রহিম, মাওলানা জামাল উদ্দিন খোকন, এম এ মতিন, হাজী ইব্রাহিম সওদাগর, আনোয়ার পারভেজ শিকদার, হাজি মুহাম্মদ এরশাদ মোল্লা, হাজি আব্দুস সাত্তার মোল্লা, সৈয়দ মুহাম্মদ লিয়াকত আলি, মাওলানা আইয়ুব আলি, যুবসেনা মহানগর উত্তর সভাপতি মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুল মোস্তাফা সিদ্দিকি, ছাত্রসেনা মহানগর উত্তর সভাপতি মাছুমুর রশিদ কাদেরি, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান।