সরকারকে সহযোগিতা করবে বিএনপি

প্রকাশ:| শনিবার, ১৬ মে , ২০১৫ সময় ০৫:৫৭ অপরাহ্ণ

‘অভিবাসন সমস্যার সমাধান করতে না পারলে আপনারা আমাদের পরামর্শ নিতে পারেন। কারণ বিএনপি তিনবার ক্ষমতায় ছিল। বিএনপিতে অনেক অভিজ্ঞ মন্ত্রী রয়েছেন। আপনারা চাইলে তারা এবিষয়ে পরামর্শ দিতে পারেন।’, অভিবাসন সঙ্কট নিয়ে বলতে গিয়ে সরকারকে উদ্দেশ করে এসব কথা বলেছেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন।

শনিবার বিকেলে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

অভিবাসন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে কর্মসংস্থান না থাকার কারণে সাগরে হাজার হাজার বাঙালিরা ভাসছে। কারণ যে অঞ্চলগুলো থেকে মানুষ বিদেশ যাওয়ার চেষ্টা করছে, সেগুলো অঞ্চলগুলোতে মুলত কর্মসংস্থানের সুযোগ নেই।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ ক্ষেত্রে কি দায়িত্ব পালন করছেন? আমি শুনেছি তিনি মায়ানমার যাবেন। গিয়েছেন কিনা জানিনা। যারা অ্যাম্বাসেডর কিংবা হাইকমিশনার আছেন তারা কি কাজ করছেন? এর জবাব সরকারকে দিতে হবে।’

মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের চিহ্নিত করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘উচ্চ আদালত মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের শাস্তি দেয়ার জন্য একটি টাস্কফোর্স গঠনের রুল জারি করেছেন। যদি এ টাস্কফোর্স গঠন করা হয়, তাহলে মানবাধিকার পরিস্থিতির উন্নতি হবে। যদি সরকার এ বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করে। তবে টাস্কফোর্সের কমিটিতে কোনো দলবাজ বা দলকানাকে স্থান দেয়া যাবে না।’

মানবাধিকার কমিশন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে মানবাধিকার কমিশন একটি অকার্যকার প্রতিষ্ঠান। এর পুণর্গঠন করতে হবে। সংগঠনটি নামেমাত্র কাগজে কলমে আছে, কাজে নেই।’

‘আমি আমার দায়িত্ব পালন করতে পারছি না’ মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানের এ বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, ‘তিনি (মিজানুর রহমান) যদি দায়িত্ব নাই নিতে পারেন তাহলে ব্যর্থতার দায়ভার নিয়ে সরে যাওয়াই উচিৎ। আমি বিএনপির পক্ষ থেকে মানবাধিকার কমিশন পুণর্গঠন। এবং সবাইকে সরিয়ে দিয়ে নতুন করে নিয়োগের দাবি জানাচ্ছি।’

সালাহ উদ্দিন আহমেদের বিষয়ে বিএনপির কাছে কোনো তথ্য নেই বলে জানিয়েছেন দলটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান রিপন। তিনি বলেন, ‘পত্রপত্রিকার রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে যতটুকু জানার সেটুকুই জানি। এর বাইরে কিছুই জানি না। সালাহ উদ্দিনের স্ত্রী হাসিনা আহমেদ ভারতে যাওয়া আগে কিছু বলা যাচ্ছে না।’

সহ-দপ্তর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনিকে দলের পক্ষে ভারতে পাঠানো হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তাকে দল থেকে পাঠানো হয়নি। তিনি ব্যক্তিগত ভাবে ভারতে গিয়েছেন। তবে দলের পক্ষ থেকে লোক পাঠানোর চেষ্টা চলছে।’

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির সহ দপ্তর সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, আসাদুল করিম শাহিন, যুবদল সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুল সালাম আজাদ প্রমুখ।