সমঝোতার সেতু তৈরি করা কঠিন

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ০৯:৩৬ অপরাহ্ণ

সরকার ও বিরোধী দলের মধ্যে অবিশ্বাসের দেয়াল অনেক উঁচু। এ দেয়াল ভাংতে না পারলে সমঝোতার সেতু তৈরি করা খুবই কঠিন বলে মন্তব্য করেছেন যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
ওবায়দুল কাদের
তিনি বলেন, কঠিন হলেও সবাই খোলা মন, আন্তরিকতা ও সদিচ্ছা নিয়ে এগিয়ে এলে বিষয়টি আপাতদৃষ্টিতে যতই কঠিন মনে হোক না কেন বাস্তবে অসম্ভব নয়।

ওবায়দুল কাদের বৃহস্পতিবার ঢাকা চট্রগ্রাম মহাসড়কের কাঁচপুর, মেঘনা ও মেঘনা-গোমতি সেতু পরিদর্শনে শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

যোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, আপাতদৃষ্টিতে মনে হয় সমঝোতার বিষয়টি অসম্ভব। ডিফিকাল্ট বাট নট ইমপসিবল। তিনি বলেন, বিরোধী দলের প্রস্তাবটি বাস্তবসম্মত নয়। বুধবার ব্যারিষ্টার জমির উদ্দিন সরকার মনে হলো একটু সরে এসেছেন। মনে হচ্ছে এখন তাদের বটম লাইন একটাই। সেটা হচ্ছে তারা শেখ হাসিনার অধিনে কোন নির্বাচনে যাবেন না।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বলেন, আমরা বারবারই লক্ষ্য করছি কোন সংলাপের প্রশ্ন উঠলেই বিরোধী দল একটা শর্ত জুড়ে দেয়। পৃথিবীতে কোন দেশে শর্ত দিয়ে সংলাপ হয়না। সংলাপ করতে হবে খোলা মনে।

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন করতে না চাইলে সংলাপে আপনাদের বক্তব্যের যৌক্তিকতা তুলে ধরতে পারেন। কিন্তু আগে ভাগে একটা শর্ত জুড়ে দেবেন যে, সব মানি তালগাছ আমার, সব মানি হাসিনাকে মানিনা এ শর্ত কেন?

ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী আগামী ৩১ অক্টোবর কাচঁপুর, মেঘনা, মেঘনা-গোমতি সেতুর বিকল্প তিনটি সেতুর ভিত্তিপ্রস্তরে স্থাপন করবেন। এই তিনটি সেতু নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ৮ হাজার ৪শ ২৯ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাইকা দেবে ৬ হাজার ৪শ কোটি। বাকি টাকা দেবে বাংলাদেশ সরকার।

সওজ এর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী হাবিবুল হক, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শাহাবুদ্দিন খান, সওজ এর নারায়ণগঞ্জ জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ শাহজাহান, সহকারি পুলিশ সুপার জীবন কান্তি সরকার, সোনারগাঁ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম, নারায়ণগঞ্জ সিটি কাউন্সিলর নূর হোসেন প্রমুখ এসময় মন্ত্রীর সংগে ছিলেন


আরোও সংবাদ