সবাইকে নিয়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করবো

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৮:৪৪ অপরাহ্ণ

দুই দশক পর গঠিত নগর মহিলা আওয়ামী লীগের কমিটিকে সব বিতর্কের ঊর্ধ্বে রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন নবনির্বাচিত সভাপতি বেগম হাসিনা মহিউদ্দিন এবং সাধারণ সম্পাদক আনজুমান আরা চৌধুরী আনজি। একই সঙ্গে সবাইকে নিয়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করার অঙ্গীকারও ব্যক্ত করেছেন তারা।

বৃহস্পতিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে নগর মহিলা লীগের এই দুই শীর্ষ নেত্রী বলেন, একটি সফল সম্মেলনের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের উপস্থিতিতে চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি গঠিত হয়েছে। সর্বস্তরের নারীদের সংগঠিত করে চট্টগ্রাম নগরীতে আমরা একটি শক্তিশালী সংগঠন গড়ে তুলব।

‘সংগঠনকে সব বিতর্কের ঊর্ধ্বে রেখে সাম্যের ভিত্তিতে সবাইকে নিয়ে চলব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগকে আগামী নির্বাচনে ক্ষমতায় নেওয়ার জন্য কাজ করে যাব। সবার সুচিন্তিত মতামতের ভিত্তিতে সংগঠন পরিচালনা করব। ’ বিবৃতিতে বলেন তারা।

নবনির্বাচিত সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে নগর মহিলা আওয়ামী লীগের বিরোধিতা করে মাঠে নেমেছে সংগঠনটির একটি অংশ। সম্মেলনের একদিন পর বুধবার সংবাদ সম্মেলন করে বিরোধী অংশটি পাল্টা কমিটিও ঘোষণা দিয়েছে।

এর এক দিনের মাথায় হাসিনা মহিউদ্দিন ও আনজুমান আরা চৌধুরী গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে সবাইকে নিয়ে কাজ করার অঙ্গীকার করলেন।

দুই নেত্রী সম্মেলন সফলভাবে সম্পন্ন করতে সহযোগিতা করায় দলের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের অভিনন্দন জানান।

নবনির্বাচিত নগর মহিলা লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নীলু নাগের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে গণমাধ্যমকর্মী এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও ধন্যবাদ জানান হাসিনা মহিউদ্দিন ও আনজুমান আরা চৌধুরী।

মঙ্গলবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) দুই দশক পর চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় মহিলা বিষয়ক সম্পাদক বেগম ফজিলাতুন্নেছা ইন্দিরার উপস্থিতিতে সম্মেলনে হাসিনা মহিউদ্দিনকে সভাপতি এবং আনজুমানার আরা চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করে ১২ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।

এর আগে ১৯৯৮ সালে সর্বশেষ নগর মহিলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আতাউর রহমান খান কায়সারের স্ত্রী নীলুফার কায়সারকে সভাপতি এবং তপতী সেনগুপ্তাকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছিল।

এক-এগারোর কঠিন সময়ে নীলুফার কায়সার রোগাক্রান্ত হয়ে শয্যাশায়ী ছিলেন। এ সময় তপতী সেনগুপ্তা ভারতে চলে যান বলে প্রচার আছে। তখন মহিলা আওয়ামী লীগ নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়লে সংগঠনের হাল ধরেন হাসিনা মহিউদ্দিন।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সিনিয়র সহ সভাপতি নমিতা আইচ এবং সাধারণ সম্পাদক তপতী সেনগুপ্তার নেতৃত্বে নগর মহিলা লীগের একটি অংশ হাসিনা মহিউদ্দিনের বিরোধিতায় নামেন।

গত সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পর থেকে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বিদ্রোহী গ্রুপটিকে পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছেন বলে প্রচার আছে।


আরোও সংবাদ