সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে

প্রকাশ:| রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর , ২০১৫ সময় ০৭:৩০ অপরাহ্ণ

সততাচট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৫খ্রি. রবিবার, বিকেলে কে বি আবদুচ ছত্তার মিলনায়তনে নগরীর ৪১টি সাধারন ওয়ার্ড ও ১৪টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সচিব, জন্ম নিবন্ধন সহকারী ও এম এল এস এসদের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে সিটি মেয়র বলেন, ওয়ার্ড কার্যালয়ে কর্মরত সচিব, জন্ম নিবন্ধন সহকারী ও এম এল এস এস সকলেই সিটি কর্পোরেশনের কর্মচারী। তাদের নিয়োগ থেকে বেতন ভাতা সবই সিটি কর্পোরেশনের এখতিয়ার থেকে প্রদান করা হয়। তিনি বলেন, ওয়ার্ড সচিব সহ সকল কর্মচারীদের চাকুরীর বিধি বিধান মেনে চাকুরী করতে হবে এবং সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত অফিসে উপস্থিত থাকতে হবে। তিনি বলেন, জন্ম নিবন্ধন ছাড়া নাগরিকত্ব সনদ ও ওয়ারিশান সনদের ক্ষেত্রে সিটি কর্পোরেশন কোন ফি নিচ্ছে না। বিনা ফি’তে এসকল সনদ সরবরাহ করা হচ্ছে। যদি কোন ওয়ার্ড সচিব বা কোন কর্মচারী এ সকল সনদের ক্ষেত্রে ফি বা বকশিষ গ্রহণ করেন তা হবে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। মেয়র বলেন, সততা ও নিষ্ঠার সাথে যার যার দায়িত্ব শতভাগ পালন করতে হবে। মনে রাখতে হবে নির্ধারিত বেতনের বাহিরে অতিরিক্ত উপার্জন করার কোন সুযোগ নেই। সিটি মেয়র বলেন, প্রতিটি ওয়ার্ডে সি সি ক্যামরা স্থাপন করা হবে এবং প্রতিটি ওয়ার্ডে কম্পিউটার সরবরাহ করা হবে। নাগরিক সেবা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে কোন ধরনের হয়রানি বা অনিয়ম বরদাস্ত করা হবে না। ওয়ারিশান সনদ প্রদানের ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। যাচাই বাছাই করা ছাড়া ওয়ারিশান সনদ প্রদান করা সঠিক হবে না। কাউন্সিলদেরকে কেউ বিপদে ফেলারমত কর্মকান্ড করবেন না। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ওয়ার্ড কার্যালয় খোলা থাকবে। বিনা কারনে বা অফিস সময়ের আগে বা পরে ওয়ার্ড কার্যালয় খোলা রাখা যাবে না। তিনি বলেন, জাতীয় বেতন স্কেলের সাথে সমন্বয় করে অস্থায়ী কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি করা হবে। ইতোমধ্যে অস্থায়ী কর্মচারীদেরকেও ১ মাসের সমপরিমান বেতন উৎসব বোনাস হিসেবে প্রদান করা হয়েছে। মেয়র বলেন, সুযোগ সুবিধা শতভাগ নিশ্চিত করা হবে তবে তার বিনিময়ে শতভাগ নাগরিক সেবাও প্রদান করতে হবে। বৈঠকে প্যানেল মেয়র নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু,কাউন্সিলর মো. শফিউল আলম, কাউন্সিলর হাবিবুল হক, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর মিসেস আঞ্জুমান আরা বেগম, সচিব রশিদ আহমদ, মেয়রের একান্ত সচিব মোহাম্মদ মঞ্জুরুল ইসলাম, উপ-সচিব সাইফুদ্দিন মাহমুদ কাতেবী সহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।